ব্রেকিং:
প্রতিদিন কয়েকবার গরম পানির ভাপ নিয়েছি করোনায় ব্যতিক্রমী উদ্যোগ এমপিওভুক্তির সুখবর পেল ১৬৩৩ স্কুল-কলেজ ২০ হাজারের বেশি আইসোলেশন শয্যা প্রস্তুত রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে মানুষ, দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে বৈশ্বিক ক্রয়াদেশ পূরণে সক্ষম বাংলাদেশ ॥ শেখ হাসিনা লোকসান ঠেকাতে সরাসরি ক্ষেত থেকে সবজি কিনছে সেনাবাহিনী করোনা পরীক্ষায় দেশে চালু হলো প্রথম বেসরকারি ল্যাব যে দোয়ার আমলে স্মরণশক্তি বৃদ্ধি পাবে ইনশাআল্লাহ! আল্লাহ তিন ধরনের লোকের দোয়া ফিরিয়ে দেন না করোনা রোগীদের বাড়ি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার ভেন্টিলেটর-সিসিইউ স্থাপনে জরুরি প্রকল্প বঙ্গবন্ধুর মতো নেতা পৃথিবীতে খুব কম দেখা যায়: ট্রাম্প গবেষণা প্রটোকল জমা না দিয়েই বিষোদগার করছেন জাফরুল্লাহ জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচিতে নিয়োগ করোনা আক্রান্তের শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ ঘরেই পরীক্ষার উপায় মধ্যবিত্তরাও খাদ্যসহায়তার আওতায়: শিল্প প্রতিমন্ত্রী কর্মস্থল ত্যাগকারীদের তালিকা চায় মন্ত্রণালয় নাসিরনগরে শিশু নিহতের ঘটনায় গ্রেফতার ২ দেশে ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত, আরো ৮ মৃত্যু
  • রোববার   ০৭ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২৪ ১৪২৭

  • || ১৪ শাওয়াল ১৪৪১

১৩১৬

বিপিএল ২০১৯ দ্বিতীয়বার শিরোপার স্বাদ পেল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

পর্দা নামল ঘরোয়া ক্রিকেটের সব থেকে জনপ্রিয় আসর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল)। ঢাকা ডাইনামাইটস ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের মধ্যকার ফাইনাল ম্যাচ দিয়ে শেষ হল বিপিএলের ষষ্ঠ আসর। আর এ ম্যাচে ১৭ রানে ঢাকাকে হারিয়ে শিরোপা জয় করে নিল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। ফাইনালে হেরে টানা দ্বিতীয়বারের মতো শিরোপার কাছে গিয়েও ছুঁতে পারল না ঢাকা। শিরোপা পুনরুদ্ধারে এ চেষ্টাও ব্যর্থ হল ঢাকার। 

মিরপুর শের-ই- বাংলা ক্রিকেটে স্টেডিয়ামে ফাইনালে টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় ঢাকা ডাইনামাইটসের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। কিন্তু আগে বল করে কুমিল্লাকে আটকাতে পারেনি ঢাকা। আগে ব্যাট করে ৩ উইকেট হারিয়ে কুমিল্লার ১৯৯ রান সংগ্রহ করে। ২০০ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে ১৮২ রানে ৯ উইকেট হারিয়ে ওভার শেষ হওয়াতে থেমে যায় ঢাকা। আর এতে দ্বিতীয়বারের মতো বিপিএল শিরোপার স্বাদ পেল কুমিল্লা।

২০১৭-১৮ সালে বিপিএলের পঞ্চম আসরের ফাইনালেও রংপুরের মুখোমুখি হয় ঢাকা। কিন্তু রংপুরের ছুঁড়ে দেয়া ২০৬ রানে জবাবে ১৪৯ রানেই থেমে গিয়ে শিরোপা হারায় ঢাকা। ৫৭ রানের জয়ে শিরোপা নিজেদের করে নেয় রংপুর।

এদিকে, ২০১৫-১৬ তে বিপিএলের তৃতীয় আসরে মাশরাফীর নেতৃত্বে বরিশাল বুলসকে ৩ উইকেটে হারিয়ে প্রথম শিরোপার স্বাদ পায় কুমিল্লা ভিক্টরিয়ান্স।

বড় স্কোর ২০০ রানের টার্গেটে আত্মবিশ্বাসী হয়েই ব্যাট করতে নামে সাকিবের ঢাকা। থারঙ্গা ও সুনিল নারাইন জুটি হয়তো ফাইনাল ম্যাচে একটা চমক দেখাবে বরাবরের মতো। এমনটাই প্রত্যাশা ছিল সবার। কিন্তু ভাগ্য আজ সুনিল নারাইনের পক্ষে ছিল না। ওভারের দ্বিতীয় বলে থারাঙ্গার শটে রান নিতে গেলে সাইফউদ্দিনের অসাধারণ থ্রোতে রান আউট হয়ে বিপিএল শেষ করে নারাইন। এরপর রনি তালুকদার তার রূপ দেখাতে ভুল করেনি।

থারাঙ্গা ও রনির জুটিতে রান যখন দলীয় শতক পার করেছে ঠিক তখনি ঘটল অঘটন। পেরেরার বলে উড়িয়ে মারতে গেলে ক্যাচ হয়ে আবু হায়দার রনির হাতে ধরা দেন থারাঙ্গা (৪৮)। ১০২ রানেই ভেঙে যায় তাদের পার্টনারশিপ। এরপর অধিনায়ক সাকিব এসেও সুবিধা করতে পারেনি। মাত্র ৫ বলে ৩ রান করে ওহাব রিয়াজের বলে তামিমের হাতে ক্যাচ তুলে দেন সাকিব। বেশ দূর থেকেই ছুটে এসে ক্যাচটি লুফে সাকিবকে প্যাভিলিয়নে পাঠান তামিম। তবু রানের চাকা সচল রেখেছিল রনি তালুকদার। কিন্তু ভাগ্য আর তাকে সঙ্গ দিল না। আফ্রিদির বলে রান আউট করে রনিকে (৬৬) ঘরে ফেরান এনামুল হক বিজয়।

আন্দ্রে রাসেলের উপর একটা ভরসা ছিল ঢাকার। কিন্তু আজ রাসেলও দাঁড়াতে পারল না কুমিল্লার বলের সামনে। পেরেরার বলে মাত্র ৪ রান করে ওহাব রিয়াজের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ঘরে ফেরেন রাসেল। আবারো সেই ওহাব রিয়াজের বলে তামিমের হাতেই ক্যাচ হয়ে সাঁজঘরে ফেরেন কাইরন পোলার্ড (১৩)। এতে ঢাকার শিরোপার আলো নিভতে শুরু করে। দলীয় ১৪৩ রানে ক্যাচ হয়ে ফেরেন শুভাগত হোম (০)।

তবু ঢাকা যেন কিছু আশার আলো দেখছিল সোহানের ব্যাটে। কিন্তু ক্যাচ হয়ে তাকেও ফিরতে হল ১৪ বলে ১৮ রানের এক স্কোর করে। সাইফউদ্দিনের বলে ওহাব রিয়াজের হাতে ক্যাচ হলে মাহুমুদুল হাসান লিমন (১৫)। শেষ পর্যন্ত আর কোনো উইকেট না পড়লেও ওভার শেষ হওয়াতে থেমে যেতে হয় ঢাকাকে। ১৮২ রানেই আটকে থাকে ঢাকার ইনিংস।

সবশেষে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৮২ রান সংগ্রহ করে ঢাকা ডাইনামাইটস। আর এতে ১৭ রানের জয় নিয়ে বিপিএলের ষষ্ঠ শিরোপা নিজেদের করে নিল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।

এর আগে টসে হেরে শিরোপার লক্ষ্যে ব্যাট নিয়ে মাঠে নামেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের তামিম ইকবাল ও এভিন লুইস। কিন্তু শুরুটাই ভালো হল না তাদের। খেলার দ্বিতীয় ওভারে রুবেলের পঞ্চম বলে এলবি আউট হয় লুইস। দলীয় রান যখন ৯। রিভিউ নিয়েও লুইসকে বাঁচাতে পারেনি কুমিল্লা। এরপর ফেরেন এনামুল হক বিজয় ও শামসুর রহমান। বিজয় এলবিতে আউট হলেও শমাসুর রহমান ফেরেন রান আউটে। আর দু’জনকেই ফেরান ঢাকার অধিনায়ক। এরপর আর কোনো উইকেট নিতে সক্ষম হয়নি ঢাকা। তামিম ইকবাল একাই নিজের কাঁধে করে কুমিল্লাকে এনে দিয়েছেন ফাইটিংয়ের বড় স্কোর।

তামিম ইকবাল অপরাজিত থেকে ১৪১ রানের ইনিংস উপহার দেন দলকে। ১১টি ওভার বাউন্ডারি ও ১০টি বাউন্ডারিতে সাজানো ছিল তার ইনিংস। অধিনায়ক ইমরুল কায়েসও অপরাজিত ১৭ রানের ইনিংস খেলেন। শিরোপা জিততে ঢাকার সামনে ২০০ রানের বড় টার্গেট ছিল। কিন্তু টার্গেট অর্জন করতে ব্যর্থ হয় তৃতীয়বারের শিরোপাজয়ী ঢাকা।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
খেলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর