ব্রেকিং:
‘আল্লাহর দল’র টার্গেটে ছিল পিলখানার ঘটনায় চাকরিচ্যুতরা আমি চাই সবার সঙ্গে মিশতে: প্রধানমন্ত্রী পানিতে তলিয়ে যেতে পারে জাকার্তা, বাঁচানোর কোনো উপায় নেই! সাত সপ্তাহ পর মন্ত্রিসভার বৈঠক রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন যেকোনো সময়: পররাষ্ট্র সচিব এডিস মশার বিরুদ্ধে ঢাকা উত্তরে ‘চিরুনি অভিযান’ সুস্থ হয়ে ফিরেছেন ৮৬ শতাংশ ডেঙ্গু রোগী ১০৯ নম্বরে ফোন পেয়ে বাল্যবিয়ে বন্ধ করেছে উপজেলা প্রশাসন স্বাধীনতা বিরোধীরা এখনো ষড়যন্ত্র করছে: আইনমন্ত্রী কর্মসৃজন প্রকল্পে দুর্নীতি, ২১ জেলায় দুদকের অভিযান ৯৯৯ এ ফোন করে উদ্ধার হলেন ২০০ লঞ্চ যাত্রী পাকিস্তানকে ছাড়িয়ে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি পশু কোরবানি বাংলাদেশে বন্যাদুর্গতদের পুনর্বাসনে রয়েছে ১২০ কোটি টাকা বরাদ্দ ঘুষদাতার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী হুজুর সেজে ধর্ষককে ধরলেন পুলিশ কর্মকর্তা বিয়ের অনুষ্ঠানে বোমা হামলা, নিহত বেড়ে ৬৩ ইন্দোনেশিয়া ও ফিলিপাইনের রমণীদের পছন্দ বাংলাদেশি ছেলে রোহিঙ্গা নির্যাতন তদন্তে ঢাকায় মিয়ানমারের তদন্ত দল ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ টাইগারদের হেড কোচ হলেন রাসেল ডমিঙ্গো

সোমবার   ১৯ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৪ ১৪২৬   ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

৪৮০

মাকে সরিয়ে বউকে আনছেন তারেক, বিরোধে বিএনপি নেতারা

প্রকাশিত: ১৪ জুলাই ২০১৯  

খালেদা জিয়ার কারাবাস দীর্ঘায়িত হচ্ছে তারেক রহমানের গাফিলতিতে- এমন ধারণা এতদিন গুঞ্জন আকারে ঘুরলেও তা বাস্তবে রূপ নিতে চলেছে। জানা গেছে দলীয় প্রধান হিসেবে বেগম খালেদা জিয়ার বিকল্প হিসেবে তার পুত্রবধূ ডা. জোবায়দা রহমানকে ভাবা হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে দলের মধ্যে আলোচনা হলেও প্রকাশ্যে কেউ মুখ খুলছেন না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলটির এক আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক বলেন, বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে দলের কাউন্সিল হোক বা তার মুক্তির পর কাউন্সিল হোক, দলীয় প্রধান হিসেবে দলের মধ্য থেকে তার বিকল্প ভাবা হচ্ছে। দলকে শক্তিশালী করতেই ড. জোবায়দা রহমানকে দলীয় প্রধানের দায়িত্বে আনতে চাইছেন তারেক রহমান।

তিনি আরও বলেন বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক যে অবস্থা তাতে তিনি মুক্তি পেয়ে দলের হাল কতটুকু ধরতে পারবেন, তা নিয়ে নেতাদের মধ্যে অনিশ্চয়তা রয়েছে। সেক্ষেত্রে স্বাভাবিকভাবে ধরে নেয়া যেতে পারে যে, খালেদা জিয়া দলীয় প্রধান না হলে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান দলের প্রধান হবেন। তবে যেহেতু তারেক রহমান দেশে ফিরতে পারছেন না তাই জোবায়দা রহমানকেই যোগ্য বিকল্প বলে ভাবা হচ্ছে।

বিষয়টিতে ক্ষোভ প্রকাশ করে দলের এক সাংগঠনিক সম্পাদক বলেন, এরকম সিদ্ধান্ত অযৌক্তিক। রাজনীতিতে অনভিজ্ঞ একজনকে দলের প্রধান করার অর্থ হচ্ছে দলের ভীত নড়বড়ে হয়ে যাওয়া। যেখানে দলকে বাঁচিয়ে রাখা জরুরি সেখানে তারেক রহমান আছেন বিএনপির ক্ষমতা জিয়ার পরিবারের মধ্যে ধরে রাখতে। যদি বেগম জিয়ার বিকল্প কাউকে খুঁজতে হয় তবে তাকে অবশ্যই রাজনীতি সচেতন ব্যক্তি হতে হবে। আমি মনে করি জোবায়দা রহমান সেখানে যোগ্য নয়।

তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বেগম খালেদা জিয়া যতদিন বেঁচে থাকবেন ততদিন পর্যন্ত তিনিই দলের প্রধান হিসেবে থাকবেন- এটা দলের সকল স্তরের নেতাদের প্রত্যাশা এবং একমাত্র চাওয়া। সংগঠনে তার শূন্যতা অনুভূত হলে ভারপ্রাপ্ত প্রধান হিসেবে তারেক রহমান নেতৃত্ব দিতেই পারেন। কিন্তু মায়ের স্থলে বউকে আনার চিন্তা সমীচীন নয়।

এদিকে তারেক রহমানের এমন সিদ্ধান্তের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন দলের অনেকেই। বিরোধী অবস্থান থেকে মতামত দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. সুকোমল বড়ুয়া। তিনি বলেন, আমি মনে করি, কাউন্সিলের আগে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি প্রাধান্য দেয়া উচিত। তার মুক্তির আগে কাউন্সিল করা উচিত হবে না বলে আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি। আর জোবায়দা রহমানকে ভাবাটাও অযৌক্তিক। বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির পর তারপর দলীয় নেতৃত্ব পরিবর্তনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া যাবে কেননা তার যে দীর্ঘ রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা সেটা কাজে লাগানো উচিত।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর