ব্রেকিং:
নবীনগর আসনে তৃনমূলে জনপ্রিয়তায় শীর্ষে ব্যারিস্টার জাকির আহাম্মদ বাঁশের সাঁকোই ভরসা তাদের নবীনগর পৌরসভায় ৯০ প্রার্থীর ২১ জনের মনোনয়ন বাতিল! পণ্যসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক নাসিরনগরে বার্ষিক পরিকল্পনা প্রনয়ন কর্মশালা অনুষ্ঠিত কসবা বর্ডার বাজারে ক্রেতাদের ভিড়-টিকেট সংখ্যা বৃদ্ধির দাবী মটোরসাইকেল দূর্ঘটনায় রেফাতুল ইসলাম উদয় এর অকাল মৃত্যু সরাইলে বঙ্গবন্ধু ফুটবল টুর্নামেন্টে সরাইল সদর ইউনিয়ন চ্যাম্পিয়ন বিজয়নগরে গণধর্ষণের শিকার প্রতিবন্ধী নারী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সাংবাদিক মো:বাহারুল ইসলাম মোল্লাকে শুভেচ্ছা পাকিস্তানের ভিত কাঁপিয়ে দেওয়া স্লোগান জয় বাংলার ইতিহাস বিজয়নগরে চিকিৎসা সেবা ব্যাহত নবীনগরে শিশু ফাতেমার খুনি ধর্ষকের ফাঁসির দাবীতে মানববন্ধন গুরুদাসপুরে বিনামূল্যে অপারেশন বারের লিখিত পরীক্ষায় অনুত্তীর্ণদের এমসিকিউ দিতে হবে না প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের ফল প্রকাশ ভিকারুননিসার নতুন অধ্যক্ষ ফওজিয়া রেজওয়ান বস্ত্রখাতের রফতানি ৫০ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করার লক্ষ্যমাত্রা ডিসি কাণ্ডে কঠোর অবস্থানে সরকার মন্ত্রীর ব্যানার ছিটকে পড়ে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার তরুণীর মৃত্যু

মঙ্গলবার   ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ১ ১৪২৬   ১৭ মুহররম ১৪৪১

৬২০

কোচিং সেন্টার নিয়ন্ত্রণে শিগগিরই কার্যকর উদ্যোগ

প্রকাশিত: ২৬ আগস্ট ২০১৯  

শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্য বন্ধ করার নীতিমালা বাস্তবায়নে পদক্ষেপ নিতে শুরু করেছে বাংলাদেশের সরকার। ২০১২ সালে ওই নীতিমালাটি প্রণীত হলেও আইনি জটিলতায় এতদিন বাস্তবায়ন করা যায়নি। সম্প্রতি সেই জটিলতা কেটে যাওয়ার পর এখন সরকার নীতিমালাটি বাস্তবায়নে উদ্যোগী হয়েছে।

শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলছেন, নীতিমালাটির বিরুদ্ধে কয়েকজন রিট করায় এতদিন আইনটির বাস্তবায়ন করা যায়নি। এখন সেই বাধা কেটে যাওয়ায় আমরা সেটি বাস্তবায়ন করার উদ্যোগ নিয়েছি। 

সরকার বলছে, নীতিমালাটি সাত বছরের পুরনো বলে সেটি পর্যালোচনার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। পাশাপাশি কোচিং সেন্টারগুলো নজরদারির কার্যক্রমও শুরু হবে।

তিনি আরো বলছেন, ২০১২ সালে ওই নীতিমালাটি করা হয়। এখন আইনি জটিলতা কাটে যাওয়ায় আমরা সেটি কঠোরভাবে কার্যকর যাচ্ছি। কিন্তু এই সাত বছরে কোচিং সেন্টারগুলোর অনেক পরিবর্তন এসেছে। তাই আমরা সেই নীতিমালাটি আরেকটু পর্যালোচনা করে দেখার উদ্যোগ নিয়েছি। কোচিং সেন্টারগুলোয় যাতে একটা শৃঙ্খলা আসে এবং সেটি শুধুমাত্র কোচিং হিসেবেই, অর্থাৎ শিক্ষার্থীদের সহায়তার জন্যই ব্যবহৃত হয়, বাণিজ্য হিসেবে ব্যবহৃত না হয়, সেই ধরণের একটা চেষ্টা আমরা অনেকদিন ধরেই করে আসছিলাম।

আবার একই সময় পিছিয়ে পড়া শিক্ষার্থীরা অনেক সময় সেখানে উপকৃত হয়, আবার অনেক সময় অভিযোগ আসে যে, এই সেন্টারগুলোতে শিক্ষার্থীদের কোচিং করতে বাধ্য করা হয়, প্রশ্ন ফাঁস হয় ইত্যাদি অভিযোগ পেয়ে এসেছি। এ কারণেই আমরা চেয়েছি যে এখানে একটা শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে হবে এবং সরকারের নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আনতে হবে।  

শিক্ষা উপমন্ত্রী বলছেন, দীর্ঘদিন মামলা চলার কারণে সেটি বাস্তবায়ন করা যায়নি। যেহেতু আইনি বাধা এখন আর নেই, তাই আমরা সেই নীতিমালাটি বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছি। কিন্তু যেহেতু সেটি সাতবছরের পুরনো, তাই বর্তমান বাস্তবতার আলোকে কিছু সুনির্দিষ্ট বিষয় যোগ করতে হবে।

এই লক্ষ্যে আজ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে একটি সভার আয়োজন করা হয়েছে, যেখানে শিক্ষা মন্ত্রণালয়, বোর্ড, ও বিভিন্ন অধিদফতরের কর্মকর্তারা উপস্থিত থাকবেন। সেখানে কোচিং সেন্টারগুলোর মনিটরিং ও নীতিমালাটি বাস্তবায়ন নিয়ে আলোচনা হবে। নীতিমালায় বাস্তবায়ন মনিটরিংয়ে বিভাগীয় পর্যায়ে একটি, জেলা পর্যায়ে একটি ও উপজেলা পর্যায়ে একটি মোট তিনটি কমিটি গঠনের কথা বলা হয়েছিল। এসব সেন্টারকে স্থানীয় সরকারের আওতায় নিবন্ধিত হতে হবে বলে তিনি জানান।

শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলছেন, একজন শিক্ষার্থী কেন কোচিং সেন্টারে যান, সেটাও আমাদের দেখতে হবে। স্কুল কলেজের শিক্ষায় কোন ঘাটতি আছে কিনা, পাঠ্যপুস্তকে সমস্যা আছে কিনা, কেন গাইড বইয়ে শিক্ষার্থীদের নির্ভর করতে হয়, ইত্যাদি বিষয়গুলোও আমরা দেখবো।

শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্য বন্ধে ২০১২ সালে নীতিমালা জারি করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। তবে, তা গেজেট আকারে প্রকাশ করা হয়নি। সাড়ে ছয় বছর পর গত ২৪ জানুয়ারি গেজেট আকারে প্রকাশ করা হয়। নীতিমালায় সরকারি-বেসরকারি বিদ্যালয়, কলেজ ও মাদরাসার কোনো শিক্ষক তাঁর নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীকে কোচিং করাতে বা প্রাইভেট পড়াতে পারবেন না বলা রয়েছে। তবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানের অনুমতি নিয়ে সর্বোচ্চ ১০জন শিক্ষার্থীকে প্রাইভেট পড়াতে পারবেন।

তবে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে গড়ে ওঠা কোনো কোচিং সেন্টারে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে যুক্ত হতে পারবেন না। সরকারি বা এমপিভুক্ত প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে এসব নিয়ম প্রযোজ্য হবে। বাংলাদেশে সরকারি স্কুল-কলেজের শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্য অবৈধ বলে গত সাতই ফেব্রুয়ারি রায় দিয়েছে হাইকোর্ট। সেই সঙ্গে শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্য বন্ধের নীতিমালা-২০১২কে বৈধ বলে রায় এসেছে। এই নীতিমালার বাইরে গিয়ে সরকারি স্কুল-কলেজের শিক্ষকদের কেউ শিক্ষার্থীদের পড়াতে পারবেন না।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর