ব্রেকিং:
বোর্ড পরীক্ষায় সফলতার বিকল্প নেই ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গাঁজাসহ এক নারী ধরা আখাউড়ায় অর্ধশতাধিক স্থাপনা উচ্ছেদ সিটি নির্বাচন: দুই হাজার মণ পলিথিন বর্জ্য তৈরির শঙ্কা নবীনগরে চলছে কোরআন তেলাওয়াত প্রতিযোগিতা ভাইরাসবাহী সন্দেহে বাংলাদেশীকে ফেরত পাঠালো ভারত একমাত্র ছেলের ছবি বুকে জড়িয়ে রাস্তায় মা মরদেহ আনতে আখাউড়া বর্ডারে হাজার হাজার মানুষ লেবাননে সড়ক দুর্ঘটনায় কসবায় শোকের মাতম প্রতিবন্ধিতা ও বৈষম্যহীন স্বদেশ, কুষ্ঠমুক্ত হোক আমাদের বাংলাদেশ জমে উঠেছে নবীনগর শিক্ষক সমিতির নির্বাচন অটোরিকশা চার্জ দিতে গিয়ে কিশোরের মৃত্যু আখাউড়ায় মাদকসহ ব্যবসায়ী আটক লুকানো গাঁজাসহ মামা-ভাগিনা আটক অসহায় শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ পুকুর দূষণ রোধে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন করোনার চিকিৎসায় এইডসের ওষুধ, সুস্থ হলেন ৪৯ জন! রাতের ঢাকায় মিজানুরের মতো আরো তিন জনকে হত্যা করে তারা নারীদের সুরক্ষা দেবে জাবি শিক্ষার্থীর বানানো ‘অ্যালাই’ গ্রাহককে জিম্মি করে কোটিপতি ইভ্যালি

মঙ্গলবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ১৫ ১৪২৬   ০২ জমাদিউস সানি ১৪৪১

৯৭

ধরা খেলো ভয়ঙ্কর ডাব বিক্রেতা চক্র!

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ২৯ আগস্ট ২০১৯  

ডাবটা নিতে খুব অনুনয় করছিল এক বৃদ্ধ। তাই খুবই দয়া হয়েছিল। কিন্তু সেই ডাব খেয়েই আমার সব শেষ। জ্ঞান ফিরেছিল একদিন পর। বুধবার দুপুর দেড়টার দিকে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের উপকমিশনারের (দক্ষিণ) কার্যালয়ে এমন প্রতারণার শিকার হওয়ার গল্প বলছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাষা বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মেহেদী হাসান রকি।

রকি জানান, ঘটনাটি ঘটেছিল শনিবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম মহানগরীর নিউ মার্কেট এলাকায়। প্রায় ৮৫ বছর বয়সী লোকটার কাকুতি-মিনতি দেখে ডাবটি কিনে খান তিনি। আর সেটি খেয়েই বেহুঁশ। প্রায় ২৪ ঘণ্টা পর বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেলে জ্ঞান ফেরে তার। এ ঘটনায় সোমবার সন্ধ্যায় এসে নগরীর কোতোয়ালি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন তিনি।

মহানগর উপপুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) এস এম মেহেদী হাসান জানান, নগরীর বাকলিয়া ও কোতোয়ালি থানার বিভিন্ন এলাকায় বাসযাত্রী ও পথচারীদের কাছে কৌশলে নেশাজাতীয় দ্রব্য মেশানো ডাব বিক্রি করছে একটি চক্র। পরে ডাব খেয়ে অসুস্থ ব্যক্তির টাকা-পয়সা ও মোবাইলের মতো দামি জিনিসপত্র হাতিয়ে নিত তারা। 

শনিবার এ চক্রের শিকার হন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী মেহেদি হাসান রকি। সর্বশেষ সোমবার দুপুরে নগরীর নতুন ব্রিজ এলাকার ফল ব্যবসায়ী আমির হোসেনের কাছ থেকে একই উপায়ে টাকা-পয়সা হাতিয়ে নেয়। 
এসব অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কোতোয়ালি ও বাকলিয়া থানা পুলিশ যৌথ অভিযানে এ চক্রের চার সদস্যকে গ্রেফতার করে। 

ওই চার সদস্য হলো খুলনা জেলার নৈহাটি ইউনিয়নের বাসিন্দা আব্দুল চমেদ হাওলাদারের ছেলে শহিদুল ইসলাম, একই জেলার সোনাডাঙ্গা থানার জয়নাল সর্দারের ছেলে মো. বাবুল, পিরোজপুর জেলার মঠবাড়িয়া থানার বাসিন্দা রতন মিয়া এবং বরগুনা জেলার মধ্য আমতলীর বাসিন্দা আব্দুর রহিমের ছেলে মো. হারুন। 

এর মধ্যে বাবুল ও শহিদুল সমপর্কে শালা-দুলাভাই। রতন মিয়া বাবুলের ফুফা শ্বশুর এবং হারুন শহিদুলের বন্ধু। এ সময় তাদের কাছ থেকে ক্লোনাজিপাম সিরিজের এপিট্রা-২ ও লোনাজেপ-২ নামের ৪২০ পিস চেতনানাশক ঘুমের ওষুধ ও ১৫টি সিরিঞ্জ জব্দ করা হয়। 

উপপুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) এস এম মেহেদী হাসান বলেন, বৃদ্ধ রতন মিয়া আর তার সাঙ্গ-পাঙ্গরা ডাবে আগে থেকেই ২০টিরও বেশি ক্লোনাজিপাম নামের ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে রেখেছিল। সেই ডাব খাওয়ানো হয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী রকিকে। এতে তার মৃত্যুও হতে পারতো।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর