ব্রেকিং:
কসবায় ভিজিডি কার্ডের চাউল বিতরণ মাদক বিরোধী অভিযানে আটক তিন কারা থাকছে আখাউড়ায় ছাত্রলীগের কমিটিতে সুশাসনের জন্য দুর্নীতিই প্রধান অন্তরায় সরাইলে অপপ্রচার নিয়ে প্রতিবাদ সমাবেশ বিএনপি নেতা দুদুর বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মামলা বিএনপি’র পকেট কমিটি বাতিলের দাবীতে বিক্ষোভ ও ঝাঁড়ু মিছিল ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত মুসলিম যাত্রী থাকায় আমেরিকান এয়ারলাইনসের ফ্লাইট বাতিল নির্ধারিত সময়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে হবে: এলজিআরডি মন্ত্রী ব্যাংক নোটের আদলে বিল ব্যবহারে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হুঁশিয়ারি তিন স্পা সেন্টার থেকে ১৬ নারী ও ৩ পুরুষ আটক দেশে বেড়েই চলেছে ইন্টারনেটের গ্রাহক সংখ্যা শাবিপ্রবি উপাচার্য ফরিদ উদ্দিনের অনিয়ম ও দুর্নীতির শ্বেতপত্র রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সরকারের উদ্যোগের ঘাটতি নেই ক্যাসিনো চালাতে দেয়া হবে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তেল স্থাপনায় হামলার প্রতিশোধ নেবে সৌদি আরব অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করছে আওয়ামী লীগ মাদক ব্যবসায়ীদের চেনার উপায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ১১ জন খেলাঘরের জাতীয় পরিষদে

সোমবার   ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৮ ১৪২৬   ২৩ মুহররম ১৪৪১

৩১৮

ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে দলীয় কোন্দলে হিমশিম খাচ্ছে বিএনপি

প্রকাশিত: ২৫ আগস্ট ২০১৯  

নতুন করে আলোচনায় এসেছে নির্বাচনকালীন জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ভবিষ্যৎ প্রসঙ্গ। এমন প্রেক্ষাপটে ঐক্যের অন্যান্য শরিকরা জোট টিকিয়ে রাখতে আগ্রহী হলেও এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারছে না বিএনপি।

নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো বলছে, রাজনৈতিক আদর্শ তথা নীতিগত কিছু বিষয়ে দ্বিমত হওয়ায় ফ্রন্টভুক্ত অন্য দলগুলোর সঙ্গেও বিএনপির দূরত্ব তৈরি হয়েছে। ব্যক্তিগতভাবে নির্বাচনে প্রার্থী না হওয়ায় সবচেয়ে বেশি দূরত্ব তৈরি হয়েছে ফ্রন্টের প্রধান নেতা ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে। এসব কারণে নির্বাচনের পরে আনুষ্ঠানিক ও অর্থবহ কোনো বৈঠকও হয়নি। তবে ফ্রন্ট ভেঙে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিতে পারছে না বিএনপি। কারণ মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের তথা উদারপন্থী বলে পরিচিত ওই দলগুলো বিএনপির কাছ থেকে চলে গেলে দুদিক থেকেই সরকারের লাভবান হওয়ার সুযোগ তৈরি হবে বলে মনে করেন বিএনপির নীতিনির্ধারকরা।

ঐক্যফ্রন্ট গঠনে নিয়ামক ভূমিকা পালনকারী বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর ভাষায়, ঐক্যফ্রন্ট মৃত্যুবরণ করেনি। প্রাণহীন অবস্থায় টিকে আছে। ঐক্যফ্রন্ট থাকবে কি না এ সিদ্ধান্ত বিএনপিকেই নিতে হবে। তবে আমি মনে করি, রাজনৈতিক আদর্শ তথা অবস্থানগত কারণে বিএনপিরই ফ্রন্টকে বাঁচিয়ে রাখা উচিত। তার মতে, শুধু জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে চললে বিএনপি ভুল করবে।

জানা গেছে, বিএনপির মধ্যে দুই ধরণের ভাবনা ঘুরপাক খাচ্ছে। একদিকে তারা মনে করছে, ফ্রন্টভুক্ত দলগুলোর নেতাদের ইমেজ কাজে লাগানো জরুরি। অন্যদিকে ওই দলগুলোর কাছ থেকে সাংগঠনিক বা ভোটের রাজনীতিতে বড় ধরনের কিছু পাওয়ার নেই বলেও বিএনপির অনেকে মূল্যায়ন করছেন। অথচ নির্বাচনে তাদের অনেক আসন ছাড়তে হবে। ঐক্যফ্রন্ট রক্ষা করতে গিয়ে এরই মধ্যে ২০ দলীয় জোট ভাঙনের মুখে পড়েছে। তাই রাজনীতির লাভ-ক্ষতির হিসাবের মধ্যেই আটকে আছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ভবিষ্যৎ।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর