ব্রেকিং:
দুর্ধর্ষ মাদক ব্যবসায়ী আটক সাংবাদিকতায় দেশ সেরা অ্যাওয়ার্ড পেলেন মিশু জেলা উন্নয়ন সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত বিষ প্রয়োগে সর্বশান্ত মৎস্য চাষী বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিবকে সংবর্ধনা পাঁচ দফা দাবিতে ফারিয়ার মানববন্ধন মসজিদের দেয়ালে ফাটল, আতঙ্কে মুসল্লিরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মাদক উদ্ধার মাদক বিরোধী প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত মাদকসেবীর হুমকিতে স্কুলে যাওয়া বন্ধ শিক্ষার্থীর ফুটপাত দখলমুক্ত করলেন ইউএনও শারীরিক সক্ষম হলেই রক্তদান করবে শিক্ষার্থীরা একই তেলে বার বার রান্না ক্যান্সার ও হৃদরোগের কারণ বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণার ওপর জোর দেয়ার তাগিদ তথ্যমন্ত্রীর মুক্ত বাণিজ্য চুক্তিকে অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে: বাণিজ্যমন্ত্রী নারীর মনে জায়গা পাওয়ার উপায় পানিতে পড়া ফোন যেভাবে দ্রুত সারিয়ে তুলবেন যে কারণে ‘সুদ’ হারাম উদ্বোধন হলো শেখ কামাল ক্লাব কাপ আওয়ামী লীগের সম্মেলন মানেই নতুন মুখ: কাদের

সোমবার   ২১ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৫ ১৪২৬   ২১ সফর ১৪৪১

৫১

ঘন ঘন বৃষ্টির কারণে ডেঙ্গুর উৎপাত বেশি: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত: ১০ জুলাই ২০১৯  

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, ঘন ঘন বৃষ্টির কারণে এ বছর ডেঙ্গুর উৎপাত একটু বেশি। এ বৃষ্টির ফলেই ডেঙ্গু মশা বেশি উৎপাদন হচ্ছে। আমরা সারাদেশের হাসপাতালগুলোতে ডেঙ্গু রোগের চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়েছি। 

মঙ্গলবার সচিবালয়ে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ডেঙ্গু মোকাবিলায় জনগণকে সচেতন করার চেষ্টা করা হচ্ছে। আপনাদের মাধ্যমে আমরা সাধারণ মানুষের কাছে ডেঙ্গুর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় দিক-নির্দেশনা পৌঁছানোর চেষ্টা করছি। 

মন্ত্রী বলেন, এ বছর হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়া রোগীর সংখ্যা অনেক বেশি। আমরা হাসপাতালগুলোতে ডেঙ্গু রোগের পর্যাপ্ত চিকিৎসা ব্যবস্থা রেখেছি। 

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন এ বিষয়ে মিটিং করেছে জানিয়ে তিনি বলেন, তারা ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে। ডেঙ্গু মশা প্রতিরোধের জন্য স্প্রে প্রয়োগ করা হচ্ছে। 

তিনি বলেন, আমরা জনসাধারণের উদ্দেশে বলতে চাই, যাদের বাসার পাশে ডোবা-নালা রয়েছে সেখানে সিটি করপোরেশনের সঙ্গে যোগাযোগ করে দ্রুত স্প্রে করার ব্যবস্থা করবেন। 

ডেঙ্গু মশা প্রতিরোধে সিটি কর্পোরেশনের নেয়া উদ্যোগের বিষয়ে আপনি সন্তুষ্ট কি না-এমন প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আসলে এবার মশার পরিমাণ একটু বেশি। তবে উৎপাদনস্থলে যদি পর্যাপ্ত স্প্রে করা যায় তাহলে মশা বাড়বে না। 

এখন পর্যন্ত রোগীর সংখ্যা কত? এমন প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ সাংবাদিকদের বলেন, এ পর্যন্ত হাসপাতালগুলোতে ভর্তি হয়েছে ২ হাজার ৬২৬ জন রোগী। এরমধ্যে ৬ জুলাই ১৬৪ জন, ৭ জুলাই ১২৪ জন, ৪ জুলাই ১৩৩ জন এবং ৯ জুলাই ভর্তি হয়েছে ১০৫ জন রোগী। এ থেকে বোঝা যায় রোগীর পরিমাণ পর্যাক্রমে কমছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের ডিজি বলেন, সাধারণ মানুষের উদ্দেশে আমরা বলব, যে কোনো ধরনের জ্বর হলেই ডাক্তারের কাছে গিয়ে পরামর্শ নিতে। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে মানুষ জ্বর হলে গুরুত্ব কম দেয়। জ্বর হলে শুরুতেই যদি ডেঙ্গু হয়েছে কিনা এটা বোঝা যায় তাহলে চিকিৎসাও সহজে করা সম্ভব হয়। 

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর