ব্রেকিং:
সিটি নির্বাচন: দুই হাজার মণ পলিথিন বর্জ্য তৈরির শঙ্কা নবীনগরে চলছে কোরআন তেলাওয়াত প্রতিযোগিতা ভাইরাসবাহী সন্দেহে বাংলাদেশীকে ফেরত পাঠালো ভারত একমাত্র ছেলের ছবি বুকে জড়িয়ে রাস্তায় মা মরদেহ আনতে আখাউড়া বর্ডারে হাজার হাজার মানুষ লেবাননে সড়ক দুর্ঘটনায় কসবায় শোকের মাতম প্রতিবন্ধিতা ও বৈষম্যহীন স্বদেশ, কুষ্ঠমুক্ত হোক আমাদের বাংলাদেশ জমে উঠেছে নবীনগর শিক্ষক সমিতির নির্বাচন অটোরিকশা চার্জ দিতে গিয়ে কিশোরের মৃত্যু আখাউড়ায় মাদকসহ ব্যবসায়ী আটক লুকানো গাঁজাসহ মামা-ভাগিনা আটক অসহায় শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ পুকুর দূষণ রোধে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন করোনার চিকিৎসায় এইডসের ওষুধ, সুস্থ হলেন ৪৯ জন! রাতের ঢাকায় মিজানুরের মতো আরো তিন জনকে হত্যা করে তারা নারীদের সুরক্ষা দেবে জাবি শিক্ষার্থীর বানানো ‘অ্যালাই’ গ্রাহককে জিম্মি করে কোটিপতি ইভ্যালি সিভি’র যে ভুলগুলো আপনার জানা জরুরি ইসলামের দৃষ্টিতে মহামারির কারণ ও করণীয় সন্তানরা কোন ধর্মের জানালেন শাহরুখ খান

মঙ্গলবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ১৫ ১৪২৬   ০২ জমাদিউস সানি ১৪৪১

৯৪

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোকে আর অর্থ দেবে না সরকার: অর্থমন্ত্রী

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ২৬ আগস্ট ২০১৯  

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জানিয়েছেন, রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোকে সরকারের পক্ষ থেকে আর কোনো অর্থ দেয়া হবে না। এসব ব্যাংককে এখন থেকে নিজেদেরই আয় করতে হবে এবং সরকারকে ট্যাক্সও দিতে হবে।

রোববার শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে সোনালী, জনতা, অগ্রণী ও রূপালী ব্যাংকের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে অর্থমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

বৈঠকের পর সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী বলেন, বৈঠকে তাদের বলে দিয়েছি, এখন থেকে সরকারি ব্যাংকগুলোতে আর কোনো ধরনের রি-ফাইন্যান্সিং করা হবে না। তাদের নিজেদেরই আয় করতে হবে এবং চলতে হবে।

এই ব্যাংকগুলোকে নিজের পায়ে দাঁড়াতে কর্মপরিকল্পনা তৈরির পরামর্শ দেন মুস্তফা কামাল। তিনি বলেন, এ বিষয়ে তাদের একটি কর্মপরিকল্পনা তৈরি করতে বলেছি। ওই কর্মপরিকল্পনার ওপর আগামী রোববার আবার তাদের নিয়ে বৈঠকে বসব। আগামী বৈঠকে আরো বিস্তারিত আলোচনা হবে।

অর্থ না দিলেও পরামর্শ দেয়াসহ অন্য সহযোগিতা রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলো পাবে বলে তাদের আশ্বস্ত করেছেন অর্থমন্ত্রী।

রাষ্ট্রায়ত্ত চারটি ব্যাংক বাংলাদেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর ২৫ শতাংশ নিয়ন্ত্রণ করে উল্লেখ করে তিনি বলেন, তাদের যে সম্পদ আছে, তার সুষ্ঠু ব্যবহার করে অন্তত ১৫ শতাংশ লাভ করুক, এটা চায় সরকার।

এই ব্যাংকগুলোর শীর্ষ পর্যায়ে নুতন নিয়োগের বিষয়ে মুস্তফা কামাল বলেন, নতুন টপ ম্যানেজমেন্ট সুস্পষ্টভাবে পারদর্শী। তারা সবাই যদি অভিজ্ঞতার আলোকে ও দেশের চাহিদার নিরীখে এবং আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপট বিবেচনায় নিয়ে ব্যাংক পরিচালনা করে, তাহলে অসাধারণ কিছু প্রত্যাশা করা যায়।

ব্যাংকগুলোর মন্দ ঋণ (এনপিএল) কমানোর প্রতিশ্রুতির বিষয়ে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, মন্দ ঋণ এখনো কমাতে পারি নাই। কারণ আমরা এক্সিটপ্ল্যান বাস্তবায়ন করতে পারি নাই। তবে শিগগির এটির সুরাহা হবে বলে আমার বিশ্বাস।

গত ২১ মে হাই কোর্টে ঋণ খেলাপিদের বিশেষ সুবিধার ওপর স্থিতাবস্থা দেয়। যদিও পরে আবার নতুন ঋণ না নেয়ার শর্তে স্থিতাবস্থা তুলে নেয়।

বিশ্বের সাম্প্রতিক প্রবণতা দেখে মন্দার শঙ্কা জানিয়ে তাতে বাংলাদেশের রফতানি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কাও প্রকাশ করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, মন্দা তৈরি হলে বিলাসী পণ্যের বাজার ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। কিন্তু আমরা বেশিরভাগই মৌলিক পণ্য রফতানি করে থাকি। তাই আমাদের রফতানি কমার সম্ভাবনা নেই। একইভাবে আমাদের পুঁজিবাজারও ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা নেই। কারণ আমাদের পুঁজিবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ তেমন নেই।

বাংলাদেশে কার্যরত অর্ধ শতাধিক ব্যাংকের মধ্যে রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংক রয়েছেন পাঁচটি; এর মধ্যে সোনালী, জনতা, অগ্রণী ও রূপালী বাদে রয়েছে বেসিক ব্যাংক।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর