ব্রেকিং:
বিশ্ব জলবায়ুর উপরে লক ডাউন এর সুফল দুই উপকরণে মিনিটেই তৈরি করুন জীবাণুনাশক স্প্রে! দেশে করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে ১৫ জন সুস্থ, নতুন শনাক্ত নেই বিমানের সব রুট বন্ধ সচেতন থাকলে করোনা ইউরোপের মতো সংক্রমণ হবে না এনজিও’র উদ্যোগে অসহায় পরিবারের মাঝে খাবার সামগ্রী বিতরণ বিজয়নগরে ৩ ব্যবসায়ীকে অর্থদন্ড জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা দোকানের সামনে ভাইরাস সংক্রমন ঠেকাতে লাল বৃত্ত স্থাপন নবীনগর পৌরসভার জীবানুনাশক স্প্রে ছিটানো শুরু আখাউড়ায় মাস্ক ও গ্লাভস বিতরণ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ওষুধের দাম বেশি নেয়ায় ফার্মেসিকে জরিমানা অবৈধ-মেয়াদোত্তীর্ণ স্যানিটাইজার বিক্রির দায়ে জরিমানা সবার অজান্তে লাশ হলেন গৃহবধূ করোনা থেকে মুক্তির জন্য ২৫ হাজার কোটি টাকা চাওয়া যুবক আটক ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় করোনা প্রতিরোধে ‘কুইক রেসপন্স টিম’ করোনায় একদিনেই আক্রান্ত এক লাখ, হু হু করে বাড়ছেই করোনা থেকে রক্ষা পেতে মদ পান, ৩০০ ইরানির মৃত্যু ৭২ ঘণ্টার মধ্যেই করোনাভাইরাস প্রতিরোধের নয়া উপায় জানালেন চিকিৎসক! অবৈধ-মেয়াদোত্তীর্ণ স্যানিটাইজার বিক্রির দায়ে জরিমানা
  • শনিবার   ২৮ মার্চ ২০২০ ||

  • চৈত্র ১৪ ১৪২৬

  • || ০৩ শা'বান ১৪৪১

৩৪৩

সূর্যমুখী চাষে সফল ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কৃষকরা

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এই প্রথমবারের মতো সূর্যমুখী ফুলের চাষ করছেন কৃষকরা। জেলার ৯টি উপজেলায় প্রায় ৪০ হেক্টর জমিতে কৃষকরা হাইসান-৩৩ জাতের সূর্যমুখী ফুলের চাষ শুরু করেছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. বিউল হক মজুমদার জানান, জেলার নয়টি উপজেলায় প্রায় ৪০ হেক্টর বা ৩শ বিঘা জমিতে ভোজ্য তেল উৎপাদনের লক্ষ্যে প্রথমবারের মতো সূর্যমুখি ফুলের চাষ করা হচ্ছে। এর মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরে ৮০ বিঘা, আশুগঞ্জে ২০ বিঘা, সরাইলে ২০ বিঘা, কসবায় ২০ বিঘা, নাসিরনগরে ৪০ বিঘা, নবীনগরে ৪০ বিঘা, বাঞ্চারামপুরে ৩০ বিঘা, আখউড়ায় ২০ বিঘা ও বিজয়নগরে ৩০ বিঘা জমিতে সূর্যমুখি চাষ করা হচ্ছে। এতে সংশ্লিষ্ট উপজেলাগুলোর তিনশ জনেরও উপরে কৃষক সুবিধাভোগি হিসেবে অংশ নিয়েছেন।

তিনি জানান, ‘সূর্যমুখী চাষের ৯০ থেকে ১০৫ দিনের মধ্যেই কৃষকরা বীজ ঘরে তুলতে পারবেন। যদি প্রাকৃতিক দুর্যোগে কোন প্রকার ক্ষতি না হয় তাহলে প্রতি বিঘা জমিতে ছয় থেকে সাড়ে ছয় মণ সূর্যমুখী ফুলের বীজ পাওয়া যাবে। এক মণ বীজ থেকে ১৮ কেজি তেল পাওয়া যাবে। প্রতি কেজি তেল বাজারে ২৮০ টাকা দামে বিক্রি করা যায়। সূর্যমুখীর তেল ছাড়াও খৈল দিয়ে মাছের খাবার এবং গাছ জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা যায়। এর কোনো অংশই ফেলা যায় না। এছাড়া সূর্যমুখি চাষের পরও কৃষক যথা সময়ে আউশ ধানের চাষ করতে পারবেন। এসব তেল প্রক্রিয়াজাত এবং বাজারজাত করার ক্ষেত্রেও কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে কৃষকদের প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করা হবে বলে তিনি জানান।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর ও আশুগঞ্জের বিভিন্ন সূর্যমুখি প্রদর্শনী প্লটে গিয়ে দেখা যায়, ফুটে থাকা হলুদ সূর্যমসুখি ফুলের সমাহারে এক নয়নাভিরাম দৃশ্যের অবতারণা হয়েছে। চারদিকে হলুদ রঙের ফুলের মনমাতানো ঘ্রাণ আর মৌমাছির গুঞ্জনে মুখরিত হয়ে উঠেছে কৃষকের জমি। এটি যেন ফসলী জমি নয়, এ এক দৃষ্টি নন্দন বাগান। এমন মনোমুগ্ধকর দৃশ্য অবলোকনে শুধু প্রকৃতি প্রেমীই নয় বরং যে কারো হৃদয় কাড়বে। তবে সূর্যমুখি ফুল চাষের লক্ষ্য নিছক বিনোদন নয়। মুলত ভোজ্য তেল উৎপাদনের মাধ্যমে খাদ্য চাহিদা মেটাতে এ চাষ করা হচ্ছে। তেল জাতীয় অন্য ফসলের চেয়ে সূর্যমুখীর চাষ অনেক সহজলভ্য ও উৎপাদন খরচ কম হওয়ায় কৃষকেরা এতে উৎসাহিত হয়ে উঠেবেন বলে কৃষি অধিদপ্তর মনে করছে।

কৃষকরা জানান, গত পৌষ মাসের প্রথম দিকে সংশ্লিষ্ট কৃষি অফিস থেকে বীজ সংগ্রহ করে চাষ শুরু করেছেন তারা। একটি পরিণত সূর্যমুখি ফুলের গাছ ৯০ থেকে ১১০ সেন্টিমিটার লম্বা হয়ে থাকে। পরিণত হয়ে ইতোমধ্যেই সূর্যমুখী গাছে ফুল ধরতে শুরু করেছে।
আশুগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসার মো. জাহাঙ্গীর আলম জানান, চলতি বছরে উক্ত উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে প্রথমবারের মতো সূর্যমুখীর চাষ করা হয়েছে। মোট ২০ বিঘা জমিতে কৃষকরা হাইসান-৩৩ জাতের সূর্যমুখী ফুলের চাষ করেছেন। উপজেলা কৃষি অফিস থেকে কৃষকদের বিনামূল্যে সূর্যমুখীর বীজ, সার এবং আন্ত-পরিচর্যার জন্য উপকরণ ও অর্থ সহায়তা দেওয়া হয়েছে।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
নগর জুড়ে বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর