ব্রেকিং:
বিশ্ব জলবায়ুর উপরে লক ডাউন এর সুফল দুই উপকরণে মিনিটেই তৈরি করুন জীবাণুনাশক স্প্রে! দেশে করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে ১৫ জন সুস্থ, নতুন শনাক্ত নেই বিমানের সব রুট বন্ধ সচেতন থাকলে করোনা ইউরোপের মতো সংক্রমণ হবে না এনজিও’র উদ্যোগে অসহায় পরিবারের মাঝে খাবার সামগ্রী বিতরণ বিজয়নগরে ৩ ব্যবসায়ীকে অর্থদন্ড জুয়া খেলাকে কেন্দ্র করে এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা দোকানের সামনে ভাইরাস সংক্রমন ঠেকাতে লাল বৃত্ত স্থাপন নবীনগর পৌরসভার জীবানুনাশক স্প্রে ছিটানো শুরু আখাউড়ায় মাস্ক ও গ্লাভস বিতরণ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ওষুধের দাম বেশি নেয়ায় ফার্মেসিকে জরিমানা অবৈধ-মেয়াদোত্তীর্ণ স্যানিটাইজার বিক্রির দায়ে জরিমানা সবার অজান্তে লাশ হলেন গৃহবধূ করোনা থেকে মুক্তির জন্য ২৫ হাজার কোটি টাকা চাওয়া যুবক আটক ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় করোনা প্রতিরোধে ‘কুইক রেসপন্স টিম’ করোনায় একদিনেই আক্রান্ত এক লাখ, হু হু করে বাড়ছেই করোনা থেকে রক্ষা পেতে মদ পান, ৩০০ ইরানির মৃত্যু ৭২ ঘণ্টার মধ্যেই করোনাভাইরাস প্রতিরোধের নয়া উপায় জানালেন চিকিৎসক! অবৈধ-মেয়াদোত্তীর্ণ স্যানিটাইজার বিক্রির দায়ে জরিমানা
  • শনিবার   ২৮ মার্চ ২০২০ ||

  • চৈত্র ১৪ ১৪২৬

  • || ০৩ শা'বান ১৪৪১

১৭১

করোনা আতঙ্কে সিঙ্গাপুরফেরত স্বামীকে রেখে স্ত্রীর পলায়ন

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

সিঙ্গাপুরফেরত এক ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন আতঙ্কে স্ত্রী তাকে ছেড়ে বাবার বাড়ি চলে গেছেন। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। টাঙ্গাইলের বাসাইলে এ ঘটনা ঘটে। 

ওই ব্যক্তির নাম আব্বাস আলী। তিনি উপজেলার দেউলী দক্ষিণপাড়া গ্রামের শামছুল হকের ছেলে। বৃহস্পতিবার তিনি সিঙ্গাপুর থেকে নিজ বাড়িতে ফেরেন। 

জানা গেছে, এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ায় রোববার ইউএনও’র সঙ্গে আলোচনা করে আব্বাসকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। 

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, তার মধ্যে করোনা ভাইরাসের কোনো লক্ষণ দেখা যায়নি। বর্তমানে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য তাকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

ইউপি চেয়ারম্যান মির্জা রাজিক জানান, আব্বাস বাড়িতে এসে তার স্ত্রীকে দেশের বাইরে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে অবহিত করেন। এতে স্ত্রী আতঙ্কিত হয়ে বাবার বাড়ি চলে যান। এর পর থেকেই এলাকাবাসীর মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

আব্বাস আলী জানান, তার কোনো সময় জ্বর বা ঠান্ডা লাগেনি। হয়রানি করার জন্য তার বিরুদ্ধে গুজব ছড়ানো হচ্ছে।

টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার (আরএমও) ডা. শফিকুল ইসলাম সজিব জানান, এলাকাবাসীর সন্দেহের কারণে আব্বাস আলী প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লক্সে যান। পরে সেখান থেকে তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। তার মধ্যে করোনা ভাইরাসের কোনো নমুনা জ্বর বা ঠান্ডাও নেই। তবুও তাকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
সারাবাংলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর