ব্রেকিং:
আখাউড়ায় বিশেষ অভিযানে ছয় আসামি গ্রেফতার বিয়ের দিন লিচুর চারা রোপণ করলেন বর-কনে স্কুলছাত্রী ধর্ষণ মামলায় দুইজনকে গ্রেফতার শেষ হলো ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সপ্তাহব্যাপী বইমেলা ব্রাহ্মণবাড়িয়া পলিটেকনিকে চিকিৎসকের বিকল্প রোবট আবিষ্কার! জুয়া বন্ধের পূর্ণাঙ্গ রায়ে কোরআনের রেফারেন্স গার্মেন্টস ওয়েস্ট থেকে সেনিটারি প্যাড! বারবার রিফ্রেশে কি কম্পিউটারের গতি বাড়ে? নারী ও শিশুদের রক্ষায় অ্যাপ চালু হচ্ছে: আইজিপি বৃষ্টি নিয়ে দুঃসংবাদ জানালো আবহাওয়া অফিস ইংরেজি উচ্চারণে যারা বাংলা বলে তাদের সমালোচনা করলেন প্রধানমন্ত্রী দেয়ালে আঁকা ছবিতেই ফুল দিলো ৯৯৪ স্কুলের শিক্ষার্থী ভাষা দিবসে বাংলায় রিপোর্ট প্রকাশ করল জাতিসংঘ মুজিববর্ষে চালু হচ্ছে নতুন নতুন শিল্পকারখানা স্কুল জীবনে কলাগাছ দিয়ে শহীদ মিনার বানানোর অনুভূতি বাজার ব্যবস্থাপনা নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মতবিনিময় সভা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অভিনব পন্থায় গাঁজা পাচার ‘নিয়মিত সার পেতে সংশ্লিষ্টদের আন্তরিক হতে হবে’ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার অটোরিকশার কারখানা সিলগালা, মালামাল জব্দ
  • শনিবার   ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ||

  • ফাল্গুন ১০ ১৪২৬

  • || ২৭ জমাদিউস সানি ১৪৪১

৯৪

চিকিৎসার নামে প্রতারণা: সব রোগের ওষুধ, বিফলে মূল্য ফেরত!

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

কুমিল্লায় সব রোগের ওষুধ বিক্রি করে থাকেন আলমগীর হোসেন। এই ওষুধের জন্য কোনো টেস্ট বা পরীক্ষা করাতে হয় না। রোগীর কথা শুনেন আর ওষুধ দিয়ে থাকেন। তার এসব ওষুধ কোনো কোম্পানির নয়, সবই বিভিন্ন গাছগাছালির।  

সপ্তাহের একেকদিন জেলার ১৭টি উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে বসেন তিনি। চারদিকেই থাকে ওষুধ ও ঔষধি গাছের নানান পসরা সাজান।

শনিবার কুমিল্লা রানীর বাজারে ঘরোয়া হোটেল সংলগ্ন এলাকায় দেখা যায়, বহেরা, আমলকি, হরিতকি, অর্শ্বগন্ধা, আকন্দপাতা, ধুতরা, কালোজিরা, ঘৃতকুমারী, অর্জুন, পুদিনা, নিমপাতা, লবঙ্গ, নয়নতারা, তুলশী, বাসক, অন্তমূলসহ আরো কতো ভেষজ গাছগাছালি মিশিয়ে হালুয়া বানিয়ে রোগীর অপেক্ষায় আছেন তিনি।

সর্ব রোগ আরোগ্য হয় এমন বক্তব্য নানা রঙ্গে, ঢংয়ে দিয়ে যাচ্ছেন। মাটির উপর বিছানা বিছিয়ে তার অস্থায়ী ফার্মেসি। অনেকে কাছে এসে বক্তব্য শুনে ফ্রি এক ডোজ ওষুধ খেয়ে চলে যাচ্ছে।

কেউতো আপনার ভেষজ ওষুধ কিনছে না এমন প্রশ্নের জবাবে আলমগীর বলেন, সব সময় তো ব্যবসা এক রকম যায় না। বংশগত ভাবেই এই ব্যবসা করে থাকি। দাদা এই ব্যবসা করেছেন, এরপর বাবা। বাবার পরে আমি। এক ভাই চট্টগ্রামে ব্যবসা করেন। অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় ব্যবসা এখন খারাপ যাচ্ছে।

উল্লেখযোগ্য কি কি রোগের উপকার হয় জানতে চাইলে তিনি কিছুটা বিরক্ত স্বরে বলেন, আপনিতো রোগের কথাটা বলেন না। খালি নানান রকম কথা জানতে চাইতেছেন। রোগ দিছে আল্লাহ সারাবেনও তিনি। আমরা উছিলা মাত্র। আল্লাহর রহমতে একজন মানুষের শরীরে এমন কোনো রোগ নেই যার চিকিৎসা বিভিন্ন গাছগাছালি দিয়ে হয়না। এটাকে বলে প্রাকৃতিক চিকিৎসা।

মানুষ আপনার ওষুধ খেয়ে ভালো হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, উপকার না হলে রোগীরা আমাদের কাছে কেনো আসে। আর আমাদেরই এই ব্যবসাই বা কিভাবে টিকে আছে।

আলমগীরের সঙ্গে কথা বলার সময় দেবিদ্বার উপজেলার বড় আলমপুর গ্রামের আলী আহসানের ছেলে ভ্যানচালক খুরশিদ আহমেদ বলেন, স্যার এদের কথা বিশ্বাস করবেন না। এরা এক জায়গায় প্রতিদিন বসে না। এক সময় একেক জায়গায় বসে। মানুষ ওষুধ কেনার সময় বলবে এখানে আমাকে প্রতিদিন পাবেন। উপকার না হলে জানাবেন। পরের সপ্তাহে এসে দেখি এখানে সে নাই।

ধর্মপুর এলাকার আলী হোসেন বলেন, তারা সারাক্ষণ ক্যাসেট বাজিয়ে রাখেন। ক্যাসেটে বলতে থাকেন এই গাছগাছালি সম্পর্কে ইসলাম কি বলছে ইত্যাদি। নবী ও রাসুলরাও যে গাছগাছালির সেবা নিতেন সে কথা বলে সাধারণ মানুষকে তারা ধর্মের দোহাই দিয়ে প্রতরাণা করছে।

আপনার এই ওষুধের কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি আছে কি না জানতে চাইলে আদর্শ সদর উপজেলার রসুলপুর রেলস্টেশনের আরেক ভেষজ ওষুধ বিক্রেতা জালাল উদ্দিন বলেন, বৈজ্ঞানিক টৈজ্ঞানিক জানি না। আমার বড় ভাই এই ব্যবসা করছে আমিও করতেছি। কমবেশি মানুষ উপকার পাচ্ছে। না পাইলে সারা দেশে হাজার হাজার ব্যবসায়ী আছে এটা করেই খায়। তাদের ব্যবসাতো আর টিকতো না।

আপনাদের ক্রেতা কারা জালালের কাছে জানতে চাইলে বলেন, শিক্ষিত মানুষ বা বড় লোকেরা আমাদের কাছে আইয়ে না। গরীব, দিনমজুর, ছোট ছোট ফেরিওয়ালা, রিকশা চালক আমাদের ক্রেতা।

কোন রোগী বেশি আসে জানতে চাইলে তিনি বলেন, স্বপ্নদোষ, কোমর ব্যাথা, মাজা ব্যাথা, ডায়বেটিকস,পেট ব্যাথা, চুলকানি, আলসার, বুক জ্বালা এসব রোগী বেশি আইয়ে।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে কুমিল্লার সিভিল সার্জন ডা. মো. মজিবুর রহমান বলেন, চিকিৎসা বিজ্ঞানে এসব চিকিৎসার কোনো ভিত্তি নেই। এক সময় শিক্ষার হার কম ছিল, মানুষ সচেতন ছিল না, তাই এই ব্যবসা জমজমাট ছিল। ধীরে ধীরে
মানুষ শিক্ষিত হচেছ, সচেতন হচেছ। এখন আসল নকল চিনতে পারে। তাই আগের তুলনায় এসব ব্যবসার চাহিদা কমে গেছে।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
সারাবাংলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর