ব্রেকিং:
শীতার্তদের পাশে সংবাদপত্র কর্মীরা স্বাস্থ্য সেবা হচ্ছে মানবতার প্রধান উৎস মাদকমুক্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়া গড়তে ‘আলোর সিঁড়ি’র ব্যতিক্রমী উদ্যোগ কাদিয়ানিদের অমুসলিম ঘোষনার দাবিতে বিক্ষোভ মাদকাসক্ত স্বামীকে পুলিশে দিলেন স্ত্রী ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পারাবত এক্সপ্রেস ট্রেন আগুন শেখ হাসিনা সড়কে ব্রিজের নির্মাণকাজ পরিদর্শন বিশ্ববিখ্যাত ইনটেলের চেয়ারম্যান হলেন বাংলাদেশি ওমর ইশরাক পবিত্র জুমাবারের সুন্নতগুলো জেনে নিন ছড়িয়ে যাচ্ছে করোনাভাইরাস, সৌদিতে ভারতীয় আক্রান্ত পাকিস্তানকে হারাতে আজ মাঠে নামবে টাইগাররা রোহিঙ্গা গণহত্যা: মিয়ানমারের বিরুদ্ধে চার আদেশ ঐতিহাসিক গণঅভ্যুত্থান দিবস আজ মাদরাসায় এক কেজি মুড়ির বিল ১৪ হাজার ৮৮০ টাকা! সেনাবাহিনীর শীতকালীন মহড়া প্রত্যক্ষ করেন প্রধানমন্ত্রী আজিজুল হকের মায়ের মৃত্যুতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের শোক সরকারি নির্মাণাধীন বাসগৃহ পরিদর্শন করেন ইউএনও মৎস্য ব্যবসায়ীদের বাজার বর্জন বাজার ব্যবস্থাপনা ও সংস্কার কাজ পরিদর্শন আকস্মিক কলেজ পরিদর্শনে জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী

শনিবার   ২৫ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ১১ ১৪২৬   ২৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

১০৪

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ইবলিশ চত্বরের অজানা রহস্য

প্রকাশিত: ১২ জানুয়ারি ২০২০  

পৃথিবীতে কত স্থানেরই তো কত আজব নাম শুনেছেন। কিন্তু ‘ইবলিশ চত্বর’ নামে কোনো স্থানের নাম শুনেছেন কি কখনো? ভাবছেন, এরকম নাম হতে পারে নাকি কোনো স্থানের? শুনতে অদ্ভূত মনে হলেও এ চত্বরটির দেখা মিলবে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি)। বিশ্ববিদ্যালয়ের সবার কাছেই আড্ডার প্রিয় জায়গা। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজলা গেট দিয়ে ভেতরে ঢুকেই সোজা উত্তরে চোখে পড়বে একটি আম বাগান। ওপাশেই বিশাল মাঠ। মাঠের দক্ষিণে শানবাঁধানো পুকুর। পশ্চিমে আমগাছের সারির ওপাশে শিক্ষকদের আবাসিক ভবন। উত্তরে মেহগনি গাছের সারির পাশেই ছাত্রীদের মুন্নজান হল। মাঠের উত্তরে শেখ রাসেল মডেল স্কুল। আর পূর্ব দিকে মমতাজউদ্দীন একাডেমিক ভবন। 

সুবিশাল এই মাঠ আর পুকুর পাড়কেই বলা হয় ইবলিশ চত্বর। পুকুর পাড় ঘেষে সুউচ্চ গাছগুলো মাথা উচিয়ে দাঁড়িয়ে আছে বছরের পর বছর। চত্বরটির আশপাশে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে দুচারটি চায়ের দোকান। বিকেল হলেই বেশকিছু ফুড কার্ট আর ভ্রাম্যমাণ দোকানের দেখা মিলে। শীতে বসে পিঠার দোকান। এসব দোকান যেনো আড্ডার রসদ জোগায়।

 

 

জায়গাটির নাম ইবলিশ চত্বর কেনো তা নিয়ে নানা মত রয়েছে। জানা যায়, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে এই চত্বরে ‘ইবলিশ’ নামে একটি নাটকের প্রদর্শনী হয়েছিলো। আর সেখান থেকে এর নাম হয় ইবলিশ চত্বর। পরবর্তী সময়ে ১৯৯৮ সালে ফোকলোর বিভাগের কিছু শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে আনুষ্ঠানিকভাবে এ চত্বরের নাম রাখা হয় ফোকলোর চত্বর। ২০০৩ সালে ফোকলোর বিভাগের শিক্ষার্থীরা এর সাইনবোর্ডও টাঙিয়ে দেয়। কিন্তু খাতা-কলমে ফোকলোর চত্বর হলেও সবাই ইবলিশ চত্বর হিসেবেই চেনে এ চত্বরটিকে।

সকাল থেকে রাত ৮-৯টা পর্যন্ত এখানে আড্ডা চলে বন্ধু ও সহপাঠীদের মধ্যে। এছাড়াও প্রেমিক যুগলের সময় কাটানোর অন্যতম স্থান এই ইবলিশ চত্ত্বর। শুধু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরাই নন, বহিরাগত ছেলেমেয়েরাও এখানে দল বেঁধে আড্ডা জমান। তাছাড়া পহেলা বৈশাখ আর নানা গুরুত্বপূর্ণ দিবসে অনুষ্ঠিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। 

কথা হয় আড্ডরত কয়েকজন শিক্ষার্থীদের সঙ্গে। তারা জানান, ক্যাম্পাসে ভর্তি হওয়ার পর থেকেই জায়গাটির নাম ইবলিশ চত্বর শুনে এসেছেন। এখন আর নামটি অদ্ভুত মনে হয় না। বরং আড্ডার জন্য পছন্দের জায়গা এটি। বিকেল বেলা এখানে বসে আড্ডা দিলে অনেক ভালো লাগা কাজ করে। বিশাল খোলা মাঠ আর পুকুর পাড়, সব মিলিয়ে আড্ডার জন্য আদর্শ স্থান এ চত্বর।

 

 

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণীবিদ্যা বিভাগের শিক্ষার্থী মাশুক পারভেজ জানান, ইবলিশ চত্বরে বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিতে অনেক ভালো লাগে। বিকেল বেলার বাতাস ক্লান্ত শরীরে শান্তির পরশ বুলিয়ে দেয়। ছোট ছোট গ্রুপে সব বন্ধুরা আড্ডা দেয় যা দেখতেও ভালো লাগে। বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে যখন চলে যাবো তখন এই ইবলিশ চত্বরের আড্ডা খুব মিস করবো।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ চুকিয়ে যারা চলে গেছেন তারাও মিস করেন ইবলিশ চত্বরের আড্ডা। এমনই একজন ফারহিন শিমু বলেন, ইবলিশ চত্বর নামটা শুনলে মনের ভেতর কেমন নাড়া দেয়। ইবলিশ চত্বরের পাশেই আছে শেখ রাসেল স্কুল। সেই স্কুলে ছোট বাচ্চাদের দৌড়াদৌড়ি, মা বাবার  হাত ধরে স্কুলে আসা যে কাউকেই তার ছোট বেলায় ফিরিয়ে নিয়ে যাবে। ইবলিশ চত্বরের আড্ডা ভীষণ মিস করি। বিভিন্ন জায়গায় ঝালমুড়ি আর লেবুচুড় খেতে গেলেই ইবলিশ চত্বরের ঝালমুড়ি আর লেবুচুড়ের কথা মনে পড়ে যায়। বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দেয়ার পুরনো স্মৃতি ভেসে উঠে।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর