ব্রেকিং:
প্রতিদিন কয়েকবার গরম পানির ভাপ নিয়েছি করোনায় ব্যতিক্রমী উদ্যোগ এমপিওভুক্তির সুখবর পেল ১৬৩৩ স্কুল-কলেজ ২০ হাজারের বেশি আইসোলেশন শয্যা প্রস্তুত রয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে মানুষ, দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে বৈশ্বিক ক্রয়াদেশ পূরণে সক্ষম বাংলাদেশ ॥ শেখ হাসিনা লোকসান ঠেকাতে সরাসরি ক্ষেত থেকে সবজি কিনছে সেনাবাহিনী করোনা পরীক্ষায় দেশে চালু হলো প্রথম বেসরকারি ল্যাব যে দোয়ার আমলে স্মরণশক্তি বৃদ্ধি পাবে ইনশাআল্লাহ! আল্লাহ তিন ধরনের লোকের দোয়া ফিরিয়ে দেন না করোনা রোগীদের বাড়ি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার ভেন্টিলেটর-সিসিইউ স্থাপনে জরুরি প্রকল্প বঙ্গবন্ধুর মতো নেতা পৃথিবীতে খুব কম দেখা যায়: ট্রাম্প গবেষণা প্রটোকল জমা না দিয়েই বিষোদগার করছেন জাফরুল্লাহ জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচিতে নিয়োগ করোনা আক্রান্তের শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ ঘরেই পরীক্ষার উপায় মধ্যবিত্তরাও খাদ্যসহায়তার আওতায়: শিল্প প্রতিমন্ত্রী কর্মস্থল ত্যাগকারীদের তালিকা চায় মন্ত্রণালয় নাসিরনগরে শিশু নিহতের ঘটনায় গ্রেফতার ২ দেশে ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত, আরো ৮ মৃত্যু
  • রোববার   ০৭ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২৪ ১৪২৭

  • || ১৪ শাওয়াল ১৪৪১

৮৮

ঘরে বাজার না থাকা খেলোয়াড়দের পাশে দাঁড়ালেন তামিম

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ২৯ এপ্রিল ২০২০  

নভেল করোনাভাইরাসে বিপর্যস্ত, দুর্গত মানুষদের পাশে অনেকেই দাঁড়াচ্ছেন নানাভাবে। কেউ কেউ স্থাপন করছেন নানা দৃষ্টান্ত। তার মধ্যে অন্যতম বাংলাদেশ জাতীয় ওয়ানডে ক্রিকেট দলের অধিনায়ক তামিম ইকবাল। শুরু থেকেই বিভিন্নভাবে সহায়তার পর এবার দাঁড়ালেন বিভিন্ন খেলার ৯১ জন অসহায় খেলোয়াড়ের পাশে। এই দুঃসময়ে তামিমের এমন সহযোগিতা পেয়ে আপ্লুত সবাই, কেউ কেউ কেঁদেও ফেলেছে।

দুর্যোগের শুরুতেই বেতনের অর্ধেক দান করেছিল বাংলাদেশের ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) চুক্তিতে থাকা ক্রিকেটাররা। যেটা সামনে থেকেই নেতৃত্ব দিয়েছিলেন তামিম। এরপর বিভিন্ন মানুষের নানা উদ্যেগে হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন এই বাঁহাতি ওপেনার। নাফিসা খান নামে এক স্বেচ্ছাসেবীর উদ্যোগে সহায়তা বেশ আলোচিত হয়। এই নাফিসা তামিমের দেওয়া উপহার মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে দিয়েছিলেন। এবার যেটা করলেন সেটা আরও ব্যতিক্রম। হকি-ফুটবল-সাঁতার থেকে শুরু করে বাংলাদেশের সবধরনের ৯১ জন সাবেক-বর্তমান খেলোয়াড়কে সহায়তা করেন তামিম।

তামিমের এই উদ্যোগে সমন্বয়কারীর ভূমিকা পালন করেন তার বন্ধু ও ওয়ালটন সেন্ট্রালজোনের সহকারী কোচ হুমায়ূন কবীর শাহীন। মঙ্গলবার বিকেলে মুঠোফোনে তামিমের এই মহৎ উদ্যোগের কথা বলতে গিয়ে আপ্লুত হয়ে পড়েন শাহীন।

শাহীন বলেন, ‘আমি ক্রিকেট কোচ হলেও সবার আগে তামিম আমার বন্ধু। আমার অবশ্যই গর্ব হচ্ছে। আমি ভাষায় প্রকাশ করতে পারব না। যেসব ছেলেদের টাকা পাঠানোর পরে কেঁদে ফেলছে, বাজার করে আবার ফোন দেয়, যে এই টাকা দিয়ে আবার বাজার করলাম, চলতে পারছিলাম না ভাই। তখন নিজের কাছে একটু খারাপই লাগে। তামিমকে আমি এজন্য স্যালুট জানাই। বন্ধু হিসেবে ওর প্রতি আমার বুক ভরা ভালোবাসা ও শুভেচ্ছা রইল। আল্লাহ ওকে বড় করুক।’

কীভাবে তাদের বাছাই করা হয়েছে- এই প্রশ্নে তামিমের বন্ধু বলেন, ‘তামিম আমাকেসহ আরও কয়েকজন বন্ধুকে বলেছিল, কী অবস্থা দেখতে। সব গেমসের খোলোয়াড়দের মধ্যে কারা খারাপ অবস্থায় আছে এগুলো খোঁজ নিতে বলেছিল। বাংলাদেশের যে প্রান্তেই থাকুক তাদের বের করার জন্য বলেছিল।’

বন্ধু তামিমের এমন উদ্যোগের কথা শুনে ঝটপট কাজে লেগে যান শাহীন। তিনিও তার বিকেএসপির বিভিন্ন বন্ধুদের ফোন দিয়ে খোঁজ নিতে শুরু করেন। ‘ফুটবলের তৌহিদুল আলম সবুজ, আমাদের বন্ধু। তাকে জিজ্ঞেস করলাম এরকম (খারাপ অবস্থায়) কেউ আছে কি না। সেও লিস্ট দিল। আমাদের সাঁতারের স্বর্ণজয়ী মাহফুজা আক্তার শিলা ও আমার বিকেএসপির বান্ধবীকে বললাম খোঁজ নিয়ে তালিকা দিতে। এরকমভাবে সবজায়গায় খোঁজ নিয়ে যাদের প্রয়োজন, চলতে পারছে না, খুব কষ্টে আছে তাদের বের করা হয়েছে। তারপর বিভিন্ন মাধ্যমে তাদের সহায়তা দেওয়া হয়েছে ’-এভাবেই বলছিলেন শাহীন।

তামিমের এই বন্ধু জানান, এই কাজ করতে গিয়ে কঠোর গোপনীয়তা অবলম্বন করা হয়। তামিমও চাইছিল না এটা নিয়ে কোনো সংবাদ হোক, মাতামাতি হোক। তামিম একজনকেও বলে নাই হেল্প করলাম। সে সবাইকে বলেছে বিপদের মুহূর্তে পাশে থাকলাম, একটু শরিক হলাম। সবাই তামিমের এমন সহায়তা পেয়ে অনেক খুশি।

খুব সংক্ষিপ্ত সময়ের মধ্যে এ প্রক্রিয়া শেষ করা হয়েছে। কারণ তামিমের মাথায় ছিল রোজা এসে গেছে। ৯১ জনকে কী পরিমাণ সহায়তা করা হয়েছে? এমন প্রশ্ন করতেই শাহীন অনুরোধ করেন, এটা জানতে না চাইতে। তার ভাষ্য, একটা ভালো অ্যামাউন্ট দেওয়া হয়েছে, যেটা দিয়ে বাজার করতে পারবে, কিছুদিন ভালোভাবে চলতে পারবে।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
খেলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর