ব্রেকিং:
প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এর বিদায় জুয়া খেলা অবস্থায় চারজন আটক বিশেষ অভিযানে ভারতীয় মোবাইল ফোনসহ চোরাকারবারী গ্রেফতার ৭ লক্ষাধিক টাকা আবর্তক ঋণ বিতরণ বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনে ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট সরকারি কর্মকর্তাদের নিকট আত্মীয় পরিচয়ে প্রতারণা, অতঃপর.. শেখ হাসিনা তিতাস সেতু’র অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ বাঁশের উপর ভর করে দাঁড়িয়ে আছে পাকা ব্রিজ! মেধাবী শিক্ষার্থীদের শিক্ষাবৃত্তি প্রদান কৃষিজমি রক্ষায় অবৈধ ড্রেজার ধ্বংস বড়শিতে ধরা পড়ল ১০০ কেজির মাছ! আখের লালি তৈরিতে মাতোয়ারা বিষ্ণপুর ফেব্রুয়ারিতেই চালু হচ্ছে কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিনের জাহাজ নোট-গাইড পড়ানো ও বাড়তি ফি আদায় বন্ধের নির্দেশ আউটসোর্সিংয়ে বিশ্বে দ্বিতীয় স্থানে বাংলাদেশ পণ্য কিনে প্রতারিত হলে অভিযোগ করুন এভাবে সালাত ও জাকাতে অলসতাকারীর পরিণতি ১ম পর্ব নামের মিল থাকায় জেল খাটছেন চা দোকানি বাংলাদেশের সফরের আগে লাহোরে ৩ সন্ত্রাসী গ্রেফতার অধ্যক্ষের নগ্ন ভিডিও ফাঁস, ফেসবুকে তোলপাড়

বৃহস্পতিবার   ২৩ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ৯ ১৪২৬   ২৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

২৯৫

সরাইলে অবাধে গড়ে উঠেছে অবৈধ ইটভাটা!

প্রকাশিত: ১৪ জানুয়ারি ২০২০  

নিয়ম নীতি না মেনেই সরাইলে ফসলি জমি দখল করে দিন দিন গড়ে উঠছে নতুন নতুন ইট-ভাটা।

বাস্তবে আইনের নিয়মনীতি তোয়াক্কা না করে একশ্রেনীর প্রভাবশালী ও পয়সাওয়ালা ভাটার মালিকরা ইটভাটার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। বেশির ভাগ ভাটায় নিয়ম নীতিমালা শুধু কাগজেই সীমাবদ্ধ।

পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই সরাইল উপজেলার কালিকচ্ছ ইউনিয়ন ধরন্তি হাওর  ফসলি জমিতে নির্মাণ করা হচ্ছে ইটভাটা। এমনকি নেয়া হয়নি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও জেলা প্রশাসনের অনুমতি।

ইটভাটা নির্মাণে আশপাশের কয়েকশ’ একর আবাদী জমির ফসল নষ্ট হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় কৃষকরা।

ধরন্তী এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, এক বছর আগে যেখানে ধান আবাদ হতো সেখানে এখন নির্মাণ করা হচ্ছে ইটভাটা।শ্রমিকরা পুরোদমে নির্মাণকাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। যেন দম ফেলার ফুরসত নেই। নির্মিত ইটভাটার পাশের জমিতে চলছে বোরো রোপণ কার্যক্রম। ইটভাটা নির্মাণ করতে পরিবেশ অধিদপ্তরের কোনো ছাড়পত্র নেয়নি ভাটা কর্তৃপক্ষ। এমনকি জেলা প্রশাসনের অনুমতিও নেয়নি। ইটভাটা নির্মাণে হুমকির মুখে পড়বে কয়েকশ’ একর আবাদী জমি। নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে সরাইলে অবাধে গড়ে উঠছে ইটভাটা। এসব অনুমোদনহীন ইটভাটার কারণে পরিবেশ বিপর্যয় ছাড়াও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে একরের পর একর কৃষি জমি। 

এদিকে পরিবেশ অধিদপ্তরের আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে প্রশাসনের নাকের ডগায় চালাইতেছে ইটভাটা । যেন দেখার কেউ নেই।জানা যায়, উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে ইটভাটা রয়েছে। কিছু ইটভাটার লাইসেন্স রয়েছে। বাকিগুলো নামকাওয়াস্তা আবেদন করেই অবৈধভাবে করছে ইটের ব্যবসা। নেই পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমোদন। ফসলি জমি ও ঘনজনবসতিএলাকাগড়ে তুলেছে ইটভাটাগুলো। ফলে একরের পর একর ফসলি জমির ক্ষতির পাশপাশি মারাত্মক পরিবেশ বিপর্যয় ঘটেছে।

জনবসতি এলাকায় গড়া তোলা ইটভাটার ধোঁয়ায় দেখা দিয়েছে শ্বাসকষ্ট, ফুঁসফুঁস, চর্ম, হাঁপানি, যক্ষ্মাসহ নানান রোগীর আধিক্য। স্থানীয়দের অভিযোগ ইটভাটার কারণে উৎপাদন হারিয়েছে আবাদিজমিসহ ফলফলাদির গাছ। তবে বৈধ কোনো কাগজপত্র ছাড়াই উপজেলার বহু ইটভাটার তাদের কার্যক্রম চালিয়ে গেলেও প্রশাসন নির্বিকার ভূমিকা পালন করছে। জনবসতিতে গড়ে তোলা অবৈধ ইটভাটা গুলোর অপসারণের দাবি স্থানীয়দের।স্থানীয় কৃষকেরা বলেন, ইটভাটা নির্মাণের ফলে আমাদের ফসলি জমি নষ্ট  হচ্ছে । ভাটার সঙ্গে লাগানো রয়েছে কয়েকশ’ একর আবাদী জমি। যেখানে ধান  ফসল ফলানো হয়। ইটভাটার কারণে  আমরা বিপদে আছি। গতকাল উপজেলায় অনুষ্ঠিত  আইন- শৃঙ্খলা সভায় অবৈধ ইটভাটা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনায় বক্তারা জানান,আবাদী ও ফসলি জমি রক্ষায়  অভিযান পরিচালনা জোরদার করে,যাতে আর কোন ফসলি জমিতে পুকুর বা মাঠি কাটতে না পারে সভা কে অভিহিত করেন।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর