ব্রেকিং:
নূর চৌধুরীর তথ্য প্রকাশে কানাডার আদালতে বাংলাদেশের পক্ষে রায় আখাউড়ায় শিক্ষকের যৌন হয়রানির প্রতিবাদে সড়কে শিক্ষার্থীরা সরাইলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চারপাশে জুয়া ও মাদকের আসর নাসিরনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান আখাউড়া উপজেলা ছাত্রলীগে পদ পেতে এ কি শর্ত দিলেন আইনমন্ত্রী! সরাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ১ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ ব্রিটেনের প্রধান গির্জায় কোরআন তিলাওয়াতের বিরল ঘটনা স্মার্টফোনের বদলি হিসেবে ‘স্মার্ট গ্লাস’ আনছে ফেসবুক এডিআর বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক আওয়ামী লীগের নেতারা দুর্নীতি করলে ছাড় নয়: কাদের জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাবাব ফাতেমা ভাবির পরকীয়া দেখে ফেলায় জীবন দিতে হলো দেবরকে সর্বোচ্চ শক্তি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে হামলার হুমকি ইরানের বেশি খাস জমি উদ্ধারকারী ডিসিকে পুরস্কৃত করা হবে: ভূমিমন্ত্রী বকেয়া পরিশোধে সময় পাচ্ছে রবি-গ্রামীণফোন ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজের ফাইনালে বাংলাদেশ স্বর্ণজয়ী রোমান সানার মায়ের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী জনগণের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে আন্তরিক সরকার: প্রধানমন্ত্রী আজ থেকে টানা তিন দিনের ছুটিতে আখাউড়া স্থল বন্দর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শিক্ষার্থী সম্পৃক্তকরণ বিষয়ক কর্মসূচি অনুষ্ঠিত

বৃহস্পতিবার   ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৪ ১৪২৬   ১৯ মুহররম ১৪৪১

৮০৬

আঁধার থেকে আলোয়

প্রকাশিত: ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার ৩০ ভিক্ষুক পরিবারের ভাঙা ঘর আলোয় আলোকিত করেছে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি। দশ দুয়ারের ফকির দাবি করা এসব মানুষের ঘরে বিনা খরচে বিদ্যুৎ দেয়া হয়েছে। 

এসব পরিবারের অনেকের মাসিক বিলের টাকাও তিনি পরিশোধের আশ্বাস দেয়া হয়। ‘প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগ, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ’ এ পরিকল্পনাকে সামনে রেখেই এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। গরিব অসহায় এসব মানেুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন কর্মকর্তা রাজন কুমার। 

বিদ্যুতের প্রয়োজনীয় মালামালসহ ঘর পর্যন্ত লাইন আনা সরকারের খরচ। কিন্তু আবেদনের জন্য ১১৫ টাকা, জামানত ফি ৪শ’ টাকা এবং সদস্য ফি ৫০ টাকা দিতে হয় গ্রাহককে। ঘরের ওয়ারিং নিজ খরচে করবে গ্রাহক। মোট ৫৬৫ টাকা বহন করে এই কর্মকর্তা এদের ঘরে আলো পৌঁছে দিয়েছেন। সবশেষ গত ১৭ ফেব্রুয়ারি এরকম আরো দুটি পরিবারের ঘরে বিদ্যুৎ দেয়া হয়। 

রাজাপুরের সাংগর গ্রামের আনোয়রা বেগমের ঘরে পল্লী বিদ্যুতের লোকজন লাইন নেয়ার কাজ করছে। কর্মকর্তা রাজন কুমার দেখভাল করছেন কাজ ঠিকমত হচ্ছে কি না। আনোয়ারার স্বামী লুৎফর রহমান হাবাগোবা মানুষ। 

পাঁচ সন্তানের জননী আনোয়রা বলেন, জীবনে কল্পনাও করিনি মোর ঘরে বিদ্যুতের লাইট জ্বলবে। মানুষের দয়ায় সংসার চলে। পাশের ঘরে বিদ্যুৎ জ্বলে দেহি। কিন্তু আমার সামর্থ্য নাই। আইজ বিদ্যুৎ পাইয়া আল্লার কাছে দোয়া করি প্রধানমন্ত্রী ও এই স্যারের জন্য। হেগো আশা জানি পূরণ হয়। 

রাজাপুরের আমিন বাড়ি গ্রামের আরেক ভিক্ষুক সূর্য্য বানু। বয়স ৮০ বছর। দুই মেয়েকে বিয়ে দিয়ে এই বৃদ্ধার শান্তিতে থাকার কথা। কিন্তু মেয়েরা বিধবা হওয়ায় তার অশান্তির শেষ নেই। একই দিন তার ঘরেও বিদ্যুতের সংযোগ দেয়া হয়। তার ঘরে বিদ্যুৎ আসায় আনন্দ ধরে না। 

আনন্দের প্রতিক্রিয়ায় সূর্য্য বানু বলেন, মোরা চাইয়া চিন্তা খবার মানুষ। দশ দুয়ারের ফকির। রাইতে পানির পিপাসা লাগলেও অন্ধকারে পানি খাইতে পারি না। আমার ঘরে বিনা খরচায় কারেন্ট জ্বলবে এডা বিশ্বাস হয় না। একইভাবে বিনা খরচে বিদ্যুৎ দেয়া হয় রাজাপুরের বড় কৈবর্তখালী গ্রামের আমিরুন, আকলিমা, বড়ৈইয়া গ্রামের শাজেদা বেগম, নিজামিয়া গ্রামের রাশেদা বেগম, নারকেল বাড়িয়ার রাশেদা খানমসহ ৩০ টি পরিবারকে। এদের অধিকাংশ পরিবার ভিক্ষা করে।

পল্লী বিদ্যুতের কর্মকর্তা এজিএম রাজন কুমার দাস বলেন, মাঠে কাজ করি। গ্রাহকদের বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার সময় অনেক অসহায় ভিক্ষুক পরিবারকে তাকিয়ে থাকতে দেখে। বিদ্যুতের জন্য তাদের এই অসহায়ত্বই আমার বিবেককে নাড়া দিয়েছে। একই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগ ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ স্লোগানকে বাস্তবায়ন করতেই এরকম ৩০ পরিবারকে বিদ্যুৎ দিয়েছি। এমনকি যারা মাসিক ৫০/৬০ টাকা বিল দিতে পারবে না তাদের বিলও আমি বহন করার কথা জানিয়েছে। 

তিনি বলেন, এ বিষয়ে সরকারি বরাদ্দ থাকলে আরো বেশি সহায়তা করা যেত। মিটার পর্যন্ত সরকারই সব বহন করছে। তার সঙ্গে আমি এটুকু সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়ে এদের পাশে দাঁড়ানো এই আর কি। 

রাজাপুর উপজেলা সাবজোনাল অফিসের আওতায় মোট বিদ্যুৎ গ্রাহকের সংখ্যা রাজাপুর ৩৫ হাজার এবং কাঠালিয়া উপজেলায় ১৫ হাজার। নিয়মানুযায়ী ২৫ হাজার গ্রাহক হলে জোনাল অফিস হবার কথা। তা না হওয়ায় পর্যাপ্ত লোকবল এবং যানবহন সমস্যা থাকলেও প্রায় ৫০ হাজার গ্রাহকের সেবা দিতে আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে রাজাপুর পল্লী বিদ্যুৎ।

আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
আলোকিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া
এই বিভাগের আরো খবর