ব্রেকিং:
পৌর আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত কমিটির পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতেই নিখোঁজ হন যুবদল নেতা ইউনুছ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ইতিহাস ও ঐতিহ্য `বিশ্বময় আলোচিত হচ্ছে বাংলাদেশের উন্নয়নের কথা` শিক্ষিত দুর্নীতিবাজরা দেশের অগ্রযাত্রার পথে বড় বাধা অর্ধকোটি টাকার ভারতীয় শাড়িসহ আটক ২ কসবায় ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাদকসহ র‌্যাবের হাতে দুইজন ধরা রহস্যজনক কারণে এখনো অধরা ওরসে তাণ্ডবের আসামিরা! নবীনগরে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ প্রদান মুজিববর্ষ উপলক্ষে বাইসাইকেল ও শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ খোলা আকাশের নিচে নারীদের ভাগ্য বদল খাগড়াছড়িতে মিলল নতুন গুহার সন্ধান চীনের সঙ্গে বাণিজ্য সচল রাখতে চায় এফবিসিসিআই এক উপায়েই মিলবে ডায়াবেটিস থেকে চিরস্থায়ী মুক্তি! ফেসবুকে ‘কথা বললেই’ পাবেন ৪০০ টাকা বিল দাখিলের ৩ দিনের মধ্যে পেনশন ইসলামে মাতৃভাষার গুরুত্ব পাকিস্তানের নাগরিক হচ্ছেন স্যামি! দ্রুতই বিয়েটা সেরে ফেলতে চাই: শাকিব
  • সোমবার   ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ||

  • ফাল্গুন ১২ ১৪২৬

  • || ২৯ জমাদিউস সানি ১৪৪১

২৬১

মালিকানাধিন জায়গা থেকে স্থাপনা গুড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ২০ জানুয়ারি ২০২০  

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে মুখলেছুর রহমান চৌধুরীর মালিকাধীন জায়গা থেকে কোন প্রকার নোটিশ ছাড়াই ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে স্থাপনা গুড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ তুলেছেন।

রবিবার দুপুরে নাসিরনগর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে মুখলেছুর রহমান চৌধুরী উপজেলা সহকারী করিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিনা আক্তারের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ তুলেন। সংবাদ সম্মেলন লিখিত বক্তব্যে মুখলেছুর রহমান চৌধুরী বলেন,তিনি সরাইল-নাসিরনগর-লাখাই আঞ্চলিক সড়কের নাসিরনগর উপজেলা সদরের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা। তিনি ক্রয়সূত্রে ৬২৫৬ দাগে তিন শতক ভূমির মালিক। ২৫ বছর ধরে তাঁর পাঁচটি পাকা দোকান ঘর রয়েছে। তিনি এগুলো ভাড়া দিয়ে জীবন নির্বাহ করে আসছেন। দোকান ঘরের সামনে ৫৫ ফুট দৈর্ঘ্য আর ৬ ফুট প্রস্থের একটি বারান্দা বিদ্যামান ছিল।

চলতি মাসের শুরুর দিকে তিনি ওই বারান্দার সংস্কার কাজ সম্পন্ন করেন। কিন্তু গত ১৩ জানুয়ারি উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিনা আক্তার কোনো প্রকার নোটিশ ছাড়াই ভোল্ডড্রেজার দিয়ে তাঁর মালিকানাধিন পাকা ভবনের বারান্দাটি গুড়িয়ে দিয়েছেন। তিনি দাবি করেন অবৈধভাবে তাঁর বৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে ব্যাপক ক্ষতি সাধন করেছে। তাছাড়াও বারান্দাসহ পাকাভবনের সামনের উত্তর দিকের রাস্তাটিও তাঁর নিজ ভূমির ওপর বিদ্যমান। ওই রাস্তার মালিকানা দাবি করে তিনি আদালতে দুটি মামলাও দায়ের করেছেন। এগুলো আদালতে বিচারাধিন রয়েছে।

লিখিত বক্তব্যের সময় মুখলেছুর রহমান চৌধুরী কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। তিনি উল্লেখ করেন কোনো নোটিশ ছাড়াই স্থাপনা গুড়িয়ে দেয়ার সময় তিনি ভূমির বৈধতার কাগজপত্র দেখানোর জন্য বার বার চেষ্টা করেছেন। এসময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাঁকে গ্রেফতার করে থানায় সোপর্দের ভয় দেখিয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত মুখলেছুর রহমান চৌধুরীর ছেলে জাকির হোসেন চৌধুরী অভিযোগ করে বলেন, যারা ইউনিয়ন ভূমি অফিসে নিয়মিত টাকা দিতে পারে তাঁদের স্থাপনা অবৈধ হলেও উচ্ছেদ হয় না। আমাদের বৈধ জায়গা হলেও টাকা দেই না বলে আমাদের বৈধ স্থ্াপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে।’

সহকারী কমিশনার (ভূমি) তাহমিনা আক্তার বলেন,সরকারি জায়গায় দখল করে বারান্দা নির্মাণ করেছে। তাই সরকারি জায়গা থেকে ভবনের নতুন বর্ধিত অংশ উচ্ছেদ করা হয়েছে। উচ্ছেদকৃত ভূমিটি এক নম্বর খাস খতিয়ানের ৬২৫৪ দাগের অন্তর্ভুক্ত।এ জমির মালিক সরকার।’

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর