ব্রেকিং:
প্রতিদিন কয়েকবার গরম পানির ভাপ নিয়েছি করোনায় ব্যতিক্রমী উদ্যোগ এমপিওভুক্তির সুখবর পেল ১৬৩৩ স্কুল-কলেজ ২০ হাজারের বেশি আইসোলেশন শয্যা প্রস্তুত রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে মানুষ, দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে বৈশ্বিক ক্রয়াদেশ পূরণে সক্ষম বাংলাদেশ ॥ শেখ হাসিনা লোকসান ঠেকাতে সরাসরি ক্ষেত থেকে সবজি কিনছে সেনাবাহিনী করোনা পরীক্ষায় দেশে চালু হলো প্রথম বেসরকারি ল্যাব যে দোয়ার আমলে স্মরণশক্তি বৃদ্ধি পাবে ইনশাআল্লাহ! আল্লাহ তিন ধরনের লোকের দোয়া ফিরিয়ে দেন না করোনা রোগীদের বাড়ি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার ভেন্টিলেটর-সিসিইউ স্থাপনে জরুরি প্রকল্প বঙ্গবন্ধুর মতো নেতা পৃথিবীতে খুব কম দেখা যায়: ট্রাম্প গবেষণা প্রটোকল জমা না দিয়েই বিষোদগার করছেন জাফরুল্লাহ জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচিতে নিয়োগ করোনা আক্রান্তের শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ ঘরেই পরীক্ষার উপায় মধ্যবিত্তরাও খাদ্যসহায়তার আওতায়: শিল্প প্রতিমন্ত্রী কর্মস্থল ত্যাগকারীদের তালিকা চায় মন্ত্রণালয় নাসিরনগরে শিশু নিহতের ঘটনায় গ্রেফতার ২ দেশে ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত, আরো ৮ মৃত্যু
  • সোমবার   ০১ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৯ ১৪২৭

  • || ০৯ শাওয়াল ১৪৪১

৭৯

পাহাড়-সমুদ্র-জঙ্গল দেখতে শাহপরীর দ্বীপে

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ২৯ অক্টোবর ২০১৯  

এই সময়ে ঘুরে আসতে পারেন শাহপরীর দ্বীপ থেকে। পাহাড়, সমুদ্র, নদী ও জঙ্গল–এসবের অনিন্দ্য রূপ যে কারো মনকে সুন্দরভাবে সাজিয়ে তুলতে পারবে নিমিষেই। দেশের মূল ভূখন্ডের সর্বদক্ষিণের অংশ শাহপরীর দ্বীপ। পর্যটন নগরী কক্সবাজার জেলার টেকনাফ উপজেলার বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে অবস্থিত এই দ্বীপ। এটি মূলত সাবরাং ইউনিয়নের একটি গ্রাম। টেকনাফ উপজেলা শহর থেকে শাহপরীর দ্বীপের দূরত্ব প্রায় ১৫ কিলোমিটার। এখানকার মানুষের প্রধান পেশা মাছধরা ও লবণ চাষ। দ্বীপে হাট-বাজার, স্কুল-মাদ্রাসা ও মসজিদ–সবই আছে।

কী দেখবেন শাহপরীর দ্বীপে?

দেখার চোখ থাকলে তো সবকিছুই সুন্দর! শাহপরীর দ্বীপে দেখার মতো অনেক কিছুই আছে। নান্দনিক সৌন্দর্যের চিরায়ত রূপ বহমান এ দ্বীপে তিনটি সৈকত রয়েছে। তবে সৈকতগুলোতে নেই কোনো লাইফ গার্ডের ব্যবস্থা। তাই জোয়ার-ভাটার সাংকেতিক কোনো চিহ্নও থাকে না। একারণে যদি আপনি সমুদ্রে গোসল করতে চান তবে সৈকতে নামার আগে থেকেই নিজ দায়িত্বে জোয়ার-ভাটা সম্পর্কে জেনে নেবেন। কোনো অবস্থাতেই ভাটার সময় সমুদ্রে নামবেন না।

নির্জন দ্বীপ গোলার চরে দেখতে পারেন জোসনার লুকোচুরি। এখান থেকে দেখা যায় মায়ানমারের মঙডু প্রদেশ। আরকানের পাহাড়গুলো আর জনমানবহীন গ্রামে বার্মিজ সেনাচৌকিগুলো। আরেকটু সামনে থেকে দেখা যায় সেন্টমার্টিন দ্বীপ। জেলেপাড়ার ছোট ছোট কুঁড়েঘরগুলো প্রেরণা জোগাবে বেঁচে থাকার এবং সাহস নিয়ে সামনে এগিয়ে যাবার।

 

শাহপরীর দ্বীপ

শাহপরীর দ্বীপ

শাহপরীর দ্বীপে দেখতে পাবেন দু’পাশে দিগন্তজোড়া লবনের মাঠ। তার পাশ দিয়ে এঁকে-বেঁকে চলে যাওয়া খাল চোখের সীমানা পেরিয়ে চলে গেছে বহুদূর। সেসব খালে আহারের খোঁজে চরে বেড়ায় গাংচিলের সাদা সারি। তাছাড়া জেলেপাড়ার পথ ধরে আগাতে দেখা পাবেন রাস্তার পাড়ের ম্যানগ্রোভ গাছ। যখন জোয়ার আসে তখন গাছগুলো কোমর পানিতে দাঁড়িয়ে থাকে।

যাওয়া-থাকা

ঢাকা থেকে সরাসরি টেকনাফে যেতে পারেন বা প্রথমে কক্সবাজার গিয়ে সেখান থেকে টেকনাফ যেতে পারেন। কক্সবাজার টেকনাফে নিয়মিত বাস যায়। আর মাইক্রোবাসগুলো ছাড়ে শহরের কলাতলী এবং টেকনাফ বাইপাস মোড় থেকে। টেকনাফ শহর থেকে জীপে বা সিএনজিতে চড়ে খুব সহজেই শাহপরীর দ্বীপে পৌঁছাতে পারবেন।

টেকনাফে থাকার জন্য বিভিন্ন ধরনের হোটেল রয়েছে। আপনি নিজের পছন্দ মতো হোটেল বেছে নিতে পারেন। আপনি চাইলে শাহপরীর দ্বীপে তাঁবু টানিয়ে থাকতে পারেন। তাছাড়া এখানে এলজিইডির একটি বাংলা রয়েছে। যাওয়ার আগে যোগাযোগ করলে থাকতে পারবেন।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ইত্যাদি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর