ব্রেকিং:
দুই উপকরণে মিনিটেই তৈরি করুন জীবাণুনাশক স্প্রে! দেশে করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে ১৫ জন সুস্থ, নতুন শনাক্ত নেই বিমানের সব রুট বন্ধ সচেতন থাকলে করোনা ইউরোপের মতো সংক্রমণ হবে না এনজিও’র উদ্যোগে অসহায় পরিবারের মাঝে খাবার সামগ্রী বিতরণ বিজয়নগরে ৩ ব্যবসায়ীকে অর্থদন্ড জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা দোকানের সামনে ভাইরাস সংক্রমন ঠেকাতে লাল বৃত্ত স্থাপন নবীনগর পৌরসভার জীবানুনাশক স্প্রে ছিটানো শুরু আখাউড়ায় মাস্ক ও গ্লাভস বিতরণ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ওষুধের দাম বেশি নেয়ায় ফার্মেসিকে জরিমানা অবৈধ-মেয়াদোত্তীর্ণ স্যানিটাইজার বিক্রির দায়ে জরিমানা সবার অজান্তে লাশ হলেন গৃহবধূ করোনা থেকে মুক্তির জন্য ২৫ হাজার কোটি টাকা চাওয়া যুবক আটক ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় করোনা প্রতিরোধে ‘কুইক রেসপন্স টিম’ করোনায় একদিনেই আক্রান্ত এক লাখ, হু হু করে বাড়ছেই করোনা থেকে রক্ষা পেতে মদ পান, ৩০০ ইরানির মৃত্যু ৭২ ঘণ্টার মধ্যেই করোনাভাইরাস প্রতিরোধের নয়া উপায় জানালেন চিকিৎসক! অবৈধ-মেয়াদোত্তীর্ণ স্যানিটাইজার বিক্রির দায়ে জরিমানা ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ত্রাণ সামগ্রী বিতর
  • শনিবার   ২৮ মার্চ ২০২০ ||

  • চৈত্র ১৪ ১৪২৬

  • || ০৩ শা'বান ১৪৪১

১৯০

ভিআইপিদের জন্য পাপিয়ার টোপ ছিল ১২ রুশ তরুণী

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

ভিআইপিদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নিতে ১২ রাশিয়ান তরুণীকে ব্যবহার করতেন পাপিয়া। রিমান্ডের প্রথম দিনই এ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেন তিনি।

পাপিয়ার উদ্ধৃতি দিয়ে তদন্ত কর্মকর্তারা জানান, বিশেষ ক্যামেরায় ধারণ হতো ভিআইপিদের অনৈতিক কর্মকাণ্ড। পরে ওই ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে তাদের কাছ থেকে আদায় করা হতো মোটা অঙ্কের অর্থ। এসব কাজে পাপিয়াকে সহায়তা করতেন তার স্বামী সুমন চৌধুরী।

তদন্ত কর্মকর্তারা আরো জানান, পাপিয়া ও তার স্বামী সুমন চৌধুরী ঢাকা ও নরসিংদীতে অবৈধ কাজের নেটওয়ার্ক গড়ে তোলেন। তাদের ওইসব অপকর্মের পরিধি থাইল্যান্ড পর্যন্ত বিস্তৃত। আর গুলশানের একটি অভিজাত হোটেলে হাইপ্রোফাইল ব্যক্তিদের মনোরঞ্জনে বিদেশিদের পাশাপাশি দেশি তরুণীদেরও ব্যবহার করতেন পাপিয়া। গোপন ক্যামেরায় ধারণ করা ভিডিও ক্লিপসের ভয় দেখিয়ে পরে তাদের কাছে মোটা অঙ্কের অর্থ আদায় করা হতো। সম্মান হারানোর ভয়ে ওইসব ব্যক্তি পাপিয়া ও সুমনের কথার বাইরে যেতে পারতেন না।

পুলিশ ও র‌্যাবের দুই কর্মকর্তা বলেন, পাপিয়া ও সুমনের মোবাইল ফোনে অনেক প্রভাবশালী ব্যক্তির মোবাইল নাম্বার সেভ করা। ওই ব্যক্তিদের সঙ্গেও তাদের নিয়মিত যোগাযোগ ছিল। গ্রেফতারের দিন পাপিয়া র‌্যাব কর্মকর্তাদের হুমকি-ধমকিও দিয়েছেন। এমনকি তাকে ধরলে পরিণাম ভালো হবে না বলেও হুঁশিয়ারি দেন। ওই সময় মোবাইল ফোনে কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেন পাপিয়া। পরে পাপিয়াসহ চারজনের কাছ থেকে মোবাইল ফোন নিয়ে নেয়া হয়।

মঙ্গলবার বিমানবন্দর থানায় পাপিয়া-সুমন দম্পতিকে কয়েক দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এ সময় তারা ঘনিষ্ঠ অনেক ভিআইপির নামও প্রকাশ করেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক তদন্ত কর্মকর্তা জানিয়েছেন, পাপিয়া আসলেই হাইপ্রোফাইল। নামীদামী এমন কোনো লোক নেই যার সঙ্গে তার পরিচয় নেই। জিজ্ঞাসাবাদে তাদের দেয়া তথ্য পেয়ে আমরা বিব্রত। পুলিশের উত্তরা ডিভিশনের কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন। প্রশ্ন করলে কিছুক্ষণ চুপ থাকেন পাপিয়া। অবশ্য কিছুক্ষণ পরই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে দেন। 

প্রতারণার কাজে মূলত তরুণীদের ব্যবহার করতেন পাপিয়া। মাসখানেক আগে রাশিয়ার ১২ তরুণীকে ঢাকায় নিয়ে আসেন। তাদের আনতে কয়েকজন প্রভাবশালী ব্যক্তি সহায়তা করেছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। পাপিয়ার অপরাধ জগতের সঙ্গে আর কারা সম্পৃক্ত তা খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
সারাবাংলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর