ব্রেকিং:
নবীজি (সা.) এর বিদায় হজের ভাষণ দু’দেশের অমীমাংসিত বিষয়গুলোর সমাধান হবে: কাদের মুখ দিয়ে পবিত্র কোরআনের পাতা উল্টিয়ে ৩০ পারা মুখস্থ ঈদে সড়কের পরিস্থিতি যেন গতবারের পুনরাবৃত্তি না হয়: কাদের পাঁচ বছরের মধ্যে দেশে শতভাগ ইন্টারনেট: পলক ১৬ জনকে আসামি করে নুসরাত হত্যাকাণ্ডের অভিযোগপত্র প্রস্তুত বাংলাদেশ প্রেক্ষাপট, আন্ত-অভিযানে স্থলবাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধি পার্বত্য অঞ্চলের শিশুরা শিক্ষা বঞ্চিত হবে না: শিক্ষামন্ত্রী স্থগিত ৫ উপজেলায় ভোট ১৮ জুন চাল আমদানি কমাতে শুল্ক বাড়ল দ্বিগুণ তিন বছরে বাংলাদেশের সুন্দরবনে বাঘের সংখ্যা আটটি বেড়ে এখন ১১৪টি পরিবর্তন ছাড়াই ১৫ সদস্যে ভরসা বাংলাদেশের দেশে সর্বোচ্চ বিদ্যুৎ উৎপাদনের রেকর্ড ৮০ বছরের মধ্যেই সমুদ্রে তলিয়ে যাবে বাংলাদেশ! দেশকে উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে পরিণত করেছে সরকার: পাটমন্ত্রী কোরআন অনুবাদ করতে গিয়ে মুসলমান হলেন ধর্ম যাজক ‘জাল’ প্রতিরোধে ১০০০ টাকার নতুন নোট নতুন চমক, দেশে চালু হচ্ছে বেকার ভাতা লক্ষ্যমাত্রার বেশি ধান কিনতে সুপারিশ শেখ হাসিনাকে বরণের অপেক্ষায় জাপান: রাষ্ট্রদূত

শুক্রবার   ২৪ মে ২০১৯   জ্যৈষ্ঠ ১০ ১৪২৬   ১৯ রমজান ১৪৪০

৭৯

ইয়াতিমের মাল আত্নসাৎ করা এবং তাদের ওপর যুলুম করার শাস্তি

প্রকাশিত: ১৪ মে ২০১৯  

‘যারা ইয়াতিমের সম্পত্তি অন্যায়ভাবে গ্রাস করে, তারা তাদের পেটে আগুন ছাড়া আর কিছইু ঢুকায় না। অচিরেই তারা জাহান্নামে জ্বলবে।’ (সূরা নিসা-১০)

‘তোমরা ইয়াতিমের সম্পত্তির কাছে যেওনা। তবে উত্তম পন্থায় তাদের বয়োঃপ্রাপ্তির পূর্ব পর্যন্ত তদারকী করতে পার।’ (সূরা আন আম-১৫২)

হজরত আবু সাঈদ খুদরী (রা) থেকে বর্ণিত। রাসূল (সা.) বলেছেন, মিরাজের রাতে আমি এমন কিছু লোককে দেখলাম, যাদের দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছে অপর কতক লোক। যারা তাদের দায়িত্বে নিয়োজিত, তারা ওই লোকরে মুখের চোয়াল খুলে হা করাচ্ছে, আর অপর কয়েকজন জাহান্নাম থেকে আগুন, পাথরের টুকরো এনে তাদের গলায় ঢুকিয়ে দিচ্ছে। সংগে সংগে পাথর গুলো তাদের মলদ্বারা দিয়ে বেরিয়ে যাচ্ছে। আমি জিজ্ঞাসা করলাম, হে জিবরাঈল ! এরা কারা? তিনি বললেন যারা ইয়াতিমের সম্পত্তি আত্নসাৎ করে তারা। তারা কেবল আগুন খেয়ে থাকে। (মুসলিম)

হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বর্ণনা করেন, রাসূল (সা.) বলেন, কিয়ামতের দিন আল্লাহ তায়ালা কতক লোককে এমন অবস্হায় কবর থেকে ওঠাবেন, যাদের পেট হতে আগুন নির্গত হবে এবং তাদের মুখমন্ডল ঝলসে যাবে। সাহাবীগণ আরজ করলেন হে আল্লাহর রাসূল (সা.)! ওরা কারা? রাসূল (সা.) বললেন, আল্লাহ তায়ালার এ কথাটা তুমি পড়নি যে, যারা ইয়াতিমের সম্পত্তি অন্যায়ভাবে গ্রাস করে তারা তাদের পেটে আগুন ছাড়া আর কিছু ভক্ষণ করে না।

ইমাম সুদ্দী (রহ) বলেন, অন্যায়ভাবে ইয়াতিমের সম্পদ আত্নসাৎকারী যখন কিয়ামতের ময়দানে সমবেত হবে, তখন তার নাক, মুখ, কান ও চোখ দিয়ে আগুন নির্গত হবে। তাদেরকে যেই দেখবে সেই চিনতে পারবে, এরা ইয়াতিমের সম্পদ আত্নসাৎকারী।

অভিজ্ঞ ওলামাগণ বলেন, ইয়াতিমের দায়িত্ব গ্রহণকারী অভিভাবক যদি দরিদ্র হয় তবে যে পরিমাণ প্রয়োজন ততটুকু নিজের জন্য ব্যয় করতে পারবে। কিন্তু প্রয়োজনের অতিরিক্ত গ্রহণ করলে তা অবৈধ ও হারাম হবে। আল্লাহ তায়ালা ইয়াতিমের অভিভাবক সম্পর্কে বলেন, যে ধনী ,সে যেন সংযত থাকে আর যে দরিদ্র, সে যেন নেয় সংগত পরিমানে খায়। (সূরা নিসা- ৬)

এই ন্যায়সংগত পরিমাণটা কী? সে সম্পর্ক চার প্রকার বিধান রয়েছে-
১.দরিদ্র অভিবাবক তা ঋণ হিসেবে গ্রহণ করবে।
২.অপব্যায় না করে জীবন ধারণের জন্য যতটুকু প্রয়োজন ততটুকু ভোগ করবে।
৩.ইয়াতিমের কোনো কাজ করে দেয়ার বিনিময়ে ওই কাজের সঙ্গে সংগতি রেখে পারিশ্রমিক নিতে পারবে।
৪.অতীব প্রয়োজন হলে নিতে পারবে। এক্ষেত্রে সচ্ছল হলে তা পরিশোধ করতে হবে। আর অসচ্ছল হলে পরিশোধ না করলেও জায়েয হবে। এ চারটি মত আল্লামা ইবনুল জাওযীয় তাফসীরে বর্ণনা করেন।

রাসূল (সা.) বলেন, ‘আমি ও ইয়াতিমের ভরণপোষণকারী অভিভাবক জান্নাতে এভাবে থাকবো ।’ এই বলে তিনি হাতের দুই আঙুল একত্রিত করেন। (বুখারী)

রাসূল (সা.) বলেন, ‘ইয়াতিম চায় সে আপন হোক বা পর হোক তার ভরণপোষণকারী ও আমি জান্নাতে এই দুই আঙুলের মত থাকবো ।’ এই বলে তিনি দুটি আঙুল দেখান।

ইয়াতিমের ভরণপোষণ বলতে বুঝায় তার দ্বায়-দায়িত্ব বহন করা, তার ধন সম্পদ থেকে থাকলে তার খাদ্য ও পোশাক ইত্যাদির ব্যবস্হা করা এবং ওই সম্পদ যাতে উত্তরোত্তর বাড়ে তারও ব্যবস্হা করা। আর যদি তার কোনো সম্পদ না থেকে থাকে, তাহলে আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশে নিজের সম্পদ থেকে তার ভরণপোষণ করা। হাদীসে আছে যে, ‘আপন ও পর’ কথাটা বলা হয়েছে তার এই অর্থ যে, সে আত্মীয় হোক কিংবা কোনো অপরিচিত লোক হোক। উদাহরণ স্বরূপ বলা যায় যে, অভিভাবক তারা, ভাই, মা, চাচা, মায়ের পরবর্তী মামী, মামা অথবা অন্য কোনো আত্মীয় হলে সে তার আপনজন। নচেত সে পর।

রাসূল (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি কোনো মুসলমান ইয়াতিম শিশুকে নিজের পানাহারের অন্তর্ভুত করে নেয় এবং উক্ত ইয়াতিমকে আল্লাহ সচ্ছল ও স্বাবলম্বী না করা পর্যন্ত এভাবে নিজ দায়িত্বে রাখে, আল্লাহ তার জন্য জান্নাত অবধারিত করবেন। তবে ক্ষমার অযোগ্য কোনো গুনাহ করলে তার কথা স্বতন্ত্র। মুসনাদে আহমাদে আছে, রাসূল (সা.) বলেছেন, আল্লাহ ছাড়া যে ইয়াতিমের মাথায় হাত বুলানোর মত কেউ নেই, সেই ইয়াতিমের মাথায় যে হাত বুলায়, তার হাতের পরশ পাওয়া প্রতিটি চুলের বদলায় সে এক একটি নেকি লাভ করবে। আর যে ব্যক্তি কোনো ইয়াতিমের প্রতি সদ্বব্যবহার করে, সে আর আমি এভাবে (একত্রে ) জান্নাতে থাকবো। (তিরমিযী)

এক ব্যক্তি হজরত আবু  হুরায়রা (রা.)-কে বললো, আমাকে উপদেশ দিন। তিনি বললেন, ইয়াতিমের প্রতি সদয় হও, তাকে কাছে টেনে নাও এবং নিজের খাদ্য থেকে তাকে খাওয়াও। কেননা একবার এক ব্যক্তি রাসূল (সা.)-কে জানালো যে, তার হৃদয় খুবই কঠিন। তখন রাসূল (সা.) তাকে বললেন, তুদি যদি চাও যে তোমার হৃদয় কোমল হোক, তাহলে ইয়াতিমকে নিজের নিকটবর্তী কর, তার মাথায় হাত বুলাও এবং নিজের খাদ্য থেকে তাকে খাওয়াও। এসব করলে তোমার হৃদয় কোমল হয়ে যাবে। (মুসনাদে আহমাদ)

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া