ব্রেকিং:
টয়লেট চেপে রাখলে নারীদের যে ভয়ানক রোগ হয় কোরআন অবমাননা: সেফুদার সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের তৈরি রোবট জানাবে আবহাওয়ার পূর্বাভাস গোলাপি বলের সাতকাহন মায়ের সঙ্গে তিন বছর ধরে শিকলবন্দী আওলাদ! প্রপার ভেন্যু পেলে ‘এই শীতেই’ বিয়ে: সৃজিত গতি বাড়াতে কম্পিউটারে প্রচলিত হার্ডডিস্কে সলিড স্টেট ড্রাইভ অজুর যতো দোয়া ও আমল ছয় রোগের সমাধান এক বীজে আশ্চর্য, গাছের গোড়ায় নয় ডগায় পেঁয়াজ! সারাদেশে পরিবহন ধর্মঘট, ভোগান্তিতে জনগণ পিএসসিতে প্রক্সি, ১৯ শিক্ষার্থী বহিষ্কার আশুগঞ্জ থেকে সাত জেলায় সার সরবরাহ বন্ধ লবন নিয়ে তুলকালাম! পরিবহন ধর্মঘট থেকে মুক্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়া গুজব ছড়িয়ে লবনের মূল্য বৃদ্ধি লবনের গুজব প্রতিরোধে মাঠে ভ্রম্যমান আদালত লবণের দাম বাড়েনি বলে ইউএনও’র মাইকিং হারিয়ে যাওয়া শিশুকে পরিবারের নিকট হস্তান্তর মুক্ত দিবসে আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিল

বুধবার   ২০ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৬ ১৪২৬   ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

৬৩৬

ড্রেজার ব্যবহারে হুমকীর মুখে মহাসড়ক

প্রকাশিত: ২৩ অক্টোবর ২০১৯  

বছরের পর বছর ধরে চলছে হাইকোর্ট কর্তৃক নিষিদ্ধ হ্যান্ড ড্রেজার ব্যবহার করে ফসলি জমি খনন। জমির গভীর তলদেশে পাইপ বসিয়ে উত্তোলন করা হচ্ছে বালি। প্রতিদিন ৪টি ড্রেজার বসিয়ে ৩ থেকে ৪ হাজার ফুট বালু উত্তোলণ করে মাসে কয়েক কোটি টাকার বালু বিক্রি করছে একটি প্রভাবশালী মহল। এতে প্রায় ৬ হেক্টর ফসলি জমি বিনষ্ট হয়েছে। হরহামেশাই বালু তোলায় আশে পাশে জমির মাটি ধ্বসে পড়ছে। হুমকীর মুখে পড়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়ক। 

জমির পাশে অবস্থিত ৩৩ কেভি বৈদ্যুতিক খুঁটিও যে কোন সময় ধ্বসে পড়তে পারে। গত ৫ বছর ধরে অবিরাম চলছে ড্রেজার দিয়ে জমির নীচ থেকে বালু উত্তোলন। কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার তিনলাখ পীর এলাকায় সৈয়দাবাদ গ্রামে চলছে ভয়াবহ এ ড্রেজিং কাজ। 

প্রভাবশালী একটি মহল জমির মধ্যে পাইপ বসিয়ে বালি উঠাচ্ছে। এতে ফসলি জমি তো বটেই আশপাশের বাড়িঘরও ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। সরকারী দলীয় কতিপয় নেতাকর্মীরা রাস্তার পূর্বপাশে সরকারি খাস জমি ও ব্যক্তি মালিকানার ২৫ বিঘা ফসলি জমির নীচ থেকে অর্ধশত ফুট গভীর করে অবৈধ ড্রেজার দিয়ে একটি প্রতিষ্ঠানের বালি নেয়া হচ্ছে। 

এদিকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের প্রতিবাদে মঙ্গলবার এলাকাবাসী বিক্ষোভ করেছে। পরে মানববন্ধন করে। এ সময় সংক্ষিপ্ত এক সভায় ফসলি জমি থেকে বালি উত্তোলণ বন্ধ করে জমি রক্ষার দাবি জানানো হয়। 

এ ব্যাপারে কসবা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের কাছে ভুক্তভোগীরা প্রতিকার চেয়ে আবেদন করলেও কোন প্রতিকার পাচ্ছেন না বলে তারা জানান। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ উল আলম জানান,  ইতিপূর্বে বেশ কয়েকবার ড্রেজার জব্দ করা হয়েছে। কিন্তু কাজ হয়নি। শিগগিরই আমরা কঠিন ব্যবস্থা গ্রহণ করব।  

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর