ব্রেকিং:
মুজিববর্ষে চালু হচ্ছে নতুন নতুন শিল্পকারখানা স্কুল জীবনে কলাগাছ দিয়ে শহীদ মিনার বানানোর অনুভূতি বাজার ব্যবস্থাপনা নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মতবিনিময় সভা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অভিনব পন্থায় গাঁজা পাচার ‘নিয়মিত সার পেতে সংশ্লিষ্টদের আন্তরিক হতে হবে’ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার অটোরিকশার কারখানা সিলগালা, মালামাল জব্দ ব্রাহ্মণবাড়িয়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মানুষের শ্রদ্ধা বাংলা ভাষায় ওয়েবসাইট চালু করল মার্কিন দূতাবাস ভাষা আন্দোলনের শুরু থেকে শেষ ভাষা শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা মহান শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস শুদ্ধ বানান চর্চার একুশে ফেব্রুয়ারি দলীয় পদ থেকে বহিষ্কারের দাবিতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অভিনব পন্থায় গাঁজা পাচার মনের আনন্দে চুল-দাড়ি কাটেন লিটন! কসবায় বিশেষ অবদানে একুশ জনকে সম্মাননা স্মারক প্রদান আলেম সমাজ ও সাংবাদিকদের মধ্যে সৃষ্ট সংকটের অবসান আলোকিত শান্তির সরাইল গড়ার কারিগর ওসি সাহাদাত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সরকারি কর্মচারীদের সম্মেলন
  • শুক্রবার   ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ||

  • ফাল্গুন ৯ ১৪২৬

  • || ২৬ জমাদিউস সানি ১৪৪১

৭৮

এক হাজার টাকা ছাড়া অন্য নোটের বান্ডিলে পিন মারার নিষেধাজ্ঞা

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া

প্রকাশিত: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

এক হাজার টাকা ছাড়া অন্য নোটের বান্ডিলে ব্যাংকগুলোর পিন মারার কার্যক্রমে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এখন থেকে অন্য সব নোট পলিমার টেপ বা পলিমারযুক্ত পুরু কাগজের টেপ দিয়ে বান্ডিল করতে হবে। এতদিন ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোটে পিন মারার সুযোগ ছিল।

এ ছাড়া ব্যাংকের শাখা থেকে নোট গ্রহণ, প্রদান বা গণনার সময় টাকার ওপর সিল, সই, সংখ্যা বা অন্য যে কোনো লেখালেখি না করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। গতকাল সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংক এ সংক্রান্ত নির্দেশনা ব্যাংকগুলোতে পাঠিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট জানান, বিশ্বের বেশিরভাগ দেশের মুদ্রার ওপর লেখালেখি বা স্ট্যাপলিংয়ের প্রচলন নেই। বাংলাদেশে কারণে-অকারণে নোটের ওপর লেখা, সিল বা সই করা হয়। হিসাব রাখার সুবিধার্থে ব্যাংকারাই এ কাজ বেশি করে থাকেন। সাম্প্রতিক সময় এ প্রবণতা ব্যাপক বেড়ে যাওয়ায় সরকারের নোট ছাপানোর খরচ বেড়ে যাচ্ছে। এরকম পরিস্থিতিতে এ নির্দেশনা দিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, টাকার ওপর সংখ্যা লিখন, সিল, স্বাক্ষর প্রদান বা বারবার স্ট্যাপলিং করার ফলে অপেক্ষাকৃত কম সময়ে নোটগুলো অপ্রচলযোগ্য হয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুসন্ধানে দেখা গেছে, লেখালেখির এ প্রবণতা দিনদিন বাড়ছে। ব্যাংকারা লাল, নীল, কালোসহ বিভিন্ন কালিতে বেশি লেখালেখি করছেন। এছাড়া সব মহা মূল্যমানের নোট ব্যান্ডিং বা প্যাকেট করার সময় সিল মারার বিষয়টি প্র্যাকটিসে পরিণত হয়েছে। এতে করে নোটগুলো খুব অল্প সময়ে অচল হয়ে যাচ্ছে।

আর স্ট্যাপ্লিংয়ের কারণে নোটের ‘স্ট্যামিনা’ও কমে যাচ্ছে। এ প্রবণতা বাংলাদেশ ব্যাংকের ক্লিন নোট নীতি ও নোট ব্যবস্থাপনা কৌশলের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। এরকম পরিস্থিতিতে টাকার ওপর কোনো ধরনের সিল, সই, লেখালেখি বা স্ট্যাপলিং না করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ব্যাংকগুলোকে।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলেছে, নতুন ও পুনঃপ্রচলনযোগ্য নোট প্যাকেট করার সময় সিল, সই, সংখ্যা বা অন্য কোনো খেলালেখি না করে ব্যাংকের মুদ্রিত ফ্লাইলিফে ব্যাংক শাখার নাম, সিল, নোট গণনাকারী ও প্রতিনিধির স্বাক্ষর ও তারিখ আবশ্যিকভাবে দিতে হবে। আর স্ট্যাপলিং না করে পলিমার টেপ অথবা পলিমারযুক্ত পুরু কাগজের টেপ দিয়ে ব্যান্ডিং করতে হবে।

নিরাপত্তার স্বার্থে ব্যাংকগুলো অন্য দেশে ব্যবহৃত উন্নত প্রযুক্তির আলোকেও ব্যান্ডিং করতে পারবে। তবে সে পদ্ধতিতে কোনো অবস্থাতে যেন বর্ণিত ব্যান্ডিংয়ের চেয়ে কার্যকর হয় তা নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
অর্থনীতি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর