ব্রেকিং:
প্রতিদিন কয়েকবার গরম পানির ভাপ নিয়েছি করোনায় ব্যতিক্রমী উদ্যোগ এমপিওভুক্তির সুখবর পেল ১৬৩৩ স্কুল-কলেজ ২০ হাজারের বেশি আইসোলেশন শয্যা প্রস্তুত রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে মানুষ, দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে বৈশ্বিক ক্রয়াদেশ পূরণে সক্ষম বাংলাদেশ ॥ শেখ হাসিনা লোকসান ঠেকাতে সরাসরি ক্ষেত থেকে সবজি কিনছে সেনাবাহিনী করোনা পরীক্ষায় দেশে চালু হলো প্রথম বেসরকারি ল্যাব যে দোয়ার আমলে স্মরণশক্তি বৃদ্ধি পাবে ইনশাআল্লাহ! আল্লাহ তিন ধরনের লোকের দোয়া ফিরিয়ে দেন না করোনা রোগীদের বাড়ি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার ভেন্টিলেটর-সিসিইউ স্থাপনে জরুরি প্রকল্প বঙ্গবন্ধুর মতো নেতা পৃথিবীতে খুব কম দেখা যায়: ট্রাম্প গবেষণা প্রটোকল জমা না দিয়েই বিষোদগার করছেন জাফরুল্লাহ জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচিতে নিয়োগ করোনা আক্রান্তের শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ ঘরেই পরীক্ষার উপায় মধ্যবিত্তরাও খাদ্যসহায়তার আওতায়: শিল্প প্রতিমন্ত্রী কর্মস্থল ত্যাগকারীদের তালিকা চায় মন্ত্রণালয় নাসিরনগরে শিশু নিহতের ঘটনায় গ্রেফতার ২ দেশে ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত, আরো ৮ মৃত্যু
  • সোমবার   ০১ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৯ ১৪২৭

  • || ০৯ শাওয়াল ১৪৪১

১১৭

৫০ ফুট গভীর কূপে ১৮ ঘণ্টা আটকে শিশুর করুণ মৃত্যু

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ৫ নভেম্বর ২০১৯  

৫০ ফুট গভীর কূপে ১৮ ঘণ্টা আটকে থাকার পর পাঁচ বছরের এক কন্যা শিশুর করুণ মৃত্যু হয়েছে। 

সোমবার ভারতের হরিয়ানা প্রদেশের কার্নাল জেলার হরিসিংহ গ্রামে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে বলে স্থানীয় পুলিশের বরাত দিয়ে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

দীর্ঘ সময় ধরে চেষ্টা চালিয়ে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করেছে উদ্ধারকর্মীরা। 

ঘড়াউন্ডা থানার ইন্সপেক্টর শচিন ফোনে জানান, রোববার ঘড়াউন্ডা অঞ্চলের মাঠে খেলার সময় মেয়েটি কূপে পড়ে যায়। তিনি আরো জানান, উদ্ধারের পর মেয়েটিকে দ্রুত কর্নালের সিভিল হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি বলেন, মেয়েটি বাসা থেকে খেলতে বের হওয়ার পর নিখোঁজ হয়। একপর্যায়ে পরিবারের সবাই মেয়েটির খোঁজ শুরু করলেও তাকে না পেয়ে তার পরিবার মেয়েটির কূপে যাওয়ার ব্যাপারে ধারনা করে।  

জেলা প্রশাসন ও পুলিশকে এ ব্যাপারে জানানোর পর সেখানে উদ্ধার অভিযান শুরু হয়। পরবর্তীতে ন্যাশনাল ডিজেস্টার রেসপন্স ফোর্স’কেও এ ব্যাপারে অবগত করা হয় বলে কর্তৃপক্ষ জানায়। 

তার জন্য কূয়ার ভেতরে অক্সিজেন সরবরাহের ব্যবস্থা করা হয়। শিশুটির অবস্থা জানতে কূয়ার ভেতরে ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়। যার মাধ্যমে উদ্ধারকর্মীরারা মেয়েটির পা দেখতে পায়।

ইন্সপেক্টর শচিন জানান, মেয়েটি বেঁচে আছে সেই আশায় তার বাবা-মায়ের কথার একটি রেকর্ড কূপের পাঠানো হয়। বাবা-মায়ের কন্ঠ শুনলে মেয়েটি নিরাপদ বোধ করবে ধারণা ছিল তাদের। তবে, কূপে পড়ে যাওয়া মেয়েটির কোনো ধরণের নড়াচড়া লক্ষ্য করা যায়নি। 

অসাবধানতার কারণে ভারতে প্রায়ই এ ধরণের ঘটনা ঘটে। গত কয়েকদিন আগে ভারতের নাড়ুকাট্টিপাট্টিতে ৮০ ঘণ্টার উদ্ধারকাজ চালানোর পরে তিন বছর বয়সী ছেলে সুজিথ উইলসনের পচা ও ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন দেহ টেনে তোলেন সেখানকার উদ্ধারকর্মীরা।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আন্তর্জাতিক বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর