ব্রেকিং:
প্রতিদিন কয়েকবার গরম পানির ভাপ নিয়েছি করোনায় ব্যতিক্রমী উদ্যোগ এমপিওভুক্তির সুখবর পেল ১৬৩৩ স্কুল-কলেজ ২০ হাজারের বেশি আইসোলেশন শয্যা প্রস্তুত রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে মানুষ, দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে বৈশ্বিক ক্রয়াদেশ পূরণে সক্ষম বাংলাদেশ ॥ শেখ হাসিনা লোকসান ঠেকাতে সরাসরি ক্ষেত থেকে সবজি কিনছে সেনাবাহিনী করোনা পরীক্ষায় দেশে চালু হলো প্রথম বেসরকারি ল্যাব যে দোয়ার আমলে স্মরণশক্তি বৃদ্ধি পাবে ইনশাআল্লাহ! আল্লাহ তিন ধরনের লোকের দোয়া ফিরিয়ে দেন না করোনা রোগীদের বাড়ি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার ভেন্টিলেটর-সিসিইউ স্থাপনে জরুরি প্রকল্প বঙ্গবন্ধুর মতো নেতা পৃথিবীতে খুব কম দেখা যায়: ট্রাম্প গবেষণা প্রটোকল জমা না দিয়েই বিষোদগার করছেন জাফরুল্লাহ জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচিতে নিয়োগ করোনা আক্রান্তের শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ ঘরেই পরীক্ষার উপায় মধ্যবিত্তরাও খাদ্যসহায়তার আওতায়: শিল্প প্রতিমন্ত্রী কর্মস্থল ত্যাগকারীদের তালিকা চায় মন্ত্রণালয় নাসিরনগরে শিশু নিহতের ঘটনায় গ্রেফতার ২ দেশে ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত, আরো ৮ মৃত্যু
  • মঙ্গলবার   ১৪ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ৩০ ১৪২৭

  • || ২২ জ্বিলকদ ১৪৪১

৮৬৫

হাসপাতালে নবজাতক রেখে মা উধাও

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ১৬ অক্টোবর ২০১৯  

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসাপাতালের প্রসূতি বিভাগ। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই বিভাগের সামনে ফুটফুটে একটি শিশুকে কোলে নিয়ে বসে থাকতে দেখা গেছে এক নারীকে। এ সময় তিনি ফিডারে দুধ খাওয়াচ্ছেন। তবে তিনি শিশুটির মা নন, হাসপাতালের সেবিকা।

শিশুটির গায়ে নতুন জামা। তবে সেটি বাবা দেননি। দিয়েছেন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক মো. শওকত হোসেন। শিশুটির সার্বিক দায়িত্বও নেন তিনি। খোঁজখবর রাখছেন নিয়মিত।

হাসপাতালের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী মোতাহের হোসেন বলেন, রোববার রাতে আমার ডিউটি ছিল। জরুরি বিভাগে কাজ করছি। এ সময় এক নারীর চিৎকার শুনতে পাই। পেছনে দেখি ওই নারী গড়াগড়ি করছেন। তার সঙ্গে কেউ ছিলেন না। তাৎক্ষণিক তাকে হাসপাতালের প্রসূতি বিভাগে ভর্তি করি।

 

 

মোতাহের আরো বলেন, সাধারাণভাবেই ওই নারী সন্তান প্রসব করেন। রাতেই কিছু ওষুধ বাইরে থেকে কিনে এনে দেই। সকালে জানতে পারি ওই নারী সন্তানকে ফেলে চলে গেছেন।

শিশুটির দায়িত্বে থাকা কোহিনুর আক্তার জানান, শিশুটি তেমন কান্নাকাটি করে না। মাঝে মধ্যে হাসে।

হাসপাতালে জৈষ্ঠ সেবিকা স্মৃতি রানী রায় বলেন, শিশুটির শারীরিক কোনো সমস্যা নেই। যথাযথভাবে দেখভাল করা হচ্ছে। এ বিষয়ে আমাদের কঠোর নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।

সদর মডেল থানার এসআই নারায়ণ চন্দ্র দাস বলেন, নবজাতককে রেখে তার মা চলে যাওয়ার পর শিশুটির খোঁজখবর রাখছি। হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. শওকত হোসেনের তত্ত্বাবধানে শিশুটিকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। বর্তমানে শিশুটি সুস্থ রয়েছে।

সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক (সুপারিনটেনডেন্ট) ডা. মো. শওকত হোসেন বলেন, শিশুটি আপাতত আমাদের তত্ত্বাবধানে। সমাজসেবা কার্যালয় ও সদর থানা পুলিশও এ বিষয়ে খোঁজ রাখছেন। শিশুটিকে কোথায় রাখা যায় সে বিষয়ে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর