ব্রেকিং:
স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের ছবি ব্যবহার করে ফেসবুকে প্রতারণা প্রতিদিন কয়েকবার গরম পানির ভাপ নিয়েছি করোনায় ব্যতিক্রমী উদ্যোগ এমপিওভুক্তির সুখবর পেল ১৬৩৩ স্কুল-কলেজ ২০ হাজারের বেশি আইসোলেশন শয্যা প্রস্তুত রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে মানুষ, দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে বৈশ্বিক ক্রয়াদেশ পূরণে সক্ষম বাংলাদেশ ॥ শেখ হাসিনা লোকসান ঠেকাতে সরাসরি ক্ষেত থেকে সবজি কিনছে সেনাবাহিনী করোনা পরীক্ষায় দেশে চালু হলো প্রথম বেসরকারি ল্যাব যে দোয়ার আমলে স্মরণশক্তি বৃদ্ধি পাবে ইনশাআল্লাহ! আল্লাহ তিন ধরনের লোকের দোয়া ফিরিয়ে দেন না করোনা রোগীদের বাড়ি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার ভেন্টিলেটর-সিসিইউ স্থাপনে জরুরি প্রকল্প বঙ্গবন্ধুর মতো নেতা পৃথিবীতে খুব কম দেখা যায়: ট্রাম্প গবেষণা প্রটোকল জমা না দিয়েই বিষোদগার করছেন জাফরুল্লাহ জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচিতে নিয়োগ করোনা আক্রান্তের শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ ঘরেই পরীক্ষার উপায় মধ্যবিত্তরাও খাদ্যসহায়তার আওতায়: শিল্প প্রতিমন্ত্রী কর্মস্থল ত্যাগকারীদের তালিকা চায় মন্ত্রণালয় নাসিরনগরে শিশু নিহতের ঘটনায় গ্রেফতার ২
  • শনিবার   ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ১১ ১৪২৭

  • || ০৭ সফর ১৪৪২

১৪৫

পড়ায় মনোযোগ বাড়াবেন যেভাবে

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ৮ জানুয়ারি ২০২০  

পড়তে বসে যদি মনযোগ না থাকে তাহলে আপনি যতই পড়ুন না কেনো ফলাফল কিন্তু শূণ্য। এজন্য অভিভাবকরাও বারবার তাগিদ দেন মনযোগ দিয়ে পড়ার জন্য। কিন্তু কিভাবে মনযোগ দিয়ে পড়বেন? পড়াশুনায় মনযোগ না থাকলে কিভাবেই বা আপনার মনযোগ বাড়াবেন। চলুন পড়াশুনায় মনযোগ বাড়ানোর কয়েকটি  কৌশল জেনে নিই-

পড়ার জন্য ভালো জায়গা নির্বাচন করুন
পড়ার জন্য ভালো জায়গা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আপনি অবশ্যই ব্যস্ত রাস্তার পাশে পড়তে বসে মনযোগ ধরে রাখতে পারবেন না। এজন্য এমন একটি জায়গায় পড়তে বসুন যেখানে আপনি পূর্ণ মনযোগ ধরে রাখতে পারবেন। আবার এমন জায়গায় পড়তে বসবেন না যেখান থেকে বিশেষ কোনো কিছু আপনার মনযোগ তার দিকে নিয়ে নিতে পারে। আপনার পড়ার টেবিল থেকে যদি দেখেন কিছু বাচ্চারা দুষ্টুমি করছে তাহলে আপনার মনযোগ তাদের দিকে চলে যাবে। নতুন করে পড়ায় মনযোগ ফিরিয়ে আনতে পারবেন না। এজন্য পড়ার সময় যেনো আপনার আশেপাশে টেলিভিশন, চিত্তাকর্ষক রঙ, কালারফুল লাইট না থাকে সেটি খেয়াল রাখুন। আপনার পড়ার রুমটি অবশ্যই নিরিবিলি রাখার চেষ্টা করুন। বেডে বসে না পড়ে চেয়ার টেবিলে পড়ুন। 

পড়ার সময় অন্যান্য কাজ থেকে বিরত থাকুন
অনেকেই পড়ার সময় অনেক কিছু করে থাকেন। কেউ হয়তো পড়তে পড়তেই মোবাইল টিপেন, গান শুনেন, সামাজিক মাধ্যমে মেসেজিং করেন। পড়ার সময় এসব করতে সাময়িক ভালো লাগলেও আপনি কিন্তু আপনার ক্ষতিই করছেন। পড়ার মনযোগ চলে যাওয়ার পেছনে এগুলো অনেকাংশেই দায়ী। আপনি যখন পড়তে বসে এসব করেন তখন আসলে আপনি পূর্ণ মনযোগ এসব কাজেই দিয়ে থাকেন। আপনার মনে হতে পারে যে আপনি পড়ছেন। আসলে তখন আপনি পড়ছেন না। পড়ার ভান করছেন। এজন্য পড়ার সময় যাবতীয় কাজ থেকে নিজেকে বিরত রাখুন। পড়তে বসলে শুধুই পড়ুন। অন্য কিছু করতে যাবেন না।

আপনার স্ট্রং টাইম জোন চিনুন
আমাদের ব্রেইন সব সময় একভাবে রেসপন্স করে না। আপনি পড়ার সময় অবশ্যই খেয়াল করে থাকবেন একটি বিশেষ সময়ে আপনি বেশি পড়তে পারছেন, বেশি মনযোগ দিতে পারছেন, পড়াগুলো সহজেই বুঝে যাচ্ছেন। আপনি আপনার এরকম স্ট্রং টাইম জোন খুঁজে বের করুন। এই সময়টাতেই কঠিন বিষয়গুলো পড়ুন। দেখবেন অনেক খাটনি করেও যেটি মাথায় ঢুকাতে পারেননি সেটিও এসময় মাথায় ঢুকে যাবে। আপনি যেই সময়টাতে বেশি এনার্জেটিক থাকেন সেই সময়টাতে কঠিন বিষয়গুলো পড়ুন। কারণ শরীর দুর্বল থাকলে সেসময় কঠিন কেনো সহজ বিষয়গুলোও মাথায় ঢুকতে চায় না। মনযোগ ধরে রাখার জন্য এই স্ট্রং টাইম জোন খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

নেতিবাচক চিন্তা বাদ দিন
অনেকেই পড়ার সময় নেতিবাচক চিন্তায় ডুবে যান। ভেবে বসেন, ‘এটা অনেক কঠিন। এটা আমার দ্বারা সম্ভব না।’এরকম ভাবতে যাবেন না। কারণ এরকম ভাবলে আপনি পড়া থেকে মনযোগ হারিয়ে ফেলবেন। যেটা কঠিন সেটা তো পড়া হবেই না সেই সাথে অন্যান্য সহজ বিষয়গুলোতেও মনযোগ দিতে পারবেন না। এজন্য সব সময় মনে করবেন, ‘এটা কঠিন ঠিক আছে। কিন্তু আমি এটা পড়লেই পারবো।’‘আমি পারবো না, আমার দ্বারা হবে না, এটা বোরিং, আমার মনযোগ থাকে না’এ ধরণের নেতিবাচক চিন্তা বাদ দিন। দেখবেন মনযোগ বেড়ে যাচ্ছে। নিজের ভেতরের ইতিবাচক দিকগুলোকে স্মরণ করুন। 

এক বসায় অনেকক্ষণ পড়বেন না
এক বসায় অনেকক্ষণ না পড়াই ভালো। কারণ আনন্দদায়ক কাজও একটানা করলে এক সময় বিরক্তি চলে আসে। এজন্য একটানা অনেকক্ষণ পড়বেন না। এক বা দুই ঘন্টা পরপর বিরতি নিন। এর মাঝে হাল্কা নাস্তা করে নিজেকে চাঙ্গা করুন। তারপর আবার পড়তে বসুন। এতে নতুন উদ্যোমে পড়ার শক্তি পাবেন। মনযোগও ভালো হবে। 

পর্যাপ্ত ঘুমান
অনেকক্ষণ হাটলে যেমন পা ব্যথা করে, অনেকক্ষণ লিখলে যেমন হাত ব্যথা করে, ক্লান্তি চলে আসে তেমনি সারাক্ষণ পড়লেও ব্রেইনের ক্ষতি হয়। শরীরের অন্যান্য অঙ্গের মতো ব্রেইনেরও বিশ্রামের প্রয়োজন আছে। ব্রেইনের কার্যক্ষমতা বাড়াতে হলে অবশ্যই পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুমাতে হবে। বেশি পড়ার চাপে ঘুম কমিয়ে দিবেন না। চেষ্টা করুন প্রতিদিন সময় করে সাত ঘন্টা ঘুমানোর। এতে ব্রেইন অনেক ভালো থাকবে আর পড়াতেও মনযোগ ফিরে পাবেন।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
শিক্ষা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর