ব্রেকিং:
বন্যাদুর্গতদের পুনর্বাসনে রয়েছে ১২০ কোটি টাকা বরাদ্দ ঘুষদাতার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী হুজুর সেজে ধর্ষককে ধরলেন পুলিশ কর্মকর্তা বিয়ের অনুষ্ঠানে বোমা হামলা, নিহত বেড়ে ৬৩ ইন্দোনেশিয়া ও ফিলিপাইনের রমণীদের পছন্দ বাংলাদেশি ছেলে রোহিঙ্গা নির্যাতন তদন্তে ঢাকায় মিয়ানমারের তদন্ত দল ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ টাইগারদের হেড কোচ হলেন রাসেল ডমিঙ্গো ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’ স্মার্টকার্ড পাবে ছয় বছরের শিশুও! হাঁসে হাসি-খুশির সংসার ‘বিশ্ববন্ধু’ উপাধি পেলেন বঙ্গবন্ধু ল্যান্ড ফোনের মাসিক লাইন রেন্ট বাতিল প্রসব বেদনা নিয়েই ছয় কিলোমিটার হাঁটলেন কাশ্মীরি মা সাড়ে ৩ হাজার রোহিঙ্গা ফিরিয়ে নিচ্ছে মিয়ানমার ‘ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করলেও তার আদর্শের মৃত্যু ঘটাতে পারেনি’ শনিবার থেকে কাঁচা চামড়া কিনবেন ট্যানারি মালিকরা আখাউড়ায় তিতাস ব্রিজে দর্শনার্থীদের ভীড় ডেঙ্গু প্রতিরোধে ছুটি শেষে বাসায় ফিরে যা করবেন ঈদ আনন্দে বিনোদন কেন্দ্রগুলো মুখরিত

রোববার   ১৮ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৩ ১৪২৬   ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

৬২২

ফেসবুকে প্রেম থেকে পুলিশে মামলা!

প্রকাশিত: ২০ জুলাই ২০১৯  

ফেসবুকে পরিচয়, সেই সূত্রে টুকটাক কথাবার্তা। এরপর ভালোলাগা থেকে সোজা মন দেয়া-নেয়া। এক পর্যায়ে শারীরিক সম্পর্ক। শেষমেশ সবকিছু অস্বীকার করে প্রেমিকার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দিলেন প্রেমিক। তবে প্রেমিকাও ছাড়ার পাত্রী না। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়রি (জিডি) করেছেন ওই কলেজছাত্রী। শহরের শেরপুর এলাকার বাসিন্দা মো. সিরাজুল খানের (২৭) বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে, প্রতারণার অভিযোগ তুলেছেন ওই তরুণী।

তরুণীর পরিবার ও জিডি সূত্রে জানা গেছে, ফেসবুকে শেরপুর এলাকার আবুল কালাম খানের ছেলে সিরাজুল খানের সঙ্গে পরিচয় হয়, শহরের বাগানবাড়ি এলাকার ওই কলেজছাত্রীর। সেই পরিচয়ের সূত্র ধরে দু’জনের মধ্যে বন্ধুত্বের সম্পর্ক হয়। এরপর বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সিরাজুল ওই কলেজছাত্রীকে নিয়ে বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়িয়েছেন। এক পর্যায়ে ওই কলেজছাত্রী সিরাজুলকে বিয়ের কথা বললে তিনি যোগাযোগ বন্ধ করে দেন।

এরপর ওই কলেজছাত্রী সিরাজুলের বাড়িতে গিয়ে, তার বাবা-মাকে বিষয়টি জানান। পরবর্তীতে ওই কলেজছাত্রী মাসহ অন্য অভিভাবকদের ডেকে নিয়ে গিয়ে বিয়ে দেয়ার জন্য সম্মত হয় এবং সিরাজুলও বিয়ের জন্য রাজি হন বলে জিডিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

কিন্তু বিয়ের তারিখ নির্ধারণ করার পর সিরাজুল ও তার পরিবারের লোকজন বিয়ে হবে না বলে জানিয়ে দেন। এ ঘটনার পর ওই কলেজছাত্রী শারীরিক ও মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরবর্তীতে বিষয়টি নিয়ে সালিশ-বৈঠক হলেও কোনো সমাধান আসেনি। সর্বশেষ গত ৯ জুলাই বিকেলে ওই কলেজছাত্রী সিরাজুলের বাড়িতে গিয়ে আবার বিয়ের কথা বললে সে সব সম্পর্ক অস্বীকার করেন এবং কলেজছাত্রী ও তার পরিবারের লোকজনদের গালিগালাজ করেন। একইসঙ্গে ওই কলেজছাত্রীর ছবি-ভিডিও অনলাইনে ছড়িয়ে দেয়ারও হুমকি দেয়।

ওই কলেজছাত্রী অভিযোগ করে বলেন, ‘ওর (সিরাজুল) কারণে আমার মান-সম্মান সব গেছে। এলাকাবাসী সবাই জানে আমি সিরাজের বউ। এখন ওর সঙ্গে যদি আমার বিয়ে না হয় আমি আর মুখ দেখাতে পারব না। আমার মরণ ছাড়া আর কোনো উপায় নাই। আমি একটা আশাতেই বেঁচে আছি ও আমাকে বিয়ে করবে, আমি ওর বউ হব।’

তবে অভিযোগের ব্যাপারে বক্তব্য জানতে সিরাজুল খানের মুঠোফোনে কল করলে সেটি বন্ধ পাওয়া গেছে। তার বাবা আবুল কালাম খানকে ফোন করলে তিনিও রিসিভ করেননি। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জিডি তদন্তকারী কর্মকর্তা ও সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শরীফুল ইসলাম বলেন, জিডির বিষয়টি আমরা তদন্ত করে দেখছি। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর