ব্রেকিং:
ভাষা আন্দোলনের অমলিন গৌরব ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেল স্টেশন কসবায় মাটিখেকোরা গিলে খাচ্ছে অন্যের জমি জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণে ‘ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিশ্ববিদ্যালয়’ নদী খননে নানা সমস্যায় পড়ছে ‘ক্যাপিটাল ড্রেজিং নৌপথ’ শীর্ষক প্রক সম্মান দেখিয়ে চেয়ার ছেড়ে দিলেন উপমন্ত্রী নওফেল মেধা বৃত্তিতে সেরা বেগম মরিয়ম মেমোরিয়াল মডেল স্কুল বাঞ্ছারামপুরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ২৫ এখনো উদঘাটন হয়নি মাদ্রাসার শিক্ষার্থী হত্যার রহস্য সরাইলে সরকারি জায়গা দখল মুক্ত করলেন এসি ল্যান্ড ১৭২ দিন পর কবর থেকে তোলা হলো লাশ ‘আর কোনো নুসরাত যেন অধ্যক্ষের লালসার বলি না হয়’ ‘ইউনিভার্সিটি অব ব্রাহ্মণবাড়িয়া’র শিক্ষা কার্যক্রম উদ্ধোধন ‘কিছু লোক লেখাপড়া শেখে জনগণের টাকা হাতিয়ে নেয়ার জন্য’ চার ধাপে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা ডাকঘর সঞ্চয়ে মুনাফা ১১.২৮ শতাংশ: অর্থমন্ত্রী সপ্তাহের যে তিনদিন শারীরিক সম্পর্কে ঘটবে মহাবিপদ! ভাষাচর্চা একটি ইবাদত ওয়ানডেতে জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশের মিশনে বাংলাদেশ সত্যিই কি মারা গেছেন এন্ড্রু কিশোর? দুই ট্রেন একলাইনে, অল্পের জন্য বেঁচে গেলেন শত শত যাত্রী
  • বৃহস্পতিবার   ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ||

  • ফাল্গুন ১৫ ১৪২৬

  • || ০৩ রজব ১৪৪১

৪৯

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় দণ্ডিতদের অবস্থান

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ২২ আগস্ট ২০১৯  

২০০৪ সালের একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলার ঘটনায় ৫২ জনকে আসামি করে বিস্ফোরক ও হত্যার দু’টি মামলা করা হয়। এদের মধ্যে এই মামলার বিচার চলাকালে জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, হরকাতুল জিহাদ নেতা মুফতি আব্দুল হান্নান ও শরীফ শাহেদুল আলমের ফাঁসি অন্য মামলায় কার্যকর হয়। পরবর্তীতে গ্রেনেড হামলা মামলা থেকে তাদের বাদ দেয়া হয়েছে। বাকি ৪৯ আসামির মধ্যে লুৎফুজ্জামান বাবর এবং আব্দুস সালাম পিন্টুসহ ৩১ জন বর্তমানে কারাগারে রয়েছেন। এছাড়া তারেক রহমান এবং হারিছ চৌধুরীসহ ১৮ জনকে মামলার নথিতে পলাতক দেখানো হয়েছে। এদের মধ্যে ১৯ জনকে যাবজ্জীবন এবং ১৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে।

তারেক রহমান: বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান বর্তমানে লন্ডনে অবস্থান করছেন। গ্রেনেড হামলা মামলায় তাকে যাবজ্জীবন শাস্তি দেয়া হয়েছে।

লুৎফুজ্জামান বাবর: বিএনপি সরকারের সময় তিনি স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। গ্রেনেড হামলা মামলায় তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে। বর্তমানে তিনি কারাগারে অবস্থান করছেন।

আব্দুস সালাম পিন্টু: বিএনপি সরকারের সময় শিক্ষা উপমন্ত্রী ছিলেন আব্দুস সালাম পিন্টু। গ্রেনেড হামলা মামলায় তাকেও মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত। বর্তমানে তিনি কারাগারে রয়েছেন।

আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ: জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল ছিলেন তিনি। গ্রেনেড হামলা মামলায় তিনি ছিলেন অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ আসামি। তবে যুদ্ধাপরাধ মামলায় তার ফাঁসি কার্যকর হওয়ায় গ্রেনেড হামলা মামলা থেকে তার নাম বাদ দেয়া হয়।

মুফতি হান্নান: উগ্র ইসলামপন্থী দল হরকাতুল জিহাদের নেতা ছিলেন মুফতি হান্নান। গ্রেনেড হামলা মামলার মূল আসামি তিনি। সিলেটে গ্রেনেড হামলা চালিয়ে তিনজনকে হত্যার দায়ে ২০১৭ সালে তার ফাঁসি কার্যকর করা হয়।

তাজুল ইসলাম: বিএনপি সরকারের শিক্ষা উপমন্ত্রী আব্দুস সালাম পিন্টুর ভাই তিনি। গ্রেনেড হামলা মামলার রায়ে তাকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত। বর্তমানে তিনি দক্ষিণ আফ্রিকায় আছেন বলে জানা যায়।

হারিছ চৌধুরী: বিএনপি সরকারের সময় প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক সচিব ছিলেন তিনি। গ্রেনেড হামলা মামলায় তাকে যাবজ্জীবন শাস্তি দেয়া হয়েছে। বর্তমানে তার অবস্থান সম্পর্কে কেউ নিশ্চিত নয়। তবে তিনি যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যসহ একাধিক দেশে আসা যাওয়া করছেন বলে তদন্তকারী কর্মকর্তারা বলছেন।

মেজর জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) রেজ্জাকুল হায়দার চৌধুরী: প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা সংস্থা বা ডিজিএফআই-এর প্রধান ছিলেন তিনি। গ্রেনেড হামলা মামলায় তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়। বর্তমানে তিনি কারাগারে রয়েছেন।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) আব্দুর রহিম: তিনি ছিলেন জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা বা এনএসআই-এর সাবেক মহাপরিচালক। এ মামলার রায়ে তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে।

লেফট্যান্টে কমান্ডার (অবসরপ্রাপ্ত) সাইফুল ইসলাম ডিউক: বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সাবেক এ কর্মকর্তা সম্পর্কে খালেদা জিয়ার ভাগ্নে। এ মামলায় দীর্ঘ সময় তিনি জামিনে থাকলেও এখন তিনি কারাগারে রয়েছেন।

শাহ মোফাজ্জল হোসেন কায়কোবাদ: বিএনপির টিকিটে কুমিল্লা থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। গ্রেনেড হামলা মামলায় তাকে যাবজ্জীবন সাজা দেয়া হয়। মামলার অভিযোগপত্রে তাকে পলাতক দেখানো হয়েছে। ধারণা করা হয়, তিনি সৌদি আরবে পলাতক আছেন।

মোরসালিন ও মুত্তাকিন: এই মামলার আসামি, ঘটনার ঠিক দু’বছর পর ভারতে অস্ত্র ও বিস্ফোরকসহ ধরা পরে বর্তমানে দেশটির তিহার জেলে বন্দি আছে মোরসালিন ও মুত্তাকিন নামে দু’ভাই।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) এ টি এম আমিন: বিএনপি সরকারের সময় তিনি প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা সংস্থা বা ডিজিএফআই-এর দ্বিতীয় শীর্ষ ব্যক্তি ছিলেন। সে সরকারের মেয়াদ শেষ হলে তিনি আমেরিকায় চলে যান। মামলার কাগজপত্রে তাকেও পলাতক দেখানো হয়েছে।

লেফট্যান্টে কর্নেল (অবসরপ্রাপ্ত) সাইফুল ইসলাম: সাবেক এ সেনা কর্মকর্তা বর্তমানে কানাডায় অবস্থান করছেন বলে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে খবর বেরিয়েছে।

এদিকে, দায়িত্বে অবহেলার কারণে পুলিশ প্রধান শহুদুল হক, পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ আশরাফুল হুদা ও অতিরিক্ত পুলিশ প্রধান খোদাবক্স চৌধুরীকে দুই বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। বর্তমানে তারা সবাই কারাগারে অবস্থান করছেন।

এছাড়া, সিআইডির সাবেক বিশেষ পুলিশ সুপার রুহুল আমিন, সাবেক সিনিয়র এএসপি মুন্সি আতিকুর রহমান এবং এএসপি আব্দুর রশিদ বর্তমানে কারাগারে আছেন। এ তিনজন বিএনপি সরকারের সময় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ছিলেন।

মামলার আরেক আসামি পরিবহন ব্যবসায়ী। হানিফ এন্টার প্রাইজের মালিক মোহাম্মদ হানিফের অবস্থান থাইল্যান্ডে। রায়ে তাকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত।

পলাতক হরকাতুল জিহাদ নেতা জাহাঙ্গীর বদর সংযুক্ত আরব আমিরাতে। এছাড়া হরকাতুল জিহাদ নেতা শফিকুর রহমান, আব্দুল হাই, দেলোয়ার হোসেন জোবায়ের ওরফে লিটন, খলিলুর রহমান ও ইকবাল এদের এখনো হদিস নাই।

পলাতক সব আসামিদের ইন্টারপোল ও কূটনৈতিক আলোচনার মাধ্যমে দেশে ফিরিয়ে আনার দাবি জানান রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা।

উল্লেখ্য, একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় ২০০৮ সালে ২২ জনকে আসামি করে প্রথম অভিযোগপত্র দেয় সিআইডি। ২০১১ সালের আরো ৩০ জনকে আসামি করে সম্পূরক অভিযোগপত্র জমা দেয়া হয়। পরের বছর আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে বিচার কাজ শুরু হয়। মামলার ৪৯১ জন সাক্ষীর মধ্যে সাক্ষ্য দিয়েছেন ২২৫ জন। সাফাই সাক্ষ্য দিয়েছেন ২০ জন। আর আসামিদের মধ্যে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন ১৩ জন।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর