ব্রেকিং:
প্রতিদিন কয়েকবার গরম পানির ভাপ নিয়েছি করোনায় ব্যতিক্রমী উদ্যোগ এমপিওভুক্তির সুখবর পেল ১৬৩৩ স্কুল-কলেজ ২০ হাজারের বেশি আইসোলেশন শয্যা প্রস্তুত রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে মানুষ, দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে বৈশ্বিক ক্রয়াদেশ পূরণে সক্ষম বাংলাদেশ ॥ শেখ হাসিনা লোকসান ঠেকাতে সরাসরি ক্ষেত থেকে সবজি কিনছে সেনাবাহিনী করোনা পরীক্ষায় দেশে চালু হলো প্রথম বেসরকারি ল্যাব যে দোয়ার আমলে স্মরণশক্তি বৃদ্ধি পাবে ইনশাআল্লাহ! আল্লাহ তিন ধরনের লোকের দোয়া ফিরিয়ে দেন না করোনা রোগীদের বাড়ি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার ভেন্টিলেটর-সিসিইউ স্থাপনে জরুরি প্রকল্প বঙ্গবন্ধুর মতো নেতা পৃথিবীতে খুব কম দেখা যায়: ট্রাম্প গবেষণা প্রটোকল জমা না দিয়েই বিষোদগার করছেন জাফরুল্লাহ জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচিতে নিয়োগ করোনা আক্রান্তের শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ ঘরেই পরীক্ষার উপায় মধ্যবিত্তরাও খাদ্যসহায়তার আওতায়: শিল্প প্রতিমন্ত্রী কর্মস্থল ত্যাগকারীদের তালিকা চায় মন্ত্রণালয় নাসিরনগরে শিশু নিহতের ঘটনায় গ্রেফতার ২ দেশে ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত, আরো ৮ মৃত্যু
  • বুধবার   ১৫ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ৩১ ১৪২৭

  • || ২৩ জ্বিলকদ ১৪৪১

১৩২

নিখোঁজের ২ দিন পর নৌ শ্রমিকের লাশ উদ্ধার

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ২৫ এপ্রিল ২০২০  

সরাইলে মেঘনা নদী থেকে ইয়াছিন মিয়া (১৯) নামের এক নৌ শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ শুক্রবার বেলা পোনে ১২টার দিকে অরূয়াইলের মেঘনা নদীর ব্রীজের নীচ থেকে তার মরদেহটি উদ্ধার করা হয়েছে। ইয়াছিন অরূয়াইল ইউনিয়নের ধামাউড়া গ্রামের সুরূজ আলীর ছেলে। পুলিশ ও নিহতের স্বজনরা জানায়, রাণিদিয়া গ্রামের মুখলেছ মিয়ার ষ্টীলের তৈরী মাটি কাটার নৌকায় কাজ করত ইয়াছিন।

নিয়মিত রাতে নৌকায়ই থাকত সে। গত ২২ এপ্রিল বুধবার সকাল ১০টায় বাড়ি থেকে বের হয়ে নৌকায় আসে ইয়াছিন। সারা দিন শেষে রাত ১০টায় নৌকার মালিক মুখলেছ মিয়া তার মুঠোফোন থেকে নিহতের ফুফু রেজিয়া বেগমের মুঠোফোনে (০১৭০৩-৩১৯৯৬৮) ফোন দিয়ে ইয়াছিন নিখোঁজের বিষয়টি জানান। রেজিয়া বেগম নিখোঁজের বিষয়টি সারা দিন শেষে কেন রাত ১০টায় জানানো হল? এর কারণ জানতে চান রেজিয়া।


ওই রাতে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজে ইয়াছিনের কোন সন্ধান পায়নি পরিবার ও স্বজনরা। ছেলে নিখোঁজের ঘটনায় মা বাবা সহ পুরো পরিবারে বিরাজ করছে হতাশা। আজ শুক্রবার বেলা পোনে ১২টার দিকে অরূয়াইল পাকশিমুলের মাঝে মেঘনা নদীর উপর স্থাপিত ব্রীজের নীচে লোকজন একটি লাশ পানিতে ভাসতে দেখে চিৎকার করতে থাকেন। অরূয়াইল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই মো. কামরূজ্জামান সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে এসে নদী থেকে লাশটি উদ্ধার করেন। পরে নিহত ইয়াছিনের স্বজনরা এসে লাশটি সনাক্ত করেন। তাদের অভিযোগ নৌকার মালিক ও মাঝির উপর। তারা এ ঘটনায় মামলা করার কথা জানান। তাই ময়না তদন্তের জন্য পুলিশ ইয়াছিনের লাশটি সরাইল থানায় পাঠিয়ে দেন। নিহত ইয়াছিনের ফুফু রেজিয়া বেগম বলেন, ছেলেটি তাদের নৌকায় কাজ করে। প্রতি রাতে নৌকা-ই থাকত ইয়াছিন। বুধবার সারা দিন শেষে রাত ১০টায় কেন আমাকে ফোন দিয়ে ইয়াছিন নিখোঁজের কথা জানালেন মালিক মুখলেছ ও মাঝি সেলিম? এখানে আমাদের সন্দেহ হচ্ছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এ ঘটনায় নিহতের বাবা সুরূজ আলী বাদী হয়ে মামলা দায়েরের প্রস্তুতির কথা জানিয়েছেন রেজিয়া বেগম। এ বিষয়ে কথা বলতে মুখলেছ মিয়ার  নম্বর না পাওয়ায় তার আপন বড় ভাই মো. জসিম উদ্দিনের মুঠোফোনে (০১৭১২-২২৯৬২৩) যোগাযোগ করলে বলেন, মুখলেছ আমার ছোট ভাই। তার নম্বরটা আমার কাছে এই মূহুর্তে নেই। চেষ্টা করে দেখি নম্বরটা পায় কিনা। মুখলেছের উপর ইয়াছিনের স্বজনদের অভিযোগের কথা জানালে তিনি বলেন, এ বিষয়ে কিছু বলার নেই। আন্দাজি একটা কথা বললেই তো হবে না। অরূয়াইল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই মো. কামরূজ্জামান বলেন, নদী থেকে যুবকের লাশ উদ্ধারের পর মা সহ স্বজনরা সনাক্ত করেন এটা ইয়াছিনের লাশ। তারা মামলা করবেন বলে জানান। তাই ময়না তদন্তের জন্য লাশ পাঠিয়ে দিয়েছি।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ব্রাহ্মণবাড়িয়া বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর