ব্রেকিং:
পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষনা ২৬ অক্টোবর গ্রাহক সেবায় পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির উঠান বৈঠক ওসির হাতে রজনীগন্ধা চালকের মুখে হাসি দালাল নির্মূলে জেলা প্রশাসনের বিশেষ অভিযান অজ্ঞাত ব্যক্তির অর্ধ-গলিত লাশ উদ্ধার ৪ কেজি চালের দামে ১ কেজি পেঁয়াজ! মিড ডে মিলের টিফিন বক্স বিতরণ ড্রেজার ব্যবহারে হুমকীর মুখে মহাসড়ক নারীদের স্বাবলম্বী করতে ছাগল বিতরণ ‘জীবনের আগে জীবিকা নয়, সড়ক দূর্ঘটনা আর নয়’ হেফাজতে ইসলামের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ ট্রাফিক সেবায় নতুন মাত্রা যোগ ওটিটি প্লাটফর্ম ব্লেসবিট তৈরির স্বীকৃতি পেল টিকন বাঘের দেশের সমুদ্র সৈকত শিশুদের কৃমি হবার কারণ, লক্ষণ ও প্রতিরোধে করণীয় এক মিনিটেই খোলা যাবে ‘নগদ’ অ্যাকাউন্ট কেটে গেছে? জেনে নিন রক্তপাত বন্ধের সহজ উপায় মানসিক অসুস্থ আব্দুল্লাহ মুখস্ত করলেন পুরো কোরআন! (ভিডিও) মুখোমুখি ক্রিকেটার-বিসিবি, লাভ কার? সুস্মিতা সেন আজ ঢাকায় আসছেন

বৃহস্পতিবার   ২৪ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৮ ১৪২৬   ২৪ সফর ১৪৪১

৮৪৪

গুজবের বিরুদ্ধে ইসলামের কঠোর সতর্কবাণী

প্রকাশিত: ২৫ জুলাই ২০১৯  

সারাদেশে চলছে ‘ছেলেধরা’ গুজব। এতে অনেক সাধারণ নিরপরাধ মানুষ গণপিটুনিতে নিহত হয়েছেন। সারাদেশে এ নিয়ে আতঙ্ক বিরাজ করছে। গুজব সম্পর্কে ইসলাম কি বলে জেনে নিন। 

গুজব মানে রটনা, যার কোন ভিত্তি নেই। মূলত মানুষের মুখে মুখে এটি বেগবান হয়। ছড়িয়ে পড়ে মুহূর্তের মধ্যে। অনেক সময় গুজবের দাবানলে জ্বলে পুড়ে ছারখার হয়ে যায় সমাজের শান্তি-শৃংখলা। কখনও কেড়ে নেয় তাজা প্রাণ।

গুজব প্রথম কে ছড়ায়- প্রায় ক্ষেত্রেই তার কোন হদিস পাওয়া যায় না। মোবাইল ও ইন্টারনেটের যুগে গুজব ছড়ানো খুবই সহজ। আজকাল ইন্টারনেটভিত্তিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ও ব্লগগুলোয় গুজব ছড়িয়ে দেয়ার ঘটনা ঘটছে। 

কোনো বিষয়ে সঠিকভাবে কিছু জানা না থাকলে আন্দাজে তা না বলার জন্য আল্লাহ তায়ালা নির্দেশ দান করেছেন।

সূরা বনি ইসরাইলে আল্লাহ বলেন, ‘যে বিষয়ে তোমার নিশ্চিত বিশ্বাস নেই আন্দাজে তা প্রচার করো না। কেননা চোখ, কান ও অন্তুর এ সমস্তরই জবাবদিহিতা করতে হবে।’ 

আল্লাহ তায়ালা বলেছেন : ‘নিশ্চই সে সকল মোমেন সফলকাম হয়েছে, যারা নিজেরা নামাজে অনুনয়-বিনয় ও আল্লাহকে ভয় করে এবং যারাফজুল ও বেহুদা কথাবার্তা হতে বিরত থাকে।’ 

এ সকল আয়াত হতে ভিত্তিহীন প্রচারণা ও গুজব রটানোর ব্যাপারে সতর্কতা অবলম্বনের প্রায়োজনীয়তার কথা সহজে অনুমান করা য়ায়। 

নির্ভযোগ্য সূত্র ছাড়া এরূপ কোনো খবর কেউ প্রচার করলে সে সম্পর্কে আল্লাহ তায়ালা বলছেন, ‘হে মুসলমানগণ! যদি কোনো ফাসেক, মন্দ লোক কোনো খবর নিয়ে আসে, তাহলে তা যাচাই-পরীক্ষা করে দেখবে যেন অজ্ঞতাবশত: কোনো জাতির উপর আক্রমণ করা না হয়। এরূপ কাজ করলে তোমাদেরকে নিজেদের কার্যকলাপ সম্পর্কে অনুতাপ করতে হবে’। 

অর্থাৎ ফাসেক বা মন্দ লোকের খবর ততক্ষণ বিশ্বাসযোগ্য না, যতক্ষণ তা প্রমাণিত না হবে। কোরআনের এই সুনীতির অনুসরণ করা হলে গুজব রটনা বা মিথ্যা প্রচারণায় কোনো মুসলমান বিভ্রান্ত হতে পারে না।

সূরা হুজরাতে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘হে মোমেনগণ! অধিক সংশয় বোধ হতে বিরত থাকো। কেননা কোনো কোনো সংশয় পাপকার্যের অন্তুর্ভুক্ত।’ এতে প্রমাণিত হয় যে, যারা মুসলমানদেরকে সংশয়গ্রস্ত করে তোলে, তারা বড় পাপী। 

পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহ ইরশাদ করেন, ‘আর যে ব্যক্তি কোনো অপরাধ বা পাপ অর্জন করে, অতঃপর কোনো নির্দোষ ব্যক্তির ওপর তা আরোপ করে, তাহলে সে তো মিথ্যা অপবাদ ও প্রকাশ্য গুনাহের বোঝা বহন করল।’ (সুরা : নিসা, আয়াত : ১১২)

মিথ্যা বলা বা গুজব ছড়ানো মুনাফিকের আলামত। নবী করিম (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘মুনাফিকের আলামত তিনটি : ১. যখন সে মিথ্যা কথা বলে, ২. ওয়াদা করলে ভঙ্গ করে, ৩. আর যখন তার কাছে আমানত রাখা হয়, সে খেয়ানত করে।’ (বুখারি, হাদিস : ৩৩)

হজরত আবু হোরায়রা (রা:) কর্তৃক বর্ণিত; নবী করিম (সা.) বলেছেন, ‘সত্য সম্পর্কে তোমরা সংশয় সৃষ্টি হতে বেঁচে থাকো। কেননা সংশয় সৃষ্টি মিথ্যা কথা স্বরূপ।

হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা:) বর্ণনা করেছেন যে, রাসূলুল্লাহ (সা:) বলেছেন, ‘শয়তান মানুষের আকার ধারণ করে লোকের কাছে আসে এবং তাদের মধ্যে মিথ্যা কথা প্রচার করে। ফলে তারা দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়ে এবং তাদের মধ্য হতে কোনো লোক বলে ওঠে যে, আমি এক ব্যক্তির কাছে এরূপ বলতে শুনেছি, তার চেহারা দেখলে চিনি, কিন্তু তার নাম বলতে পারি না।’ (মুসলিম) 

মিথ্যা প্রচার ও গুজব রটনা সম্পর্কে হজরতের এই স্পষ্ট উক্তিটি বিচার-বিবেচনা করলে দেখা যাবে যে, গুজব রটনাকারীরা এই শয়তানি নীতিরই অনুসরণ করে থাকে। 

সুতরাং, গুজবে কান না দেয়া, গুজবে বিশ্বাস না করা। আর যাচাই-বাছাই, পরীক্ষা করে সংবাদ পরিবেশন, প্রচার ও প্রকাশ করা প্রত্যেকের দায়িত্ব।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া