ব্রেকিং:
স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের ছবি ব্যবহার করে ফেসবুকে প্রতারণা প্রতিদিন কয়েকবার গরম পানির ভাপ নিয়েছি করোনায় ব্যতিক্রমী উদ্যোগ এমপিওভুক্তির সুখবর পেল ১৬৩৩ স্কুল-কলেজ ২০ হাজারের বেশি আইসোলেশন শয্যা প্রস্তুত রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে মানুষ, দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে বৈশ্বিক ক্রয়াদেশ পূরণে সক্ষম বাংলাদেশ ॥ শেখ হাসিনা লোকসান ঠেকাতে সরাসরি ক্ষেত থেকে সবজি কিনছে সেনাবাহিনী করোনা পরীক্ষায় দেশে চালু হলো প্রথম বেসরকারি ল্যাব যে দোয়ার আমলে স্মরণশক্তি বৃদ্ধি পাবে ইনশাআল্লাহ! আল্লাহ তিন ধরনের লোকের দোয়া ফিরিয়ে দেন না করোনা রোগীদের বাড়ি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার ভেন্টিলেটর-সিসিইউ স্থাপনে জরুরি প্রকল্প বঙ্গবন্ধুর মতো নেতা পৃথিবীতে খুব কম দেখা যায়: ট্রাম্প গবেষণা প্রটোকল জমা না দিয়েই বিষোদগার করছেন জাফরুল্লাহ জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচিতে নিয়োগ করোনা আক্রান্তের শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ ঘরেই পরীক্ষার উপায় মধ্যবিত্তরাও খাদ্যসহায়তার আওতায়: শিল্প প্রতিমন্ত্রী কর্মস্থল ত্যাগকারীদের তালিকা চায় মন্ত্রণালয় নাসিরনগরে শিশু নিহতের ঘটনায় গ্রেফতার ২
  • বৃহস্পতিবার   ২২ অক্টোবর ২০২০ ||

  • কার্তিক ৭ ১৪২৭

  • || ০৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

১৬২

রোজার মর্যাদা, ফজিলত ও বৈশিষ্ট্যসমূহ

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ২৯ এপ্রিল ২০২০  

রমজান মাসের রোজার মর্যাদা, ফজিলত ও বৈশিষ্ট্য অন্য সব ইবাদতের চেয়ে ভিন্ন। কারণ হাদিসে কুদসিতে প্রিয় নবী রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ঘোষণা করেন, আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘মানুষের অন্য সব আমল তার নিজের জন্য, কিন্তু রোজা একান্তই আমার জন্য এবং আমি এর জন্য তাকে পুরস্কৃত করব। রোজা ঢালস্বরূপ। তার নামে বলছি, যার হাতে মুহাম্মাদের জীবন, রোজাদারের মুখের গন্ধ আল্লাহর কাছে মেশকের গন্ধের চেয়েও পবিত্র। একজন রোজাদার দু’টি আনন্দ লাভ করে। সে আনন্দিত হয় যখন সে ইফতার করে এবং রোজার কল্যাণে সে আনন্দিত হয় যখন সে তার প্রভুর সঙ্গে মিলিত হয়।’ (বুখারী)।
রমজান মাসের রোজা বান্দার জন্য আল্লাহর একান্ত মহা অনুগ্রহ। মানুষ এ মাসে আল্লাহর ভালোবাসায় অন্য সময়ের বৈধ কাজ থেকেও বিরত থাকে। অন্য সব রোজার থেকে আল্লাহর ফরজ করা নির্ধারিত রোজার মর্যাদা অনেক বেশি।

কেননা এ মাসের রোজা আল্লাহর কোরআন, প্রিয়নবীর হাদিস ও মুসলিম উম্মাহর সর্বসম্মতিক্রমে কেয়ামত পর্যন্ত পালন করা ফরজ। আগের সব নবী-রাসূলের অনুসারিদের জন্যও রোজা ফরজ ছিল। কোরআনে পাকে আল্লাহ বলেন, ‘হে ঈমানদারগণ! তোমাদের ওপর সিয়াম বা রোজা ফরজ করা হয়েছে; যেভাবে তোমাদের পূর্ববর্তীদের ওপর ফরজ করা হয়েছিল; যাতে তোমরা তাকওয়া (আত্মশুদ্ধি) অর্জনে করতে পার। (সূরা : বাকারা, আয়াত : ১৮৩)।

এ কারণেই আল্লাহ তায়ালা মুসলিম উম্মাহকে ভালোবেসে এবং তাদের উচ্চ মর্যাদা দেয়ার লক্ষ্যে রমজানজুড়ে রোজা পালনকে ফরজ করে দিয়েছেন। আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘রমজান মাস, যে মাসে পবিত্র কোরআন নাজিল হয়েছে। যা মানব জাতির জন্য পথ প্রদর্শক আর তাতে রয়েছে হেদায়েতের নিদর্শনসমূহ এবং যা হক ও বাতিলের পার্থক্যকারী। অতএব, তোমাদের মধ্যে যে কেউ এ মাস পাবে, তাকে অবশ্যই রোজা রাখতে হবে।’ (সূরা : বাকারা : আয়াত : ১৮৫)।

উচ্চ মর্যাদা ও ফজিলতের কারণেই রোজা ইসলামের পাঁচটি ভিত্তিতে স্থান পেয়েছেন। হাদিসে এসেছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘ইসলামের ভিত্তি হচ্ছে পাঁচটি। একথা সাক্ষ্য দেয়া যে, আল্লাহ ছাড়া কোনো মাবুদ নেই, হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আল্লাহর রাসূল; নামাজ প্রতিষ্ঠা করা; রমজানের রোজা রাখা; জাকাত আদায় করা এবং সামর্থ্য থাকলে বায়তুল্লায় হজ করা।’ (বুখারী, মুসলিম, তিরমিজি, নাসাঈ)।

রমজানের রোজার উচ্চ মর্যাদার কথা প্রকাশ পায় প্রিয় নবীর ঘোষণায়। হাদিসে এসেছে, হজরত তালহা ইবনে আবদুল্লাহ রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, ‘এক ব্যক্তি আল্লাহর রাসূলকে জিজ্ঞাসা করেন, হে আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম! আমার ওপর আল্লাহ কি কি রোজা ফরজ করেছেন, তা আমাকে বলে দিন।

প্রিয়নবী (সা.) জবাবে বললেন, ‘রমজান মাসের রোজা।’

লোকটি পুনরায় জিজ্ঞাসা করলো, এ ছাড়া অন্য কিছু কি আমার কর্তব্য আছে? প্রিয়নবী (সা.) বললেন, ‘না, তবে তুমি যদি নফল রোজা রাখ, তাহলে ভিন্ন কথা।’ (বুখারী ও মুসলিম)।

রমজান মাসের এমন অনেক উচ্চ মর্যাদা ও বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা অন্য কোনো মাসে নেই। কোরআন-হাদিসের বিভিন্ন স্থানে রোজা পালনের যেসব উচ্চ মর্যাদা ও বৈশিষ্ট্যের বর্ণনা রয়েছে তার কিছু তুলে ধরা হলো-

> এ মাসের নাম পবিত্র কোরআন মাজিদে উল্লেখ করা হয়েছে। (সূরা : বাকারা : আয়াত ১৮৫)।

> মহান আল্লাহ এ মাসের রোজা ফরজ করেছেন। (সূরা : বাকারা : আয়াত ১৮৫)।

> আবার এ মাসেই পবিত্র কোরআনুল কারিম নাজিল করা হয়েছে। (সূরা : বাকারা : আয়াত ১৮৫)।

> এ মাসের ইবাদত বন্দেগির ব্যাপারে প্রিয় নবী রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সাহাবাদেরকে সুসংবাদ দিতেন। রজব ও শাবন মাস জুড়ে রমজানের ইবাদত-বন্দেগির জন্য নিজেকে তৈরি করতেন, দোয়া পড়তেন এবং সাহাবায়ে কেরামকে দোয়া করতে বলতেন।

> রমজান মাসে রহমত ও বরকত অবতীর্ণ হয়।

> এ মাসের জান্নাতের দরজা খুলে দেয়া হয়, জাহান্নামের দরজা বন্ধ রাখা হয় এবং শয়তানকে বন্দী করে রাখা হয়।

> রমজানের রাত ও দিনে মুসলমানের দোয়া অনবরত আল্লাহর দরবারে কবুল করা হয়।

> কোরআনের ঘোষণায় এ মাসের রয়েছে বরকতময় লাইলাতুল কদর।

> এ মাসের প্রতি রাতে ক্ষমা লাভে ফেরেশতারা মানুষকে আহ্বান করতে থাকে।

> এ পবিত্র মাসেই আল্লাহ তায়ালা মুসলমানদের প্রথম সমর অভিযান বদরে বিজয় দান করেছিলেন।

> রমজান মাসে উমরা আদায় আল্লাহর রাসূলের (সা.) সঙ্গে হজ পালনের সাওয়াব পাওয়া যায়।

সর্বোপরি মুসলিম উম্মাহ কোরআন ও হাদিসের আলোক একমত যে, রমজানের রোজা ফরজ। তা ইসলামের পঞ্চ স্তম্ভের অন্যতম একটি। সুতরাং যে কেউ পবিত্র রমজান মাসের রোজা অস্বীকার করবে সে ইসলামকে ইসলামকে অস্বীকারকারী হিসেবে পরিগণিত হবে।

রমজানের রোজা উচ্চ মর্যাদা ঘোষণায় রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উম্মতের উদ্দেশ্যে শাবান মাসের শেষ দিন ঘোষণা করেন-

হজরত সালমান ফারসি রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, শাবান মাসের শেষ দিন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের উদ্দেশ্যে ভাষণ দানকালে বলেন, ‘হে লোক সকল! তোমাদের কাছে একটি মর্যাদাপূর্ণ এবং বরকতপূর্ণ মাস উপস্থিত। এতে রয়েছে, এমন এক রাত যা হাজার মাসের চেয়েও উত্তম।

এ মাসে আল্লাহ তায়ালা সিয়াম (রোজা) ফরজ করেছেন এবং রাতে দীর্ঘ নামাজ আদায় করাকে তোমাদের জন্য পূণ্যের কাজ হিসেবে দিয়েছেন।

যে ব্যক্তি এ মাসে একটি ফরজ আদায় করলো, সে যেন অন্য মাসের সত্তরটি ফরজ আদায় করলো। যে ব্যক্তি এ মাসে একটি নফল কাজ আদায় করলো, সে যেন অন্য মাসে একটি ফরজ কাজ আদায় করলো।
এ মাস ধৈয্যের মাস, আর ধৈয্যের বিনিময় হচ্ছে জান্নাত। এ মাস হচ্ছে সহানুভূতি প্রদর্শনের মাস।’ (মিশকাত)।

মহান রাব্বুল আলামিন আল্লাহ তায়ালা মুসলিম উম্মাহকে পবিত্র রমজান মাসের রোজা পালনের মাধ্যমে উচ্চ মর্যাদার অধিকারী হওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

 
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ধর্ম বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর