ব্রেকিং:
প্রতিদিন কয়েকবার গরম পানির ভাপ নিয়েছি করোনায় ব্যতিক্রমী উদ্যোগ এমপিওভুক্তির সুখবর পেল ১৬৩৩ স্কুল-কলেজ ২০ হাজারের বেশি আইসোলেশন শয্যা প্রস্তুত রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে মানুষ, দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে বৈশ্বিক ক্রয়াদেশ পূরণে সক্ষম বাংলাদেশ ॥ শেখ হাসিনা লোকসান ঠেকাতে সরাসরি ক্ষেত থেকে সবজি কিনছে সেনাবাহিনী করোনা পরীক্ষায় দেশে চালু হলো প্রথম বেসরকারি ল্যাব যে দোয়ার আমলে স্মরণশক্তি বৃদ্ধি পাবে ইনশাআল্লাহ! আল্লাহ তিন ধরনের লোকের দোয়া ফিরিয়ে দেন না করোনা রোগীদের বাড়ি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার ভেন্টিলেটর-সিসিইউ স্থাপনে জরুরি প্রকল্প বঙ্গবন্ধুর মতো নেতা পৃথিবীতে খুব কম দেখা যায়: ট্রাম্প গবেষণা প্রটোকল জমা না দিয়েই বিষোদগার করছেন জাফরুল্লাহ জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচিতে নিয়োগ করোনা আক্রান্তের শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ ঘরেই পরীক্ষার উপায় মধ্যবিত্তরাও খাদ্যসহায়তার আওতায়: শিল্প প্রতিমন্ত্রী কর্মস্থল ত্যাগকারীদের তালিকা চায় মন্ত্রণালয় নাসিরনগরে শিশু নিহতের ঘটনায় গ্রেফতার ২ দেশে ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত, আরো ৮ মৃত্যু
  • শনিবার   ১১ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৭ ১৪২৭

  • || ১৯ জ্বিলকদ ১৪৪১

২৩৩

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় লক্ষাধিক কোরবানির পশু প্রস্তুত

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ১১ আগস্ট ২০১৯  

মুসলমানদের পবিত্র ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রস্তুত করা হয়েছে ১ লক্ষ ৫ হাজার ৯৬০টি কোরবানির পশু। ফলে এ বছর চাহিদা মেটাতে পশু আমদানির প্রয়োজন নেই বলে মনে করছে জেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগ।জানা গেছে, জেলার বিভিন্ন উপজেলার কোরবানির পশুর চাহিদা মেটাতে আগে থেকেই প্রস্তুতি নেওয়া হয়। সে অনুযায়ী অন্তত সাড়ে ১৩ হাজার খামারে এক লাখ ৫ হাজার ৯৬০টি গরু-মহিষ পালন করেছেন খামারিরা। সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত উদ্যোগে এসব খামারে পালন করা হচ্ছে বিভিন্ন জাতের গরু, মহিষ ও ছাগল। তবে গত বছর শেষ সময়ে ভারতীয় গরু প্রবেশ করায় অনেক খামারি লোকসানের মুখে পড়েছিলেন। তাই এ বছর সেই লোকসান কাটাতে জেলার বিভিন্ন খামারে ব্যস্ত সময় পার করছেন খামারিরা। এ দিকে, জেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগ বাজার মনিটরিং করছে। এজন্য তাদের ৬০টি মেডিকেল টিম বিভিন্ন কোরবানির পশুর হাটে কাজ করছে।

এবার জেলায় মোট ১০১টি স্থায়ী ও অস্থায়ী হাট রয়েছে। যার মধ্যে সদর উপজেলায় ১২টি, আশুগঞ্জ উপজেলায় ৮টি, নাসিরনগর উপজেলায় ৭টি, সরাইল উপজেলায় ৬টি, নবীনগর উপজেলায় ১৩টি, আখাউড়া উপজেলায় ৫টি, কসবা উপজেলায় ১৫টি, বাঞ্ছারামপুর উপজেলায় ২৫টি, বিজয়নগর উপজেলায় ১০টি স্থায়ী-অস্থায়ী হাট রয়েছে। এছাড়াও প্রতিটি উপজেলায় আরও কিছু হাট রয়েছে।

সব মিলিয়ে জেলায় প্রায় ২ শতাধিক হাট রয়েছে। সবগুলো হাটে বিভিন্ন সময়ে চলছে বেচাকেনা। পাশাপাশি জেলার নয়টি উপজেলায় কোরবানির পশুর চাহিদা রয়েছে প্রায় ১ লক্ষ। চাহিদার তুলনায় বেশি পশু মজুদ থাকায় কোনো সংকট তৈরি হবে না। এদিকে, জেলার নয় উপজেলায় প্রায় ২ শতাধিক ছোটবড় কোরবানির পশুর হাট রয়েছে। প্রতিটি বাজারেই কোরবানির পশু গরু, ছাগল ও মহিষ বেচাকেনা করতে দেখা গেছে। যেখানে অধিকাংশই জেলার বিভিন্ন খামারিদের পালন করা পশু তোলা হয়েছে।
আশুগঞ্জ উপজেলার খামারী মো. নজরুল ইসলাম বলেন, ‘জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর নয় এমন ঔষধ, খড় ও ভুষিসহ দেশীয় পদ্ধিতে গরু মোটাতাজা করা হয়েছে। ফলে গরু পালনে ব্যয়ও হয়েছে বেশি। তাই সরকারের কাছে আমাদের দাবি, বাজারে যেন ভারতীয় পশু প্রবেশ করতে না দেওয়া হয়।’

জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. তাপস কান্তি দত্ত বলেন, ‘কোরবানির পশুর চাহিদা মেটাতে প্রায় ৫ বছর আগে থেকেই জেলার ৯ উপজেলায় কাজ করছে প্রাণিসম্পদ বিভাগ। এবার জেলার কোরবানির পশুর কোনও সংকট তৈরি হওয়ার সম্ভাবনা নেই। আমরা জেলার প্রতিটি হাটে মোবাইল মেডিকেল টিম রেখেছি। তারা সবসময় মাঠে সক্রিয় রয়েছে।’

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
নগর জুড়ে বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর