ব্রেকিং:
মাদক সম্রাট বাদল ডাক্তার আটক পাইকপাড়া ও বুল্লা গ্রামের বিরোধের শান্তিপূর্ণ মিমাংসা স্মৃতিসৌধ পরিদর্শনকালে সঙ্গী কুখ্যাত রাজাকারপুত্র আইনশৃঙ্খলা উন্নয়নে সকলের সহযোগিতা চাইলেন ওসি ইউপি সদস্য সহ ৭ জুয়ারী গ্রেফতার ব্যাডমন্টিন টুর্নামেন্টে দর্শকদের উপচে পড়া ভীড় বিজয় দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় সম্মিলিতভাবে পালন করতে হবে আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবস পালিত প্রেমিককে না পেয়ে প্রেমিকার আত্মহত্যা সবজি গ্রাম হিসেবে প্রতিষ্ঠিত কৃষ্ণনগর চোলাই মদ বিক্রির দায়ে কারাদণ্ড নিয়মের ‘গ্যাঁড়াকলে’ তালিকাভুক্তহীন ১৭ মুক্তিযোদ্ধা ‘ডায়াবেটিস’ তাই ভাত ছেড়ে রুটি? বিপদ আরো বাড়ছে মিথিলা-ফাহমির ছবি ইন্টারনেট থেকে সরানোর নির্দেশ গবাদি পশুর প্রজননের খবর জানাবে বাংলাদেশি ছাত্রের তৈরি যন্ত্র অ্যাপিকটা বিজয়ীদের সংবর্ধনা দিল বেসিস ইসলামে সড়ক ও পরিবহন নীতিমালা জমকালো আয়োজনে শেষ হলো বিপিএলের উদ্বোধন শুদ্ধি অভিযান সফল করতে হবে: কাদের পঙ্গু-বয়স্কদের জন্য ইউএনওর ‘কলিং বেল’ সেবা

মঙ্গলবার   ১০ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৫ ১৪২৬   ১২ রবিউস সানি ১৪৪১

৬৯০

ফেসবুকে প্রেম থেকে পুলিশে মামলা!

প্রকাশিত: ২০ জুলাই ২০১৯  

ফেসবুকে পরিচয়, সেই সূত্রে টুকটাক কথাবার্তা। এরপর ভালোলাগা থেকে সোজা মন দেয়া-নেয়া। এক পর্যায়ে শারীরিক সম্পর্ক। শেষমেশ সবকিছু অস্বীকার করে প্রেমিকার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দিলেন প্রেমিক। তবে প্রেমিকাও ছাড়ার পাত্রী না। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়রি (জিডি) করেছেন ওই কলেজছাত্রী। শহরের শেরপুর এলাকার বাসিন্দা মো. সিরাজুল খানের (২৭) বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে, প্রতারণার অভিযোগ তুলেছেন ওই তরুণী।

তরুণীর পরিবার ও জিডি সূত্রে জানা গেছে, ফেসবুকে শেরপুর এলাকার আবুল কালাম খানের ছেলে সিরাজুল খানের সঙ্গে পরিচয় হয়, শহরের বাগানবাড়ি এলাকার ওই কলেজছাত্রীর। সেই পরিচয়ের সূত্র ধরে দু’জনের মধ্যে বন্ধুত্বের সম্পর্ক হয়। এরপর বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সিরাজুল ওই কলেজছাত্রীকে নিয়ে বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়িয়েছেন। এক পর্যায়ে ওই কলেজছাত্রী সিরাজুলকে বিয়ের কথা বললে তিনি যোগাযোগ বন্ধ করে দেন।

এরপর ওই কলেজছাত্রী সিরাজুলের বাড়িতে গিয়ে, তার বাবা-মাকে বিষয়টি জানান। পরবর্তীতে ওই কলেজছাত্রী মাসহ অন্য অভিভাবকদের ডেকে নিয়ে গিয়ে বিয়ে দেয়ার জন্য সম্মত হয় এবং সিরাজুলও বিয়ের জন্য রাজি হন বলে জিডিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

কিন্তু বিয়ের তারিখ নির্ধারণ করার পর সিরাজুল ও তার পরিবারের লোকজন বিয়ে হবে না বলে জানিয়ে দেন। এ ঘটনার পর ওই কলেজছাত্রী শারীরিক ও মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরবর্তীতে বিষয়টি নিয়ে সালিশ-বৈঠক হলেও কোনো সমাধান আসেনি। সর্বশেষ গত ৯ জুলাই বিকেলে ওই কলেজছাত্রী সিরাজুলের বাড়িতে গিয়ে আবার বিয়ের কথা বললে সে সব সম্পর্ক অস্বীকার করেন এবং কলেজছাত্রী ও তার পরিবারের লোকজনদের গালিগালাজ করেন। একইসঙ্গে ওই কলেজছাত্রীর ছবি-ভিডিও অনলাইনে ছড়িয়ে দেয়ারও হুমকি দেয়।

ওই কলেজছাত্রী অভিযোগ করে বলেন, ‘ওর (সিরাজুল) কারণে আমার মান-সম্মান সব গেছে। এলাকাবাসী সবাই জানে আমি সিরাজের বউ। এখন ওর সঙ্গে যদি আমার বিয়ে না হয় আমি আর মুখ দেখাতে পারব না। আমার মরণ ছাড়া আর কোনো উপায় নাই। আমি একটা আশাতেই বেঁচে আছি ও আমাকে বিয়ে করবে, আমি ওর বউ হব।’

তবে অভিযোগের ব্যাপারে বক্তব্য জানতে সিরাজুল খানের মুঠোফোনে কল করলে সেটি বন্ধ পাওয়া গেছে। তার বাবা আবুল কালাম খানকে ফোন করলে তিনিও রিসিভ করেননি। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জিডি তদন্তকারী কর্মকর্তা ও সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শরীফুল ইসলাম বলেন, জিডির বিষয়টি আমরা তদন্ত করে দেখছি। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর