ব্রেকিং:
এক বিয়ে বাড়ি থেকেই মহামারি ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে বিশ্বে! করোনায় বাংলাদেশকে তিন লাখ ডলার সহায়তা এডিবি’র বিশ্ব জলবায়ুর উপরে লক ডাউন এর সুফল দুই উপকরণে মিনিটেই তৈরি করুন জীবাণুনাশক স্প্রে! দেশে করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে ১৫ জন সুস্থ, নতুন শনাক্ত নেই বিমানের সব রুট বন্ধ সচেতন থাকলে করোনা ইউরোপের মতো সংক্রমণ হবে না এনজিও’র উদ্যোগে অসহায় পরিবারের মাঝে খাবার সামগ্রী বিতরণ বিজয়নগরে ৩ ব্যবসায়ীকে অর্থদন্ড জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা দোকানের সামনে ভাইরাস সংক্রমন ঠেকাতে লাল বৃত্ত স্থাপন নবীনগর পৌরসভার জীবানুনাশক স্প্রে ছিটানো শুরু আখাউড়ায় মাস্ক ও গ্লাভস বিতরণ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ওষুধের দাম বেশি নেয়ায় ফার্মেসিকে জরিমানা অবৈধ-মেয়াদোত্তীর্ণ স্যানিটাইজার বিক্রির দায়ে জরিমানা সবার অজান্তে লাশ হলেন গৃহবধূ করোনা থেকে মুক্তির জন্য ২৫ হাজার কোটি টাকা চাওয়া যুবক আটক ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় করোনা প্রতিরোধে ‘কুইক রেসপন্স টিম’ করোনায় একদিনেই আক্রান্ত এক লাখ, হু হু করে বাড়ছেই করোনা থেকে রক্ষা পেতে মদ পান, ৩০০ ইরানির মৃত্যু
  • শনিবার   ২৮ মার্চ ২০২০ ||

  • চৈত্র ১৪ ১৪২৬

  • || ০৩ শা'বান ১৪৪১

৪৭৪

শেখ হাসিনার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি ৪৮টি

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ৭ জানুয়ারি ২০২০  

বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশনারি নেতৃত্ব (১৯৯৭ থেকে ২০১৯) সাল পর্যন্ত ৪৮টি উন্নয়ন ও সাফল্যের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেয়েছে। একজন সফল রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে শান্তি, গণতন্ত্র, দারিদ্র্য বিমোচন, উন্নয়নের জন্য বহু পদক ও সম্মাননা পেয়েছেন তিনি।  

প্রাপ্ত অর্জন ও স্বীকৃতির মধ্যে বিশেষভাবে কয়েকটি এখানে উল্লেখ করা হলো-

(১৯৯৭- ২০০০) ১৪টি

*১৯৯৭ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টন বিশ্ববিদ্যালয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সম্মানসূচক ‘ডক্টর অব লজ’ ডিগ্রি প্রদান করে।

*১৯৯৭ সালের ৪ জুলাই জাপানের ওয়াসেদা বিশ্ববিদ্যালয় সম্মানসূচক ‘ডক্টর অব লজ’ ডিগ্রি প্রদান করে।

*১৯৯৭ সালের ২৫ অক্টোবর যুক্তরাজ্যের ডান্ডি অ্যাবাৰ্তে বিশ্ববিদ্যালয় ‘ডক্টর অব লিবারেল আর্টস’ ডিগ্রি প্রদান করে।

*১৯৯৭ সালে নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে শান্তি, গণতন্ত্র ও সৌহার্দ্য স্থাপনে অনন্য ভূমিকার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘নেতাজী মেমোরিয়াল পদক’ প্রদান করা হয়।

*১৯৯৭ সালে আন্তর্জাতিক রোটারি ফাউন্ডেশন ‘পল হ্যারিস ফেলো’ নির্বাচিত করে।

*একই বছর যুক্তরাষ্ট্রের লায়ন্স ক্লাবসমূহের আন্তর্জাতিক অ্যাসোসিয়েশন কর্তৃক ‘রাষ্ট্রপ্রধান পদক’-এ ভূষিত হন।

*পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি প্রতিষ্ঠায় অবদানের জন্য ইউনেস্কো শেখ হাসিনাকে ১৯৯৮ সালে ‘ফেলিক্স হোফে বোইনি’ শান্তি পুরস্কারে ভূষিত করে।

*১৯৯৮ সালের ২৮ জানুয়ারি শান্তিনিকেতনে বিশ্বভারতী আয়োজিত এক বিশেষ সমাবর্তনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘দেশিকোত্তম’ উপাধিতে ভূষিত করা হয়।

*১৯৯৮ সালের ১২ এপ্রিল শান্তি ও সৌহার্দ্য প্রতিষ্ঠায় অবদানের জন্য নিখিল ভারত শান্তি পরিষদ ‘মাদার তেরেসা’ পদক প্রদান করে।

*১৯৯৮ সালে নরওয়েতে অবস্থিত মহাত্মা গান্ধী ফাউন্ডেশন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘এম কে গান্ধী’ পদক প্রদান করে।

* ১৯৯৯ সালে ক্ষুধার বিরুদ্ধে আন্দোলনের অবদানস্বরূপ জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য সংস্থা (FAO) কর্তৃক ‘সেরেস পদক’ লাভ করেন।

* মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় অসামান্য অবদানের জন্য অস্ট্রেলিয়া ন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয় ১৯৯৯ সালের ২০ অক্টোবর সম্মানসূচক ‘ডক্টর অব লজ’ ডিগ্রি প্রদান করে।

*১৯৯৯ সালের ১৮ ডিসেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সম্মানসূচক ‘ডক্টর অব লজ’ উপাধি প্রদান করে।

*যুক্তরাজ্যের ব্রিজপোর্ট বিশ্ববিদ্যালয় তাকে সম্মানসূচক ‘ডক্টর অব হিউমেন লেটার্স’ প্রদান করে।

(২০০০- ২০১৯) পর্যন্ত ৩৪টি আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার: 

*২০০০ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি ব্রাসেলসের ক্যাথলিক বিশ্ববিদ্যালয় তাকে Doctor Honoris causea প্রদান করে।

*২০০০ সালে রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও মানবাধিকারের ক্ষেত্রে সাহসিকতা এবং দূরদর্শিতার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাকন উইমেনস কলেজ ‘পার্ল এস বাক’ পদক প্রদান করে।

*২০০০ সালে আফ্রো-এশিয়ান ল’ ইয়ার্স ফেডারেশন ‘পার্সন অব দ্য ইয়ার’ নির্বাচিত করে।

*২০০১ সালে বঙ্গবন্ধু কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ‘ডক্টর অব সায়েন্স’ ডিগ্রি প্রদান করে।

*২০০৫ সালের জুন মাসে গণতন্ত্র, মানবাধিকার ও শান্তির পক্ষে অবদানের জন্য রাশিয়ার পিপলস ফ্রেন্ডস ইউনিভার্সিটি সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি প্রদান করে।

*২০১০ সালের ১২ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘ইন্দিরা গান্ধী শান্তি পদক ২০০৯’-এ ভূষিত হন।

*২০১০ সালের ২৩ নভেম্বর আন্তর্জাতিক উন্নয়নে অবদানের জন্য সেন্ট পিটার্সবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয় ‘অনারারি ডক্টরেট’ ডিগ্রি প্রদান করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে।

*২০১০ সালে শিশুমৃত্যুর হার কমিয়ে আনায় জাতিসংঘ ‘এমডিজি পুরস্কার’ প্রদান করে।

*২০১১ সালে প্যারিসের ডাউফিন ইউনিভার্সিটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে মর্যাদাপূর্ণ স্বর্ণপদক ও ডিপ্লোমা পুরস্কার প্রদান করে।

*২০১১ সালে আন্তর্জাতিক টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়ন (আইটিইউ), সাউথ-সাউথ নিউজ ও জাতিসংঘের আফ্রিকা সংক্রান্ত অর্থনৈতিক কমিশন যৌথভাবে স্বাস্থ্য খাতে যুগান্তকারী সাফল্য অর্জনের জন্য সাউথ-সাউথ পুরস্কার প্রদান করে।

*২০১১ সালের ২৬ জানুয়ারি গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে দূরদর্শী নেতৃত্ব, সুশাসন, মানবাধিকার রক্ষা, আঞ্চলিক শান্তি ও জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সচেতনতা বৃদ্ধিতে অবদানের জন্য ইংল্যান্ডের হাউস অব কমন্সের স্পিকার জন বারকো, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘গ্লোবাল ডাইভারসিটি অ্যাওয়ার্ড’ প্রদান করেন।

*২০১২ সালে ত্রিপুরা সেন্ট্রাল ইউনিভার্সিটি সম্মানসূচক ডি-লিট ডিগ্রি প্রদান করে।

* ২০১২ সালে সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য রক্ষা এবং সাংস্কৃতিক কার্যক্রম এগিয়ে নিতে বিশেষ অবদানের জন্য ইউনেস্কো ‘কালচারাল ডাইভারসিটি পদক’ প্রদান করে।

* ২০১২ সালে বন ব্যবস্থাপনায় সাফল্যের জন্য ইকুয়েটর পুরস্কার, ওয়াঙ্গারি মাথাই পুরস্কার এবং আর্থ কেয়ার পুরস্কার অর্জন করেন।

*২০১৩ সালের ১৬ জুন দারিদ্র্য ও অপুষ্টি দূরীকরণে অবদানের জন্য জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা ‘ডিপ্লোমা অ্যাওয়ার্ড’ প্রদান করে।

*২০১৩ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর খাদ্য নিরাপত্তা ও দারিদ্র বিমোচনে অবদানের জন্য ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর সাউথ-সাউথ কো-অপারেশন ‘সাউথ-সাউথ অ্যাওয়ার্ড ২০১৩’ পুরস্কার প্রদান করে।

*২০১৩ সালের ৬ ডিসেম্বর ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পের জন্য ভারতের নয়াদিল্লিতে অনুষ্ঠিত তথ্যপ্রযুক্তি মেলায় সাউথ এশিয়া ও এশিয়া প্যাসিফিক ম্যানহাটন অ্যাওয়ার্ড ২০১৩ লাভ করেন।

*২০১৪ সালের ৮ সেপ্টেম্বর নারী শিক্ষা ও নারীর ক্ষমতায়নে অবদানের জন্য ইউনেস্কো‘শান্তি বৃক্ষ পুরস্কার’ প্রদান করে।

*২০১৪ সালে ডিজিটাল ব্যবস্থায় বাংলাদেশের অগ্রগতি ও শিক্ষার প্রসারে অবদানের জন্য ‘সাউথ-সাউথ কো-অপারেশন ভিশনারি অ্যাওয়ার্ড’ লাভ করেন।

২০১৫ সালে জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনে আইসিটি’র ব্যবহারে প্রচারণার জন্য শেখ হাসিনাকে ‘আইসিটি সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ প্রদান করা হয়। দেশের উন্নয়নে তার অব্যাহত অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ তাকে এ পদক প্রদান করা হয়।

উইমেন ইন পার্লামেন্ট (ডব্লিউআইপি) ও ইউনেস্কো বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রীকে ‘ডব্লিউআইপি গ্লোবাল ফোরাম অ্যাওয়ার্ড’ প্রদান করে। ২০১৯ সালের মার্চ মাসে দক্ষিণ ও দক্ষিণপূর্ব এশিয়ায় রাজনৈতিক অঙ্গনে লিঙ্গ বৈষম্য হ্রাসে অগ্রণী ভূমিকা পালনের জন্য তাকে এ পদক দেয়া হয়।

তৃতীয় মেয়াদে সরকার গঠন করে ৫টি উন্নয়ন ও সাফল্যের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

*২০১৯ সালের ৭ মার্চ বার্লিনে নারীর ক্ষমতায়নে অসামান্য অবদান রাখায় ইনস্টিটিউট অব সাউথ এশিয়ান উইমেন ‘লাইফ টাইম কন্ট্রিবিউশন ফর উইমেন্ট এমপাওয়ারমেন্ট অ্যাওয়ার্ডে’ ভূষিত করে।

*২০১৯ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে ঐতিহাসিক সম্পর্ক গড়ে তোলার জন্য অসামান্য অবদান, জনকল্যাণ বিশেষত নারী ও শিশুদের কল্যাণে বিশেষ অবদান রাখা এবং আন্তর্জাতিক শান্তি ও সহয়োগিতার জন্য শেখ হাসিনাকে ভারতের ‘ড. কামাল স্মৃতি ইন্টারন্যাশনাল এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড-২০১৯’ প্রদান করে।

*২০১৯ সালে ২৪ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে সমন্বিত টিকাদান কর্মসূচিতে ব্যাপক সফলতার জন্য গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ভ্যাকসিনস অ্যান্ড ইমিউনাইজেশন (জিএভিআই গ্যাভি) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘ভ্যাকসিন হিরো’ সম্মাননায় ভূষিত করে।

*২০১৯ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের শিশুবিষয়ক তহবিল-ইউনিসেফ তরুণদের দক্ষতা উন্নয়নে বাংলাদেশের অসামান্য সাফল্যের স্বীকৃতি হিসেবে ‘চ্যাম্পিয়ন ডেভেলপমেন্ট ফর ইয়ুথ’ সম্মাননায় ভূষিত করে।

*২০১৯ সালের ৫ অক্টোবর আঞ্চলিক শান্তি ও সমৃদ্ধিতে বিশেষ অবদান রাখার জন্য কলকাতা এশিয়াটিক সোসাইটি ‘ঠাকুর শান্তি পুরস্কার-২০১৮’ প্রদান করে।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর