ব্রেকিং:
শীতার্তদের পাশে সংবাদপত্র কর্মীরা স্বাস্থ্য সেবা হচ্ছে মানবতার প্রধান উৎস মাদকমুক্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়া গড়তে ‘আলোর সিঁড়ি’র ব্যতিক্রমী উদ্যোগ কাদিয়ানিদের অমুসলিম ঘোষনার দাবিতে বিক্ষোভ মাদকাসক্ত স্বামীকে পুলিশে দিলেন স্ত্রী ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পারাবত এক্সপ্রেস ট্রেন আগুন শেখ হাসিনা সড়কে ব্রিজের নির্মাণকাজ পরিদর্শন বিশ্ববিখ্যাত ইনটেলের চেয়ারম্যান হলেন বাংলাদেশি ওমর ইশরাক পবিত্র জুমাবারের সুন্নতগুলো জেনে নিন ছড়িয়ে যাচ্ছে করোনাভাইরাস, সৌদিতে ভারতীয় আক্রান্ত পাকিস্তানকে হারাতে আজ মাঠে নামবে টাইগাররা রোহিঙ্গা গণহত্যা: মিয়ানমারের বিরুদ্ধে চার আদেশ ঐতিহাসিক গণঅভ্যুত্থান দিবস আজ মাদরাসায় এক কেজি মুড়ির বিল ১৪ হাজার ৮৮০ টাকা! সেনাবাহিনীর শীতকালীন মহড়া প্রত্যক্ষ করেন প্রধানমন্ত্রী আজিজুল হকের মায়ের মৃত্যুতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের শোক সরকারি নির্মাণাধীন বাসগৃহ পরিদর্শন করেন ইউএনও মৎস্য ব্যবসায়ীদের বাজার বর্জন বাজার ব্যবস্থাপনা ও সংস্কার কাজ পরিদর্শন আকস্মিক কলেজ পরিদর্শনে জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী

শনিবার   ২৫ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ১১ ১৪২৬   ২৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

১৪

ফাগুন হাওয়ায় ভাসছে প্রাথমিক শিক্ষা

প্রকাশিত: ৯ জানুয়ারি ২০২০  

বছর শুরু হতে না হতেই প্রাথমিক শিক্ষায় লেগেছে ফাগুন হাওয়া। শিক্ষক নিয়োগ, প্রধান শিক্ষকদের পদোন্নতি ও ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকদের স্থায়ীকরণসহ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ও শিক্ষা সহায়ক কর্মকাণ্ড এগিয়ে চলছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব আকরাম আল হোসেন ডেইলি বাংলাদেশকে জানান, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের চলতি মাসেই পদায়ন করে ফেব্রুয়ারি মাস থেকে ক্লাস নেয়ার দায়িত্ব দেয়া হবে। 

আকরাম আল হোসেন বলেন, জানুয়ারি মাসের মধ্যে নিয়োগপ্রাপ্তদের পদায়ন করা হবে। ফেব্রুয়ারি থেকে তারা ক্লাস শুরু করবে। সব কিছু ঠিক থাকলে, এ মাসের মাঝামাঝি তাদের যোগদান কার্যক্রম শুরু হবে।

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এসব সহকারী শিক্ষকরা ১৩ গ্রেডে বেতন-ভাতা সুবিধা পাবে। আগে সহকারী শিক্ষকদের ১৫ গ্রেডে যোগদান করতে হত। প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হলে তারা ১৪ গ্রেডে বেতন-ভাতা সুবিধা দেয়া হত। 

গত ডিসেম্বরে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় সারা দেশে শূন্য আসনের ভিত্তিতে মোট ১৮ হাজার ১৪৭ জনকে চূড়ান্ত ফলাফলে নির্বাচন করা হয়। এছাড়াও নতুন করে আরো ২৬ হাজার ৩০০ জনকে প্রাক-প্রাথমিক পর্যায়ের শিক্ষক নিয়োগ দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষকদের পাশাপাশি সুখবর পেতে যাচ্ছেন প্রধান শিক্ষকরাও। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন জানিয়েছেন, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের এখন থেকে দশম গ্রেড দেয়া হবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, শিক্ষকদের যৌক্তিক দাবিগুলো বাস্তবায়ন করা হবে। দেশের শিক্ষার ব্যাবস্থার সার্বিক উন্নতির স্বার্থে সরকার প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। আমরা এরইমধ্যে প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের বেতন গ্রেড বাড়িয়েছি। 

প্রসঙ্গত, বর্তমানে প্রধান শিক্ষকদের ১১ গ্রেড ও সহকারী শিক্ষকদের ১২ গ্রেডে বেতন-ভাতা দেয়া হচ্ছে। 

এদিকে, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকদের মধ্যে যারা চলতি দায়িত্বে আছেন তাদের পদ স্থায়ী করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। 

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রধান শিক্ষক পদে চলতি দায়িত্ব স্থায়ী করা হলে নতুন করে এ পদে আর নিয়োগ দেয়া হবে না।

চলতি দায়িত্বে থাকা প্রধান শিক্ষকদের মূল বেতনের অতিরিক্ত আরো ১ হাজার ৫০০ টাকা দেয়া হয়। তবে এজন্য তারা কোনো ভাতা পান না। প্রধান শিক্ষক পদে তাদের চাকরি স্থায়ী হলে তারা পুরো বেতন ভাতা পাবে বলে জানা গেছে। 

সচিব আকরাম আল হাসান বলেন, বিভিন্ন বিদ্যালয়ে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে সহকারী শিক্ষকদেরকে প্রধান শিক্ষক পদে দায়িত্ব দেয়া হয়। দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালনের পর পুনরায় সহকারী শিক্ষক পদে থেকে ফিরিয়ে দিলে অনেক বিদ্যালয়ে জটিল পরিবেশের সৃষ্টি হয়। যেটি শিক্ষা সহায়ক নয়। এজন্য চলতি দায়িত্বে থাকা প্রধান শিক্ষকদের পদোন্নতি দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন বলেন, নতুন শিক্ষাবর্ষে প্রাথমিক শিক্ষার পরিবেশ আরো উন্নতি করতে গুরুত্বপূর্ণ বেশ কিছু সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা হবে। প্রাথমিক পর্যায়ে শিক্ষকদের যে সমস্যাগুলো আছে সেগুলো মেটানো হবে। শিক্ষার্থীরা যেন শিক্ষা সহায়ক একটি পরিবেশে বেড়ে উঠতে পারে সেটিও নিশ্চিত করবে সরকার। 

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর