সোমবার   ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৮ ১৪২৬   ২৩ মুহররম ১৪৪১

নদী উদ্ধারের সঙ্গে দখলবাজীও বন্ধ জরুরি

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত : ০২:৩৬ পিএম, ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ বুধবার

নদী রক্ষায় একদিকে চলছে সরকারের উদ্ধার কাজ অন্যদিকে দখলবাজরা চালাচ্ছে ভরাট কাজ। তাই নদী উদ্ধারের সঙ্গে নতুন দখলবাজী বন্ধ করাও জরুরি বলে দাবি করেছে পরিবেশবাদী কিছু সংগঠন।

বুধবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটের সাগর-রুনি মিলনায়তনে ৪৫টি পরিবেশবাদী সংগঠনের বিশ্ব নদী দিবস সমন্বয় পরিষদ আয়োজিত আগামী ২১ সেপ্টেম্বর ‘বিশ্ব নদী দিবস’ পালনের প্রস্তুতি সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

বক্তারা বলেন, দেশের বেশির ভাগ নদী আজ মৃতপ্রায়। এক সময় বাংলাদেশে ছোট-বড় প্রায় সাড়ে ১১শ’নদী ছিল। বর্তমানে আছে ৪০৫টি। নদী না বাঁচলে বাঁচবে না বাংলাদেশ। তাই নদী নিয়ে পরিবেশবাদী ও বিশেষজ্ঞসহ সাধারণ মানুষের যত উদ্বেগ। 

তবে নদী রক্ষার তৎপরতা গোটা দুনিয়া জুড়েই। এ কারণে নদী সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে সারাবিশ্বে বছরের সেপ্টেম্বরের শেষ রোববার পালিত হয়ে আসছে ‘বিশ্ব নদী দিবস’। আর বাংলাদেশ তার একদিন আগে এ দিবস পালন করে আসছে। 

এবার বিশ্ব নদী দিবসের প্রতিপাদ্য হচ্ছে,‘মার্স ফর রিভার’। গত বছরের স্লোগান ছিল ‘দখল দুষণমুক্ত প্রবাহমান নদী, বাঁচবে প্রাণ ও প্রকৃতি’।

দিবসটি উপলক্ষে বিভিন্ন পরিবেশবাদী ও নদীপ্রেমী সংগঠন নানা কর্মসূচির আয়োজন করেছে। এ উপলক্ষে ২১ তারিখ দুপুরে পুরান ঢাকার বাহাদুরশাহ পার্ক থেকে বুড়িগঙ্গা নদীর পাড়ে সদরঘাট টার্মিনাল অভিমুখে পদযাত্রা।

এ পদযাত্রায় অংশ নেবে বিশিষ্ট ব্যক্তি, নদী বিশেষজ্ঞ, গবেষক, নদী ও পরিবেশ রক্ষাকর্মী, ছাত্র-যুবক ও নদীপাড়ের জনগণ, বিভিন্ন পরিবেশবাদী, বিষয় সংশ্লিষ্ট সরকারি নীতি-নির্ধারক ও কর্মকর্তা এবং সামাজিক সংগঠনের প্রতিনিধিরা। 

১৯৮০ সাল থেকে প্রতি বছর সেপ্টেম্বর মাসের শেষ রোববার বিশ্ব নদী দিবস হিসেবে পালন শুরু করে কানাডার ব্রিটিশ কলম্বিয়া (বিসি) ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি। বাংলাদেশে ২০১০ সাল থেকে এ দিবস পালিত হয়ে আসছে।