ব্রেকিং:
প্রতিদিন কয়েকবার গরম পানির ভাপ নিয়েছি করোনায় ব্যতিক্রমী উদ্যোগ এমপিওভুক্তির সুখবর পেল ১৬৩৩ স্কুল-কলেজ ২০ হাজারের বেশি আইসোলেশন শয্যা প্রস্তুত রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে মানুষ, দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে বৈশ্বিক ক্রয়াদেশ পূরণে সক্ষম বাংলাদেশ ॥ শেখ হাসিনা লোকসান ঠেকাতে সরাসরি ক্ষেত থেকে সবজি কিনছে সেনাবাহিনী করোনা পরীক্ষায় দেশে চালু হলো প্রথম বেসরকারি ল্যাব যে দোয়ার আমলে স্মরণশক্তি বৃদ্ধি পাবে ইনশাআল্লাহ! আল্লাহ তিন ধরনের লোকের দোয়া ফিরিয়ে দেন না করোনা রোগীদের বাড়ি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার ভেন্টিলেটর-সিসিইউ স্থাপনে জরুরি প্রকল্প বঙ্গবন্ধুর মতো নেতা পৃথিবীতে খুব কম দেখা যায়: ট্রাম্প গবেষণা প্রটোকল জমা না দিয়েই বিষোদগার করছেন জাফরুল্লাহ জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচিতে নিয়োগ করোনা আক্রান্তের শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ ঘরেই পরীক্ষার উপায় মধ্যবিত্তরাও খাদ্যসহায়তার আওতায়: শিল্প প্রতিমন্ত্রী কর্মস্থল ত্যাগকারীদের তালিকা চায় মন্ত্রণালয় নাসিরনগরে শিশু নিহতের ঘটনায় গ্রেফতার ২ দেশে ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত, আরো ৮ মৃত্যু
  • শনিবার   ১৫ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ৩১ ১৪২৭

  • || ২৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

৩৭৫

সরাইলে অবাধে গড়ে উঠেছে অবৈধ ইটভাটা!

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ১৪ জানুয়ারি ২০২০  

নিয়ম নীতি না মেনেই সরাইলে ফসলি জমি দখল করে দিন দিন গড়ে উঠছে নতুন নতুন ইট-ভাটা।

বাস্তবে আইনের নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে একশ্রেনীর প্রভাবশালী ও পয়সাওয়ালা ভাটার মালিকরা ইটভাটার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। বেশির ভাগ ভাটায় নিয়ম নীতিমালা শুধু কাগজেই সীমাবদ্ধ।

পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই সরাইল উপজেলার কালিকচ্ছ ইউনিয়ন ধরন্তি হাওর  ফসলি জমিতে নির্মাণ করা হচ্ছে ইটভাটা। এমনকি নেয়া হয়নি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও জেলা প্রশাসনের অনুমতি।

ইটভাটা নির্মাণে আশপাশের কয়েকশ’ একর আবাদী জমির ফসল নষ্ট হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় কৃষকরা।

ধরন্তী এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, এক বছর আগে যেখানে ধান আবাদ হতো সেখানে এখন নির্মাণ করা হচ্ছে ইটভাটা।শ্রমিকরা পুরোদমে নির্মাণকাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। যেন দম ফেলার ফুরসত নেই। নির্মিত ইটভাটার পাশের জমিতে চলছে বোরো রোপণ কার্যক্রম। ইটভাটা নির্মাণ করতে পরিবেশ অধিদপ্তরের কোনো ছাড়পত্র নেয়নি ভাটা কর্তৃপক্ষ। এমনকি জেলা প্রশাসনের অনুমতিও নেয়নি। ইটভাটা নির্মাণে হুমকির মুখে পড়বে কয়েকশ’ একর আবাদী জমি। নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে সরাইলে অবাধে গড়ে উঠছে ইটভাটা। এসব অনুমোদনহীন ইটভাটার কারণে পরিবেশ বিপর্যয় ছাড়াও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে একরের পর একর কৃষি জমি। 

এদিকে পরিবেশ অধিদপ্তরের আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে প্রশাসনের নাকের ডগায় চালাইতেছে ইটভাটা । যেন দেখার কেউ নেই।জানা যায়, উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে ইটভাটা রয়েছে। কিছু ইটভাটার লাইসেন্স রয়েছে। বাকিগুলো নামকাওয়াস্তা আবেদন করেই অবৈধভাবে করছে ইটের ব্যবসা। নেই পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমোদন। ফসলি জমি ও ঘনজনবসতিএলাকাগড়ে তুলেছে ইটভাটাগুলো। ফলে একরের পর একর ফসলি জমির ক্ষতির পাশপাশি মারাত্মক পরিবেশ বিপর্যয় ঘটেছে।

জনবসতি এলাকায় গড়া তোলা ইটভাটার ধোঁয়ায় দেখা দিয়েছে শ্বাসকষ্ট, ফুঁসফুঁস, চর্ম, হাঁপানি, যক্ষ্মাসহ নানান রোগীর আধিক্য। স্থানীয়দের অভিযোগ ইটভাটার কারণে উৎপাদন হারিয়েছে আবাদিজমিসহ ফলফলাদির গাছ। তবে বৈধ কোনো কাগজপত্র ছাড়াই উপজেলার বহু ইটভাটার তাদের কার্যক্রম চালিয়ে গেলেও প্রশাসন নির্বিকার ভূমিকা পালন করছে। জনবসতিতে গড়ে তোলা অবৈধ ইটভাটা গুলোর অপসারণের দাবি স্থানীয়দের।স্থানীয় কৃষকেরা বলেন, ইটভাটা নির্মাণের ফলে আমাদের ফসলি জমি নষ্ট  হচ্ছে । ভাটার সঙ্গে লাগানো রয়েছে কয়েকশ’ একর আবাদী জমি। যেখানে ধান  ফসল ফলানো হয়। ইটভাটার কারণে  আমরা বিপদে আছি। গতকাল উপজেলায় অনুষ্ঠিত  আইন- শৃঙ্খলা সভায় অবৈধ ইটভাটা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনায় বক্তারা জানান,আবাদী ও ফসলি জমি রক্ষায়  অভিযান পরিচালনা জোরদার করে,যাতে আর কোন ফসলি জমিতে পুকুর বা মাঠি কাটতে না পারে সভা কে অভিহিত করেন।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর