ব্রেকিং:
শিক্ষার্থীদের মনের কথা জানতে স্কুলে স্কুলে ‘ইউএনও বক্স’ নার্সারি ব্যবসায় সংসারে হাসি ফোটালেন খলিলুর আমি দিতে এসেছিলাম, নিতে নয়! অবৈধ দখল-দূষণে বিলুপ্তির পথে ঐতিহ্যবাহী খাল! অন্নদা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ২ আ’লীগ নেতার আগাম জামিন পৌর কলেজে পিঠা ও নবীনবরণ উৎসব অনুষ্ঠিত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় করোনাভাইরাস চিকিৎসায় সেবা কর্ণার স্থাপন বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ দুঃস্থদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ঝুঁকিপূর্ণ লোহার ব্রিজ দিয়ে চলছে ভারী যানবাহন কক্সবাজার-সেন্টমার্টিনের জাহাজ ভাড়া ১৫ হাজার! স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা: ১০ আসামির ৮ জনেরই মৃত্যুদণ্ড বহাল ৬ ফেব্রুয়ারি শুরু হচ্ছে বেসিস সফটএক্সপো সেবার মূল্য তালিকা প্রদর্শনের নির্দেশ বাংলাদেশ ব্যাংকের কন্যাকে স্বামী সম্পর্কে উপদেশ... ‘আমি চাই না বাংলাদেশে এ রোগ ছড়াক, তাই দেশে ফিরবো না’ টাইগারদের আর বিশেষ বিমানে পাকিস্তানে পাঠাবে না বিসিবি উদ্বোধনের আগেই দেবে গেছে কোটি টাকার গণমিলনায়তন

বুধবার   ২৯ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ১৬ ১৪২৬   ০৩ জমাদিউস সানি ১৪৪১

৭২৩

শতবর্ষী মায়ের বসবাস টয়লেটে

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ২১ জুন ২০১৯  

বয়সের ভারে নুয়ে পড়েছেন নছিমন বেওয়া। লাঠিতে ভর দিয়ে কোনো রকমে হাটেন। বয়স প্রায় একশ’র কাছাকাছি। ছেলেমেয়ে থাকার পরও স্বামী হারা এই বৃদ্ধার মাথা গোঁজার জায়গা নেই। তাই নিদারুণ কষ্টে বছরের পর বছর টয়লেটেই তার রাত কাটছে।

রংপুর মহানগরীর নিউ জুম্মাপাড়া কলোনির নছিমন বেওয়ার টয়লেটই এখন ঠিকানা। সেখানে আছে ভাঙা একটি চৌকি, চট আর কিছু পানির বোতল। টয়লেটের দুর্গন্ধের সঙ্গে রাতে অসহ্য গরম আর মশার কামড় এই বৃদ্ধার এখন নিত্যসঙ্গী।

কোনো রকমে রাত পার হলেই লাঠিতে ভর করে টয়লেট থেকে বেরিয়ে পড়েন তিনি। কখনো রাস্তার ওপর নতুবা ড্রেনের শ্লোপের ওপর বসে শুয়ে থাকেন। এমন কষ্টের দৃশ্য সন্তানদের চোখে না পড়লেও গ্রামের মানুষ ঠিকই উপলব্ধি করতে পারেন। তাই স্থানীয়দের সাহায্য সহযোগিতায় খাবার জুটে তার মুখে।

জীবনের শেষ প্রান্তে এসে বুকভরা কষ্টগুলো চিৎকার করে বলতে চাইলেও বয়সের ভারে বন্ধ হয়ে গেছে তার আওয়াজ। শুধু ফ্যাল ফ্যাল করে চেয়ে থাকেন।

জানা গেছে, বৃদ্ধা নছিমনের স্বামী মারা যাবার পর থেকে সন্তানদের অনাদরে অন্যের দুয়ারে দুয়ারে ঘুরে ভিক্ষা করতেন। এক সময় বড় ছেলে জয়নাল মিয়ার মায়ের প্রতি মায়া হয়। মায়ের জন্য কলোনির ভেতরে সিটি কর্পোরেশন থেকে তৈরি করা পাবলিক টয়লেটের এক কোণায় থাকার ব্যবস্থা করে দেন। এরপর থেকে ওই টয়লেটেই বৃদ্ধা নছিমনের ঠিকানা।

এ বিষয়ে রংপুর সিটি কর্পোরেশনের সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর মোছা. হাসনা বানু বলেন, ব্যক্তিগতভাবে ওই বৃদ্ধাকে প্রায়ই আমি টাকা ও খাবার দিয়ে সহযোগিতা করি। তার ছেলে সন্তানরা থাকার পরও টয়লেটে বসবাস খুবই দুঃখজনক। সিটি কর্পোরেশন থেকে তার জন্য বয়স্ক ভাতাসহ অন্য সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা করব।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া