ব্রেকিং:
প্রতিদিন কয়েকবার গরম পানির ভাপ নিয়েছি করোনায় ব্যতিক্রমী উদ্যোগ এমপিওভুক্তির সুখবর পেল ১৬৩৩ স্কুল-কলেজ ২০ হাজারের বেশি আইসোলেশন শয্যা প্রস্তুত রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে মানুষ, দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে বৈশ্বিক ক্রয়াদেশ পূরণে সক্ষম বাংলাদেশ ॥ শেখ হাসিনা লোকসান ঠেকাতে সরাসরি ক্ষেত থেকে সবজি কিনছে সেনাবাহিনী করোনা পরীক্ষায় দেশে চালু হলো প্রথম বেসরকারি ল্যাব যে দোয়ার আমলে স্মরণশক্তি বৃদ্ধি পাবে ইনশাআল্লাহ! আল্লাহ তিন ধরনের লোকের দোয়া ফিরিয়ে দেন না করোনা রোগীদের বাড়ি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার ভেন্টিলেটর-সিসিইউ স্থাপনে জরুরি প্রকল্প বঙ্গবন্ধুর মতো নেতা পৃথিবীতে খুব কম দেখা যায়: ট্রাম্প গবেষণা প্রটোকল জমা না দিয়েই বিষোদগার করছেন জাফরুল্লাহ জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচিতে নিয়োগ করোনা আক্রান্তের শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ ঘরেই পরীক্ষার উপায় মধ্যবিত্তরাও খাদ্যসহায়তার আওতায়: শিল্প প্রতিমন্ত্রী কর্মস্থল ত্যাগকারীদের তালিকা চায় মন্ত্রণালয় নাসিরনগরে শিশু নিহতের ঘটনায় গ্রেফতার ২ দেশে ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত, আরো ৮ মৃত্যু
  • বৃহস্পতিবার   ০৬ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২২ ১৪২৭

  • || ১৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

১৪৩

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চারজনের মৃত্যুদণ্ড

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ৬ জানুয়ারি ২০২০  

ঢাকার চকবাজারের ব্যবসায়ী মো. আব্দুল হান্নান বাহার হত্যা মামলা রায়ে অভিযুক্ত চারজনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা ও দায়রা জজ আদালত। সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বিচারক সফিউল আজম এ রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামীরা হলেন, মো. নুরু মিয়া, মো. জিয়াউল হক, লোকমান খান ও মো. কাদির হোসেন। এদের মধ্যে মো. জিয়াউল হক রায় ঘোষণার সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন। বাকি দণ্ডপ্রাপ্তরা জামিন নিয়ে পলাতক রয়েছেন।

২০১৪ সালের ৮ আগস্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার উজানচরে তিতাস নদী থেকে আব্দুল হান্নানের লাশ উদ্ধার হয়। এ ঘটনায় আব্দুল হান্নানের ছোট ভাই বেলাল হোসেন বাদী হয়ে বাঞ্চারামপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। ওই বছরের ১০ নভেম্বর আদালতে চার্জশিট দেয়া হয়। পাওনা টাকা দেয়ার কথা বলে আব্দুল হান্নানকে হত্যা করা হয় বলে উল্লেখ করা হয়। নোয়াখালী জেলার সোনাইমুড়ি উপজেলার অম্বরনগর গ্রামের আব্দুল লতিফের ছেলে আব্দুল হান্নান বাহার ঢাকার চকবাজারে কসমেটিকসের ব্যবসা করতেন।

মামলার রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠিত হওয়ার কথা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী এস. এম ইউসুফ। তবে আসামিপক্ষের আইনজীবী মো. জসিম উদ্দিন আহমেদ জানান, এ নিয়ে তাঁরা উচ্চ আদালতে আপীল করবেন।

অভিযোগ ও পুলিশ সূত্রে গেছে, আব্দুল হান্নান বাহারের ঢাকার চকবাজারের দোকান থেকে পাইকাররা মালামাল কিনতেন। পাইকারদের কাছ থেকে বকেয়া টাকা আদায় করতে তিনি বিভিন্ন এলাকায় যেতেন। ২০১৪ সালের ৪ আগস্ট দুপুর তিনটার দিকে বাহার কুমিল্লা জেলার মুরাদনগর উপজেলার বাঙ্গরা এলাকায় পাইকার লোকমান খানের কাছে বকেয়া আদায় করতে যান। বাহারকে তার পাওনা টাকা পরিশোধ করবেন বলে বাঙ্গরা বাজারে ডেকে নেন লোকমান। বাঙ্গরা বাজারে যাওয়ার পর লোকমান তার শ্বশুরবাড়িতে বেড়ানোর কথা বলে বাহারকে ইঞ্জিনচালিত নৌকায় তুলে নিয়ে যান। নৌকায় আটকে রেখে মুক্তিপণ আদায়ের জন্য বাহারের আত্মীয়-স্বজনদের কাছে ফোন করেন। ৪ থেকে ৬ আগস্ট পর্যন্ত বাহারের হাত-পা বেঁধে তাকে নির্যাতন করে কিছু টাকাও আদায় করা হয়। ৬ আগস্ট রাত আনুমানিক সাড়ে নয়টায় বাহারকে বাঞ্ছারামপুর উপজেলার উজানচর লঞ্চ ঘাটের বিপরীত দিকে তিতাস নদীতে ফেলে তার মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়। ৮ আগস্ট বিকেল ৩টার দিকে নদী থেকে বাহারের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর