ব্রেকিং:
প্রতিদিন কয়েকবার গরম পানির ভাপ নিয়েছি করোনায় ব্যতিক্রমী উদ্যোগ এমপিওভুক্তির সুখবর পেল ১৬৩৩ স্কুল-কলেজ ২০ হাজারের বেশি আইসোলেশন শয্যা প্রস্তুত রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে মানুষ, দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে বৈশ্বিক ক্রয়াদেশ পূরণে সক্ষম বাংলাদেশ ॥ শেখ হাসিনা লোকসান ঠেকাতে সরাসরি ক্ষেত থেকে সবজি কিনছে সেনাবাহিনী করোনা পরীক্ষায় দেশে চালু হলো প্রথম বেসরকারি ল্যাব যে দোয়ার আমলে স্মরণশক্তি বৃদ্ধি পাবে ইনশাআল্লাহ! আল্লাহ তিন ধরনের লোকের দোয়া ফিরিয়ে দেন না করোনা রোগীদের বাড়ি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার ভেন্টিলেটর-সিসিইউ স্থাপনে জরুরি প্রকল্প বঙ্গবন্ধুর মতো নেতা পৃথিবীতে খুব কম দেখা যায়: ট্রাম্প গবেষণা প্রটোকল জমা না দিয়েই বিষোদগার করছেন জাফরুল্লাহ জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচিতে নিয়োগ করোনা আক্রান্তের শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ ঘরেই পরীক্ষার উপায় মধ্যবিত্তরাও খাদ্যসহায়তার আওতায়: শিল্প প্রতিমন্ত্রী কর্মস্থল ত্যাগকারীদের তালিকা চায় মন্ত্রণালয় নাসিরনগরে শিশু নিহতের ঘটনায় গ্রেফতার ২ দেশে ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত, আরো ৮ মৃত্যু
  • শনিবার   ০৬ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২৪ ১৪২৭

  • || ১৪ শাওয়াল ১৪৪১

৫০৯

স্বাস্থ্য সেবায় সমস্যা সমাধানের আশ্বাস কর্তৃপক্ষের

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ৭ নভেম্বর ২০১৯  

গুরুতর অসুস্থ হলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালে আনা হয় জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন সরকারকে। চিকিৎসকের পরামর্শে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় পাঠানোর কথা বলা হলে ঘটে বিপত্তি! সরকারি অ্যাম্বুলেন্স পাওয়া যায়নি। বেসরকারি অ্যাম্বুলেন্স যেটি আনা হলো সেটির ‘ফিটনেস’ ভালো না বিধায় আরেকটির জন্য যোগাযোগ করা হয়। কিন্তু ‘সিরিয়াল’ অনুযায়ী এটাতেই যেতে হবে বলে জানিয়ে দেওয়া হয়।

আল-মামুন সরকার ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, আমার মতো একজন যখন এমন হয়রানির শিকার হয় তখন সাধারণ মানুষের কি অবস্থা তা বুঝাই যায়।

বুধবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল আয়োজিত ‘স্বাস্থ্য সেবার উন্নয়নে করণীয়’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে উদ্বোধক হিসেবে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি এ কথাগুলো বলেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক দীপক চৌধুরী বাপ্পীর সভাপতিত্বে বৈঠকে অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. শওকত হোসেন, জেলা বিএএমএ সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. আবু সাঈদ।

সিলভার ফর্ক নামে স্থানীয় রেস্টেুরেন্টে আয়োজিত বৈঠকে উপস্থিত রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, সুধীজন, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিকরা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার স্বাস্থ্য সেবা নিয়ে শত অভিযোগ, সমস্যার কথা তুলে ধরেন ও প্রতিকারের দাবি জানান।

চিকিৎসকরা নিয়ম মেনে ডিউটি না করা, রাতের বেলায় ইমার্জেন্সি চিকিৎসক এসি রুমে গিয়ে শুয়ে থাকা, দালালের উৎপাত, পর্যাপ্ত ওষুধ না পাওয়া, অ্যাম্বুলেন্স সিন্ডিকেট, প্রাইভেট ক্লিনিকে বসা চিকিৎসদের অতিরিক্ত ভিজিট, প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষায় বেশ টাকায় আদায় ইত্যাদি বিষয়ে অভিযোগ তুলে ধরা হয়।  উপস্থিত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এসব প্রতিকার করার আশ্বাস দেন।

বৈঠকে সাংবাদিক শাহাদাৎ হোসেন জানান, হাসপাতালের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে থাকা এক চিকিৎসক নিয়মিতই অফিস সময়ে হাসপাতালের সামনেই প্রাইভেট প্র্যাকটিস করেন। এ নিয়ে বিভিন্ন ফোরামে অভিযোগ করা হলেও কোনো কাজ হয় নি।

রায়হানা জান্নাত নামে এক সমাজকর্মী অভিযোগ করেন, তিনি নিয়ম মেনে টিকিট কেটে চিকিৎসা করাতে গেলে ১০২ নম্বর কক্ষে যেতে বলা হয়। এ সময় কক্ষের বাইরে থাকা হাসপাতালের এক কর্মচারী বলেন প্রাইভেট ক্লিনিকে গিয়ে ওই চিকিৎসককে দেখালো সেবা ভালো পাবেন।

ডা. আবু সাঈদ বলেন, অ্যাম্বুলেন্স সদর হাসপাতাল থেকে সরানোর উদ্যোগ নিয়ে গিয়ে আমাকে হুমকির সম্মুখীনও হতে হয়েছে। চিকিৎসকদের ভিজিট, পরীক্ষা-নিরীক্ষার ফি কমানোর বিষয়টি আশপাশের এলাকার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে করার চেষ্টা করা হবে।

ডা. মো. শওকত হোসেন বলেন, হাসপাতালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসক বাড়ানোর চেষ্টা চলছে। হাসপাতালে পর্যাপ্ত পরিমাণে ওষুধ রয়েছে হাসপাতালে। যে দুইজন চিকিৎসকের বিষয়ে অভিযোগ উঠেছে তাদেরকে সতর্ক করে চিঠি দেওয়া হবে।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর