ব্রেকিং:
ব্রিটেনের প্রধান গির্জায় কোরআন তিলাওয়াতের বিরল ঘটনা স্মার্টফোনের বদলি হিসেবে ‘স্মার্ট গ্লাস’ আনছে ফেসবুক এডিআর বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক আওয়ামী লীগের নেতারা দুর্নীতি করলে ছাড় নয়: কাদের জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাবাব ফাতেমা ভাবির পরকীয়া দেখে ফেলায় জীবন দিতে হলো দেবরকে সর্বোচ্চ শক্তি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে হামলার হুমকি ইরানের বেশি খাস জমি উদ্ধারকারী ডিসিকে পুরস্কৃত করা হবে: ভূমিমন্ত্রী বকেয়া পরিশোধে সময় পাচ্ছে রবি-গ্রামীণফোন ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজের ফাইনালে বাংলাদেশ স্বর্ণজয়ী রোমান সানার মায়ের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী জনগণের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে আন্তরিক সরকার: প্রধানমন্ত্রী আজ থেকে টানা তিন দিনের ছুটিতে আখাউড়া স্থল বন্দর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শিক্ষার্থী সম্পৃক্তকরণ বিষয়ক কর্মসূচি অনুষ্ঠিত সরাইলে কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির জনসচেতনতামুলক সভা অনুষ্ঠিত নবীনগরে পূর্ব বিরোধের জেরে জেঠাতো ভাইকে কুপিয়ে আহত বিজয়নগরে মৌলিক সাক্ষরতার উদ্বোতকরণ প্রতিযোগীতার পুরষ্কার বিতরন নাসিরনগরে ১৫১টি মন্ডবে অনুষ্ঠিত হবে দুর্গাপূজা সরাইলে বিদ্যালয় মাঠে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ, পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু নাসিরনগরে বৃত্তি পেল ৫১ মেধাবী শিক্ষার্থী

বৃহস্পতিবার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৪ ১৪২৬   ১৯ মুহররম ১৪৪১

১৬

চাঁদে ‘বাড়ি’ বানানোর কাজ কতদূর?

প্রকাশিত: ১ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

মানুষের মুখে প্রায়ই শোনা যায়, চাঁদ নিয়ে নানা কথা। সত্যিই, ঢাকায় রাস্তায় বসে চাঁদের চিন্তা করার মতো লোকের অভাব নেই! অনেকে তো প্রশ্নও জুড়ে দেন, চাঁদে বাড়ি বানানোর কাজ কতদূর? কবে থেকে বসবাস শুরু করা যাবে? উত্তরে এটুকু বলা যায়, চাঁদের পাড়াতেই দুই বা তিন বেডরুমের ‘বাড়ি’ বানাচ্ছে নাসা। মহাকাশ প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, সেখানে কোনো ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাস থাকবে না।

হ্যাঁ, চাঁদের বুকে বাড়ির মতো একটি মহাকাশ স্টেশন বানাচ্ছে নাসা। প্রথম ‘লুনার স্পেস স্টেশন’। নাসার ওই প্রকল্পের নাম- ‘গেটওয়ে টু মুন’ বা ‘আর্টেমিস’। তার প্রস্তুতি ইতোমধ্যেই শুরু হয়েছে খুব দ্রুত গতিতেই। এখন আমরা স্পেস স্টেশন বলতে যা বুঝি, সেই আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন (আইএসএস) রয়েছে পৃথিবী থেকে প্রায় ৩৭০ কিলোমিটার ওপরে। আর লুনার স্পেস স্টেশনটা নাসাকে বানাতে হচ্ছে পৃথিবী থেকে ৩ লক্ষ ৮০ হাজার কিলোমিটার দূরে।

নাসার জেট প্রোপালসান ল্যাবরেটরির ‘ইউরোপা’ মিশনের দলনেতা গৌতম চট্টোপাধ্যায় বলেন, খুব দ্রুত গতিতে কাজটা চলছে। নাসা চাইছে প্রথম পর্যায়ের কাজ ২০২২-২৩ সালের মধ্যেই শেষ করতে। শেষ পর্যায়ের কাজটা ২০২৮-এর মধ্যেই হয়ে যাক এমনটা চাইছে মার্কিন প্রশাসন।

তিন বছরের মধ্যে ‘বাড়ি’ নির্মাণের কাজ অনেকটা শেষ হবে ঠিকই। কিন্তু অনেকের তো ইচ্ছে এখনই মহাকাশ থেকে ঘুরে আসার! তাদের জন্য একটা প্যাকেজ চালু আছে। নাসা জানিয়েছে, তারা বছরে দু’বার আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্রে পর্যটক পাঠাবে। মহাকাশ যাত্রা করতে মার্কিন নাগরিকত্ব থাকা বাধ্যতামূলক নয়। এই যাত্রায় পর্যটকের প্রায় ৫৮ মিলিয়ান মার্কিন ডলার খরচ হবে।

চলতি বছরের শেষের দিকে স্পেসএক্স আর বোয়িং এর ট্রান্সপোর্ট ক্যাপসুল তৈরি শেষ হবে। এরপর পরীক্ষামূলকভাবে এই ক্যাপসুলগুলো মহাকাশে পাঠানো হবে। ২০২০ সালে বাণিজ্যিকভাবে পর্যটকদের মহাকাশে পাঠানো যাবে। তারপর ‘বাড়ি’ নির্মিত হলে হয়তো নতুন কোনো প্যাকেজ চালু করবে নাসা!

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর