ব্রেকিং:
আগে থেকেই প্রস্তুত ছিলাম বলেই বাংলাদেশ ভালো আছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী শর্ত সাপেক্ষে হোটেল ও বেকারি খোলা থাকবে, জানালো ডিএমপি স্পেনে মৃত্যুর মিছিলে আরো ৮৩২ জন করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ফিরলেন জাস্টিন ট্রুডোর স্ত্রী সোফি বাংলাদেশে তৈরি হল প্রথম ভেন্টিলেটর যন্ত্র ফুল দিয়ে অভ্যর্থনা জানিয়ে পথচারীদের বাড়ি ফেরাচ্ছে সেনাবাহিনী চীনে সুস্থ হওয়া ৩ থেকে ১০ শতাংশ ফের আক্রান্ত সংসদ টিভিতে মাধ্যমিকের ক্লাস শুরু করোনাভাইরাস কীভাবে ছড়াচ্ছে, জানা নেই বিজ্ঞানীদেরও! অনলাইন কাঁপাচ্ছে ‘বড় লোকের বেটি’ ‘হক্কলে শুধু মুখোশ আর ওষধ দেয়, খাওন দেয় না’ দেশে নতুন করে কেউ করোনায় আক্রান্ত হননি কোয়ারেন্টাইন না মানায় ২৫ জনকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা বাঞ্ছারামপুরে করোনা রোধে জীবাণুনাশক স্প্রে হোম কোয়ারেন্টাইনে না থাকায় দুবাই ফেরত যুবককে জরিমানা নিষেধাজ্ঞা অমান্য করায় কারাদন্ড ও অর্থদন্ড প্রদান করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে যুবসমাজের সচেতনতা মূলক উদ্যোগ বিষ প্রয়োগে ৩০ লক্ষ টাকার মাছ নিধন নাসিরনগরে ২ ভাইয়ের ঝগড়ায় প্রাণ গেল শিশুর নবীনগরে পিপিই , হ্যান্ডগ্লাপস, মাস্ক ও স্যানিটাইজার বিতরণ
  • রোববার   ২৯ মার্চ ২০২০ ||

  • চৈত্র ১৫ ১৪২৬

  • || ০৪ শা'বান ১৪৪১

১৪

সরাইলে এনজিও কর্মীদের কিস্তির টাকা আদায় থেমে নেই

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ২৬ মার্চ ২০২০  

এনজিওর কিস্তি পরিশোধে হিমশিম খাচ্ছে সরাইল উপজেলার প্রায় লক্ষাধিক ঋণগ্রহীতাঋণগ্রহীতারা দ্রুত  এনজিওর কিস্তি বন্ধের দাবি জানিয়েছেন।এনজিওর কিস্তি বন্ধ না হলে তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে না খেয়ে থাকতে হবে এমন দাবি ঋণগ্রহীতাদের। এদিকে এনজিও’র লোকজন কিস্তি আদায়ের জন্য চাপ দিচ্ছে অভিযোগ ঋণ গ্রহিতাদের। সরেজমিনে জানা যায়, সরাইল উপজেলায় প্রায় অর্ধ শতাধিক বেসরকারি সংস্থা এনজিও রয়েছে। এ এনজিওগুলো থেকে সরাইল উপজেলার প্রায় কয়েক লক্ষাধিক মানুষ ঋণ নিয়ে ব্যবসা বাণিজ্য,গরু হাঁস-মুরগিপালন করে পরিবার -পরিজন নিয়ে দিনাতিপাত  করছে।করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ায় সরাইল উপজেলার ব্যবসায়ী কৃষক জেলে  দিনমজুর মানুষের আয়ের পথ বন্ধ হয়েগেছে। আয়ের পথ বন্ধ  হয়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছে উপজেলার ঋণগ্রহীতারা। একদিকে পরিবারের ভরণ পোষণ অন্যদিকে সাপ্তাহিক ও মাসিক ঋণের কিস্তির বোঝা। বর্তমান আয়ের পথ বন্ধ হওয়ায়  পরিবার ভরণ পোষণই কষ্ট সাধ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। রয়েছে গ্রাম্য সুদি বা লগ্নি  ঋণের চাপ। করুনার কারণে ব্যবসা বন্ধ কিন্তু থেমে নেই এনজিও কর্মীদের কিস্তির টাকা আদায়।সদর ইউপির উচালিয়া পাড়া গ্রামের  মুদি দোকানের মালিক অসমত মিয়া বলেন, করোনা ভাইরাসের প্রভাবে ব্যবসা প্রায় বন্ধ। দোকানে মাল রয়েছে কোন ক্রেতা নেই। অন্য দিকে ঋণের কিস্তি পরিশোধের জন্য এনজিও’র চাপ প্রয়োগ না আজ আমাকে কিস্তি দিতে হয়েছে। ব্যবসা বানিজ্য বন্ধ থাকায় খুব কষ্টে দিন কাটছে। দ্রুত  এনজিও’র ঋণের  কিস্তি বন্ধের দাবি জানাই।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর