ব্রেকিং:
বিমানের যাত্রী সেবার মান বাড়ানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর ‘গাঙচিল’ এর উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী বিএনপি ছেড়ে জাতীয় পার্টিতে যোগ দিলেন ২ নেতা! গ্রেনেড হামলার দায় খালেদা জিয়া এড়াতে পারেন না: তথ্যমন্ত্রী গর্ভপাতকৃত সন্তান ব্যাগে ভরে থানায় প্রেমিকা, প্রেমিক উধাও দুর্নীতি নির্মূলে নিরলসভাবে কাজ করছে কমিশন ‘প্রত্যাবাসনের বিপক্ষে প্রচারণা চালালে ব্যবস্থা’ শিগগিরই ভূমি সেবায় আসছে ই-পেমেন্ট গেটওয়ে কাশ্মীর ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়: বাংলাদেশ গ্রেনেড হামলায় পলাতকদের রায় কার্যকর সম্ভব: আইনমন্ত্রী মাধ্যমিকে কর্মমুখী শিক্ষা বাধ্যতামূলক হচ্ছে শিশু আইনের অসঙ্গতি সংশোধন চান হাইকোর্ট রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে প্রস্তুত ঘুমধুম পয়েন্ট আদালতে বঙ্গবন্ধুর ছবি টাঙানোর নির্দেশনা চেয়ে রিট বিএনপির পক্ষ থেকে ছিল ২১ আগস্টের হামলা: প্রধানমন্ত্রী টিউশনির টাকায় গুজবের বিরুদ্ধে ৩১ দিন হাঁটলেন সাইফুল কন্ডিশনিং ক্যাম্পেই যাত্রা শুরু নতুন দুই কোচের প্রথম সমকামী ক্রিকেটার হিসেবে মা হচ্ছেন স্যাটারওয়েট তারেকের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি কাদেরের স্মার্ট কার্ড অনলাইনে সংশোধন করবেন যেভাবে

শুক্রবার   ২৩ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৭ ১৪২৬   ২১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

৭২২

মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ বিক্রিতে শুদ্ধি অভিযান

প্রকাশিত: ১৯ মে ২০১৯  

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ওষুধ প্রশাসন এবং বাংলাদেশ কেমিস্ট অ্যান্ড ড্রাগিস্ট সমিতির যৌথ উদ্যোগে শহরের বিভিন্ন মেডিকেল হল এবং ফার্মেসিতে শুদ্ধি অভিযান চালানো হয়েছে। শহরের কুমারশীল মোড়, ল্যাবএইড মোড়, হাসপাতাল রোড, পুরাতন জেলরোড, ছাতিপট্টি এলাকায় অভিযান চালানো হয়।
এসময় শহরের হাসপাতাল রোডের, মুশকিল আহসান ফার্মেসি, খেয়াম ফার্মেসিসহ ২০টি ওষুধের দোকান থেকে অন্তত ২৫ হাজার টাকার অনিবন্ধিত ও মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ অপসারণ করা হয়।
অভিযানে নেতৃত্ব দেন ওষুধ প্রশাসন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা তত্ত্বাবধায়ক বাদল শিকদার, বাংলাদেশ কেমিষ্ট অ্যান্ড ড্রাগিষ্ট সমিতির সভাপতি জহিরুল হক, সাধারণ সম্পাদক আবু কাউছার। 
বাদল শিকদার জানান, আমরা প্রথম দিন সব ফার্মেসি মালিকদের সর্তক করেছি। শীঘ্রই অনিবন্ধিত ও মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ রাখার বিষয়ে বড় ধরনের অভিযান পরিচলনা হবে। এতে জেল-জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে। তাই আগাম সর্তকতা হিসেবে আজকের শুদ্ধি অভিযান চালানো হয়েছে। 
এদিকে ওষুধ প্রশাসন এবং বাংলাদেশ কেমিষ্ট অ্যান্ড ড্রাগিষ্ট সমিতির এ অভিযানকে স্বাগত জানিয়ে ওষুধ নিতে আসা রোগী জানান, এ অভিযানকে আমরা স্বগত জানাচ্ছি। ওষুধ বিভাগে অরাজকতা বিরাজ করছে। বলা হয় এক ধরনের ওষুধ দেয়ার জন্যে। দেয়া হচ্ছে আরেক ধরনের ওষুধ। এছাড়া মেয়াদ আছে কিনা অনেক সাধারণ রোগী সেটা পরীক্ষা করার সুযোগ পান না অজ্ঞতার কারণে। আর এ সুযোগে অসাধু দোকান-মালিকরা মেয়াদোত্তীর্ণ ও অনিবন্ধিত ওষুধ বিক্রি করেন।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর