ব্রেকিং:
নবীনগর আসনে তৃনমূলে জনপ্রিয়তায় শীর্ষে ব্যারিস্টার জাকির আহাম্মদ বাঁশের সাঁকোই ভরসা তাদের নবীনগর পৌরসভায় ৯০ প্রার্থীর ২১ জনের মনোনয়ন বাতিল! পণ্যসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক নাসিরনগরে বার্ষিক পরিকল্পনা প্রনয়ন কর্মশালা অনুষ্ঠিত কসবা বর্ডার বাজারে ক্রেতাদের ভিড়-টিকেট সংখ্যা বৃদ্ধির দাবী মটোরসাইকেল দূর্ঘটনায় রেফাতুল ইসলাম উদয় এর অকাল মৃত্যু সরাইলে বঙ্গবন্ধু ফুটবল টুর্নামেন্টে সরাইল সদর ইউনিয়ন চ্যাম্পিয়ন বিজয়নগরে গণধর্ষণের শিকার প্রতিবন্ধী নারী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সাংবাদিক মো:বাহারুল ইসলাম মোল্লাকে শুভেচ্ছা পাকিস্তানের ভিত কাঁপিয়ে দেওয়া স্লোগান জয় বাংলার ইতিহাস বিজয়নগরে চিকিৎসা সেবা ব্যাহত নবীনগরে শিশু ফাতেমার খুনি ধর্ষকের ফাঁসির দাবীতে মানববন্ধন গুরুদাসপুরে বিনামূল্যে অপারেশন বারের লিখিত পরীক্ষায় অনুত্তীর্ণদের এমসিকিউ দিতে হবে না প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের ফল প্রকাশ ভিকারুননিসার নতুন অধ্যক্ষ ফওজিয়া রেজওয়ান বস্ত্রখাতের রফতানি ৫০ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করার লক্ষ্যমাত্রা ডিসি কাণ্ডে কঠোর অবস্থানে সরকার মন্ত্রীর ব্যানার ছিটকে পড়ে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার তরুণীর মৃত্যু

মঙ্গলবার   ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ১ ১৪২৬   ১৭ মুহররম ১৪৪১

২১৩২৭

পরিবর্তন চাই নাকি উন্নয়ন?

প্রকাশিত: ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮  

পরিবর্তন চাই বলে যারা গলা ফাটাচ্ছেন তাদের জন্য কিছু কথা। বিএনপি যদি ক্ষমতায় আসে তবে তাদের কাজ কি হবে? আগামী পাঁচ বছর তারা কি করবে? চলুন জেনে নেওয়া যাক-

১ম বছরঃতাদের নেত্রী যিনি কিনা দন্ডপ্রাপ্ত হওয়ার কারনে নির্বাচনে অংশগ্রহনের বৈধতা হারিয়েছেন তাকে জেল থেকে বের করবে। এমাজউদ্দীন আহমেদ বলেছেন, বিএনপি নির্বাচিত হওয়ার ৭২ ঘন্টার ভিতরেই খালেদা জিয়াকে বের করে প্রধানমন্ত্রী বানানো হবে। দুর্নীতি, অর্থ পাচার ও সন্ত্রাসী হামলার দন্ডপ্রাপ্ত আসামী তারেক রহমানকে জামিনে লন্ডন থেকে দেশে নিয়ে আসবে। তার পর মা-ছেলে মিলে দেশ ধ্বংসের নীলনকশা তৈরীতে ব্যস্ত হয়ে পড়বে। আর দেশের উন্নয়ন? সেটা করার জন্য তো আরও ৪ বছর আছেই। 

২য় বছরঃস্বাধীনতা বিরোধী, দুর্নীতি, ধর্ষন, মাদক ব্যবসা, হত্যা, ছিনতাই,রাহাজানি ইত্যাদি মামলায় তাদের যত নেতাকর্মী জেলে আছে বা দন্ডপ্রাপ্ত হয়েছে তাদের সকলকে জামিনে মুক্ত করবে। আইন পরিবর্তন করে তাদের মুক্ত করতে করতে ১ বছর বা তার বেশী সময়ও লাগতে পারে। উন্নয়নের জন্য তো আরো তিন বছর আছেই।

৩য় বছরঃগত দশ বছরে যে সকল নেতাকর্মী আদর্শ বিসর্জন দিয়ে আওয়ামীলীগে যোগ দিয়েছে তাদেরকে আবারও নিজেদের আদর্শে উজ্জ্বিবিত করে দলে ফিরিয়ে এনে দলকে ভারি করবে। বাকি দুই বছর দেশ নিয়ে চিন্তা করা যাবে।

৪র্থ বছরঃ নেতাদের জেল থকে মুক্ত করতে, নেতাদের নিজ ডেরায় ফিরিয়ে আনতে তারা যে পরিমান অর্থ খরচ করেছে সেই অর্থগুলো পুনরায় নিজেদের পকেটে পুরতে তারা তাদের দিন রাত এক করে দেবে। দেশের কথা ভাবার সময় কোথায়?

৫ম বছরঃ এবার তারা চিন্তা করবে সামনে নির্বাচন, নির্বাচনের খরচ যোগাতে হবে। সেজন্য আরও বেশী করে লুটতরাজ, দুর্নীতি চালিয়ে যাবে আর হামলা,মামলা ও হত্যার মতো ঘটনা ঘটিয়ে বিরোধী শক্তিকে দমন করে পুনরায়কিভাবে ক্ষমতায় আসা যায় সেই চিন্তায় লিপ্ত থাকবে । দেশের উন্নয়ন নিয়ে ভাবার সময় কোথায়?

তাহলে দেশের কি হবে? উন্নয়নের কি হবে? দেশ এগিয়ে যাওয়ার পরিবর্তে পিছিয়ে যাবে আরও ১০ বছর।কারন বিএনপি উন্নয়ন নয় ভোগের রাজনীতিতে বিশ্বাসী।

আপনার আমার ভোটেই সরকার গঠিত হয়। কোনো দলের হয়ে চিন্তা না করে দেশের হয়ে একবার চিন্তা করে দেখুন তো, দেশের সেবা করার নামে আমরা কি দেশকে লুটেরাদের হাতে তুলে দেবো? নাকি যারা প্রকৃতপক্ষেই দেশের উন্নয়ন করতে চায় তাদেরকে আবারও সুযোগ দিবো? সিদ্ধান্ত আপনার, আমার, আমাদের নিজেদের।

আমরা দেশের উন্নয়ন চাই, দেশকে দূর্নীতিবাজদের হাতে দেখতে চাই না।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর