ব্রেকিং:
করদাতাদের সুবিধার্থে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ স্যানিটেশন মাস ও বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস পালিত জেলে পরিবারের মাঝে ছাগল বিতরণ খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি ও ইঁদুর নিধনে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান চাঁদা না পেয়ে সন্ত্রাসীদের হামলা কার্টুনে ভরা নবজাতকের মরদেহ উদ্ধার পণ্যের মূল্য তালিকা ও মেয়াদোত্তীর্ণ তারিখ না থাকায় জরিমানা নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় আহত ১৫ নিরাপদ খাদ্য আইন বাস্তবায়নের দাবিতে মানববন্ধন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে অপপ্রচার স্বাস্থ্য সচেতনতায় মা সমাবেশ অনুষ্ঠিত হাসপাতালে নবজাতক রেখে মা উধাও সাড়ে ৮ লাখ টাকা দিয়েও হলো না চাকরি, কাঁদলেন প্রার্থী ২০২৩ বিশ্বকাপের আয়োজক হতে পারে বাংলাদেশ! কোটি টাকার কারেন্ট জালে আগুন দেশের ‘অপরিচিত’ কিছু সমুদ্র সৈকত আপনার দেহে কি ক্যান্সার বাসা বেঁধেছে? বুঝে নিন ১০টি লক্ষণে র‌্যাগিং বন্ধে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের আহ্বান ডিজিটাল মেলায় দেশি রোবট নিয়ে কৌতুহল জুতার বাজে গন্ধ দূর করুন সহজ একটি কৌশলে!

বৃহস্পতিবার   ১৭ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ১ ১৪২৬   ১৭ সফর ১৪৪১

বখাটে ছেলের অত্যাচারে ঘর ছাড়া অসহায় বাবা-মা

প্রকাশিত: ৪ অক্টোবর ২০১৯  

বখাটে ছেলের অত্যাচারে বাড়ি ছেড়েছেন অসহায় পিতা-মাতা।ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার বুধন্তী ইউনিয়নের খাতাবাড়ী গ্রামের বৃদ্ধ নুর মিয়া ও তার বৃদ্ধা স্ত্রী আনোয়ারা খাতুন অসহায়ভাবে দিন যাপন করছে। পাড়ার মাতাব্বরদের কাছে এ বিষয়ে জানিয়ে কোন সুরাহা না পেয়ে সম্প্রতি আইনের আশ্রয় নিয়েছে এই দম্পত্তি।

মামলা সুত্রে জানা যায়, মাদকাসক্ত হয়ে টাকার জন্য তাদের চতুর্থ ছেলে মোঃ আনু মিয়া দীর্ঘ ধরে তাদেরকে শারিরীক ও মানসিক ভাবে অত্যাচার করে আসছে। বিগত কিছু দিন পূর্বে ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার পিতা নুর মিয়াকে আক্রমণ করে গুরুতর আহত করলে আঘাতপ্রাপ্ত স্থানে তিনটি সেলাই করতে হয়। 

এলাকার কিছু লোক বিচার ব্যবস্থা করবে বলে আশ্বাস দিয়েও কোন বিচারের ব্যবস্থা করেনি। তার ছেলে আনু মিয়ার নির্যাতন দিন দিন বাড়তে থাকলে উপায়ান্তর না দেখে জীবন বাঁচাতে আইনের আশ্রয় নেয় এই দম্পতি।

নুর মিয়া বলেন, আমি একজন অসহায় মানুষ। ছেলের অত্যাচারে আজ আমি ঘর ছাড়া। কয়েকদিন আগে সে আমার বুকের উপর উঠে দা দিয়ে জবাই করে মেরে ফেলার চেষ্টা করে।পরে আশেপাশের লোকজন এসে আমাকে উদ্ধার করে। আমি কোন কথা বললেই সে মারধর করে।

আনোয়ারা খাতুন বলেন, আমাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিলে আমি মারাত্মকভাবে আহত হয়ে দীর্ঘ দিন শয্যাশায়ী থাকতে হয়। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়ে উঠতে পারেনি। তার অত্যাচারে আমরা ঘর ছেড়েছি। আমরা এর বিচার চাই।

এই দম্পতি জানান,তারা এখন নিজের বাড়ি ছেড়ে সাতবর্গ বাস টার্মিনাল এলাকায় দিন যাপন করছেন ।

এ ব্যাপারে বিজয়নগর থানার ওসি ফয়জুল আজিম নোমান বলেন, অভিযোগটি পেয়েছি। বিষয়টি অত্যন্ত দুঃখজনক। অসহায় মানুষদের জন্য বিজয়নগর থানা সর্বোচ্চ সহযোগিতা করবে। আমরা খোজ নিয়ে দ্রুত এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর