ব্রেকিং:
দুর্ধর্ষ মাদক ব্যবসায়ী আটক সাংবাদিকতায় দেশ সেরা অ্যাওয়ার্ড পেলেন মিশু জেলা উন্নয়ন সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত বিষ প্রয়োগে সর্বশান্ত মৎস্য চাষী বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিবকে সংবর্ধনা পাঁচ দফা দাবিতে ফারিয়ার মানববন্ধন মসজিদের দেয়ালে ফাটল, আতঙ্কে মুসল্লিরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মাদক উদ্ধার মাদক বিরোধী প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত মাদকসেবীর হুমকিতে স্কুলে যাওয়া বন্ধ শিক্ষার্থীর ফুটপাত দখলমুক্ত করলেন ইউএনও শারীরিক সক্ষম হলেই রক্তদান করবে শিক্ষার্থীরা একই তেলে বার বার রান্না ক্যান্সার ও হৃদরোগের কারণ বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণার ওপর জোর দেয়ার তাগিদ তথ্যমন্ত্রীর মুক্ত বাণিজ্য চুক্তিকে অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে: বাণিজ্যমন্ত্রী নারীর মনে জায়গা পাওয়ার উপায় পানিতে পড়া ফোন যেভাবে দ্রুত সারিয়ে তুলবেন যে কারণে ‘সুদ’ হারাম উদ্বোধন হলো শেখ কামাল ক্লাব কাপ আওয়ামী লীগের সম্মেলন মানেই নতুন মুখ: কাদের

সোমবার   ২১ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৫ ১৪২৬   ২১ সফর ১৪৪১

৭৮৭

কথা রাখলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার পুলিশ সুপার

প্রকাশিত: ১০ জুলাই ২০১৯  

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পুলিশ লাইন্স ড্রিল শেডে আনুষ্ঠানিকভাবে পুলিশ কনস্টেবল পদের চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। চূড়ান্তভাবে ( ৩৯ জন পুরুষ, ৫৯ জন নারী ) মোট ৯৮ জন’কে মনোনীত করা হয়। আয়োজিত অনুষ্ঠানে চূড়ান্তভাবে কনস্টেবল পদে মনোনিতদের’কে পুলিশ সুপার ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। অনুষ্ঠানে মনোনীত সদস্য ও তাদের অভিভাবকগণ নিজেদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। এ সময় অনুষ্ঠানস্থলে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। প্রতিক্রিয়া ব্যক্তকালে মনোনীত লিমা আক্তারের হতদরিদ্র কৃষক পিতা হানিফ মিয়া বলেন, আমার টাকা-পয়সা দেয়ার সামর্থ বা তদবীর করার কোন লোক ছিল না, স্বচ্ছ ও মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ হওয়ায় টাকা এবং তদবীর ছাড়া আমার মেয়ের চাকরী হয়েছে বলে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।
পুলিশ সুপার মোঃ আনোয়ার হোসেন খান, বিপিএম(বার), পিপিএম তার বক্তব্যে বলেন, শতভাগ মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতেই কনস্টেবল পদে প্রার্থীদের’কে মনোনীত করা হয়েছে। মাননীয় প্রধান মন্ত্রী ও মাননীয় আইজিপি মহোদয়ের নির্দেশনা মোতাবেক আমরা ঘোষণা করেছিলাম, চাকরির জন্য সরকারি ফি’র অতিরিক্ত কোনো ব্যয় করতে হবে না। কোনো দালাল, প্রতারক চক্রের খপ্পরে না পড়তে বা বিশেষ কোনো ব্যক্তির প্ররোচণায় বিভ্রান্ত হয়ে অর্থ লেনদেন না করতে আমরা প্রতিটি থানা এলাকায় মাইকিং, লিফলেট বিতরণ ও সচেতনতা সভা করেছি, স্থানীয় পত্রিকা/ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় বিজ্ঞাপন প্রকাশ করে আপনাদের অনুরোধ করেছি, সতর্ক করেছি। আমরা কথা রেখেছি, চাকরির জন্য কাউকে অর্থ দিতে হয়নি, তাই যারা চাকরি পেয়েছেন, সততার সাথে দায়িত্ব পালন করবেন। মনোনীতদের অধিকাংশই দরিদ্র পরিবারের মেধাবী সন্তান। দরিদ্র পরিবারের মেধাবী ছেলে-মেয়েদের চাকরি দিতে পেরে আমরা গর্ববোধ করছি।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর