ব্রেকিং:
‘আল্লাহর দল’র টার্গেটে ছিল পিলখানার ঘটনায় চাকরিচ্যুতরা আমি চাই সবার সঙ্গে মিশতে: প্রধানমন্ত্রী পানিতে তলিয়ে যেতে পারে জাকার্তা, বাঁচানোর কোনো উপায় নেই! সাত সপ্তাহ পর মন্ত্রিসভার বৈঠক রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন যেকোনো সময়: পররাষ্ট্র সচিব এডিস মশার বিরুদ্ধে ঢাকা উত্তরে ‘চিরুনি অভিযান’ সুস্থ হয়ে ফিরেছেন ৮৬ শতাংশ ডেঙ্গু রোগী ১০৯ নম্বরে ফোন পেয়ে বাল্যবিয়ে বন্ধ করেছে উপজেলা প্রশাসন স্বাধীনতা বিরোধীরা এখনো ষড়যন্ত্র করছে: আইনমন্ত্রী কর্মসৃজন প্রকল্পে দুর্নীতি, ২১ জেলায় দুদকের অভিযান ৯৯৯ এ ফোন করে উদ্ধার হলেন ২০০ লঞ্চ যাত্রী পাকিস্তানকে ছাড়িয়ে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি পশু কোরবানি বাংলাদেশে বন্যাদুর্গতদের পুনর্বাসনে রয়েছে ১২০ কোটি টাকা বরাদ্দ ঘুষদাতার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী হুজুর সেজে ধর্ষককে ধরলেন পুলিশ কর্মকর্তা বিয়ের অনুষ্ঠানে বোমা হামলা, নিহত বেড়ে ৬৩ ইন্দোনেশিয়া ও ফিলিপাইনের রমণীদের পছন্দ বাংলাদেশি ছেলে রোহিঙ্গা নির্যাতন তদন্তে ঢাকায় মিয়ানমারের তদন্ত দল ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ টাইগারদের হেড কোচ হলেন রাসেল ডমিঙ্গো

সোমবার   ১৯ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৪ ১৪২৬   ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

৩২

কোথায় হবে এরশাদের কবরস্থান, সিদ্ধান্ত হয়নি সভায়

প্রকাশিত: ৪ জুলাই ২০১৯  

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের কবরস্থান কোথায় হবে তা নিয়ে সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারেননি দলটির শীর্ষনেতারা।

বৃহস্পতিবার দুপুর তিনটার দিকে শুরু হয় জাপার প্রেসিডিয়াম ও এমপিদের যৌথসভা। চলে আড়াই ঘণ্টাব্যাপী।

এতে সভাপতিত্ব করেন জাপার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের। সভায় জাপার ৩৮ জন প্রেসিডিয়াম ও এমপিরা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় এরশাদের সর্বশেষ শারীরিক অবস্থা ও তার কবরস্থান কোথায় হবে তা নিয়ে হয় দীর্ঘ আলোচনা। 

সভার শুরুতেই জি এম কাদের এরশাদের কথা বলতেই আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন। একপর্যায়ে কেঁদে ফেলেন।

রুদ্ধদ্বার বৈঠকের পর উপস্থিত প্রেসিডেন্ট এর সূত্র জানায়, সভায় দেশের বাইরে থেকে ভালো চিকিৎসক আনা যায় কিনা তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। 

এরআগে দুপুর একটায় এক প্রেসব্রিফিংয়ে জি এম কাদের জানান, এরশাদের শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে উন্নতি হয়েছে। সকালে আমি সিএমএইচে গিয়েছিলাম। তিনি আমার কণ্ঠ শুনে চোখ ও হাত নাড়িয়েছেন।

সভায় উপস্থিত অধিকাংশ নেতারা এরশাদের কবরস্থান নিজস্ব কোনো কেনা জায়গায় পাবলিক প্লেসে করার পক্ষে মত দেন। যদিও কয়েকজন প্রেসিডিয়াম দাবি করেন- এরশাদ সেনানিবাস অথবা আসাদগেটের বিপরীতে সংসদ প্রাঙ্গণে তার কবরের কথা বলেছেন। এ সময় পার্টির অন্য নেতারা এর বিরোধিতা করে বলেন, এরশাদ দেশের সতের কোটি মানুষের নেতা। তার কবরস্থান যদি সেনানিবাসে হয় তাহলে সাধারণ মানুষ জিয়ারত করতে যেতে পারবে না। 

সূত্র জানায়, সভায় জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা ও সফিকুল ইসলাম সেন্টু মোহাম্মদপুরের আদাবরে জায়গা কিনে কবরস্থান করার প্রস্তাব দেন। কাজী ফিরোজ রশীদ বলেন, আদাবরে জায়গা না পাওয়া গেলে সাভারে আমার নিজস্ব জায়গা থেকে দুই বিঘা জমি এরশাদের কবরস্থানের জন্য লিখে দিবো। 

এরপর প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী মামুনুর রশিদ পাবলিক প্লেসে এরশাদের কবরস্থান করার দাবি জানিয়ে বলেন, নেতা এরশাদের কবরস্থানের জন্য আমি ব্যক্তিগত ভাবে পাঁচ কোটি টাকা দিবো। তিনি আরো বলেন, স্যারকে যদি চিকিৎসার প্রয়োজনে বিদেশে নেয়া হয়, এয়ার অ্যাম্বুলেন্সের যাবতীয় খরচও আমি বহন করবো। 

সভায় আরো বক্তব্য রাখেন- এম এ সাত্তার, সাহিদুর রহমান টেপা, শেখ মুহাম্মাদ সিরাজুল ইসলাম, সুনীল শুভ রায়, হাজী সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন, এটিইউ তাজ রহমান, আজম খান প্রমুখ।

সভা শেষে প্রেসব্রিফিংয়ে পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, এরশাদের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে। তিনি মূলত মাইলিড প্লাস্টিক সিনডম রোগে আক্রান্ত। সভায় বাইরে থেকে চিকিৎসক আনার বিষয়েও আলোচনা হয়েছে বলে জানান তিনি।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর